• রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
  • ||

কি চমৎকার তাদের চিন্তা ভাবনা!

প্রকাশ:  ২৩ অক্টোবর ২০২০, ২৩:৪৬
শরদিন্দু ভট্টাচার্য্য টুটুল
শরদিন্দু ভট্টাচার্য্য টুটুল

আমাদের চোখের সামনে মাঝে মধ্যে এমন সব ঘটনা ঘটে, যা দেখলে আমরা সাধারণ মানুষের দলের বিশ্বাস করতে কষ্ট হয়, আমরা একটা সভ্য সমাজে বসবাস করছি। আমাদের সমাজের একশ্রেণির লোকেরা এমন সব কাজকর্ম করেন, যা দেখলে মনে প্রশ্ন জাগে আমাদের দেশের জনগোষ্ঠীর একটা ক্ষুদ্রতম অংশ লেখাপড়া করেও মানুষের মতো মানুষ হতে পারেনি। তার মধ্যে শিক্ষিত ব্যক্তিটি যদি কোন আমলা কিংবা রাষ্ট্রের বড় কোন পদে বসা থাকেন, তাহলেতো কোন কথাই নেই। তিনিতো ধরাকে সরা জ্ঞান করে যা কিছু করতে দ্বিধাবোধ করবেন না। এই শ্রেণির শিক্ষিত লোকেরা ভাবেন তারাই সমাজ এবং রাষ্ট্রের মালিক। তাদের মতো লোকেরা যা কিছু করেন, তা-ই সুন্দর লাগে। তারা যা করবেন কিংবা যা বলবেন আমাদের মতো সাধারণ মানুষকে তা মেনে চলতে হবেই। এদেশের সাধারণ জনগোষ্ঠী সহজ এবং সরল প্রকৃতির হয়ে থাকে। তারা যা বিশ্বাস করে তা-ই করে থাকে এবং বলে থাকে। তাদের মধ্যে দ্বীচারিতা নেই। দেশের সাধারণ জনগোষ্ঠীর মধ্যে দ্বীচারিতা নেই বলেই তারা এক কথার মধ্যে সকল সময় থাকে। তারা সত্যকে সত্যকে বলেই জানে। তাদেরকে টাকা পয়সা দিয়ে সত্য থেকে হটানো যায় না। তাই আমরা প্রায়ই দেখে থাকি আমাদের দেশের একশ্রেণীর মানুষ দেশের সাধারণ মানুষের সঙ্গে ইঁদুর বিড়াল খেলা খেলে থাকেন। দেশের অতি দরিদ্র মানুষকে তাদের অধিকার কিংবা প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত করে একশ্রেণির ভদ্রলোকেরা আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ হয়ে থাকে বা হচ্ছে। একজন শিক্ষিত মানুষ যদি তার শিক্ষা ও জ্ঞানটুকু মানুষের কাজে কিংবা রাষ্ট্র এবং সমাজের কাজে লাগাতে না পারেন, তাহলে আর লেখাপড়া করে কি লাভ। আমরা জানি মানুষ লেখাপড়া করে বিনয়ী হয়। পরের ভালমন্দ দেখার জন্য তৎপর থাকে। সমাজের অশিক্ষা, কুশিক্ষা দূর করার জন্য উদগ্রীব হয়ে উঠে। শিক্ষিত মানুষের দল সমাজ ও রাষ্ট্রের সকল অন্ধকার দূর করতে উদ্যোগী হয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যায়। শিক্ষিত মানুষের কাছে দেশের মানুষ এমন কোন কর্মকান্ড আশা করে না, যে সব কর্মকান্ড দেখলে মানুষের মনে হবে শিক্ষিত লোকের অনৈতিক কাজটিতো চোর ও ডাকাত প্রকৃতির লোকেরাও করে থাকে। কিন্তু আমরা আজ কি দেখছি। আমরা কি একশ্রেণীর শিক্ষিত জনগোষ্ঠীর কাজ দেখে হতবাক হয়ে যাচ্ছি না। এখন আমাদের চারপাশে এবং অফিস পাড়ায় ঘুরে ফিরে কি দেখতে হচ্ছে। সেখানে আমরা দেখতে পাচ্ছি আমাদের সমাজের বড় বড় পদে অধিষ্টিত ব্যক্তিরা এমন সব কাজ কর্ম করছেন, যা দেখলে আমাদের অবচেতন মন থেকে আপনা আপনি বেরিয়ে আসে, এসব কাজতো ভদ্র লোকের কাজ নয়। এসব কাজতো চোর আর ডাকাত প্রকৃতির লোকেরা করে থাকে। কিন্তু যে সব কর্তা ব্যক্তিরা কুকর্ম করে থাকেন তারা একটি বারও ভাবেন না, তারা কি করছেন। তারা অর্থাৎ কর্তাব্যক্তিরা মনে করেন তারা যে সব কাজ করেন, তাদের সেই সব কাজেই সমাজ সংসারের মঙ্গল সাধন করে থাকে। কি চমৎকার তাদের চিন্তা ভাবনা! ভাবলেই মণপ্রাণ কেঁপে উঠে।

এবার আসি মূল কথায়। নিকট অতীতে সংবাদপত্রে প্রকাশিত এক সংবাদে বলা হয় যে, দরিদ্র খামারির ১১৫টি হাঁস জবাই করে খেয়েছেন এক ইউএনও। প্রকাশিত সংবাদে বলা হয় যে, দেশের একটি উপজেলার ঐতিহ্যবাহি বিলের জলে হাঁস নামার অপরাধে নিরিহ দরিদ্র তিন হাঁস খামারীর ১১৫টি হাঁস ধরে এনে রাতে জবাই করে খেয়ে ফেলেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার। অতীতের মতো এবারও হাঁস খামারিদের হাঁস উপজেলার বিল এলাকায় ঘুরে বেড়ালে বিলের মৎস্য প্রকল্পের লোকজন হঠাৎ মাইকিং করে বিলের জলে হাঁস চড়ানোর উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। এই নিষেধাজ্ঞার কারণে হাঁস খামারীরা বিলের জল থেকে কয়েকশ গজ দূরে হাঁস লালন-পালন করতে থাকে। হঠাৎ করে খামারীদের কিছু হাঁস জলে নামলে পাহারাদার নিজে খামারীদের প্রায় ১১৫টি হাঁস ধরে ইএনও-এর বাস ভবনের কাছে রাখে। সন্ধ্যায় দরিদ্র খামারী হাঁসগুলো ছাড়াতে ইউএনও কাছে গেলে ইউএনও খামারীকে পুলিশে ধরিয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে তাড়িয়ে দেন। পুলিশের ভয়ে অসহায় খামারী সেখান থেকে বাড়ি ফিরে যায়। অন্যদিকে ইউএনও খামারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করে রাতে অফিসের লোকজন দিয়ে হাঁসগুলো জবাই করে, উপজেলার কয়েকজন অফিসারকে কিছু জবাই করা হাঁসের মাংস দিয়ে অবশিষ্ট্য হাঁসের মাংস ইউএনও ফ্রিজজাত করে রাখেন। উপরের উল্লেখিত সংবাদটির যদি বিচার বিশ্লেষণ করতে যাই, তাহলে আমরা একটি বিষয়ে সবাই একমতে উপনীত হবো যে, আর তা হল, আমাদের দেশে আমলারা নিজেদের যেমন অনেক কিছু মনে করেন, তেমনি দেশের মানুষকেও মানুষ বলে মনে করেন না। তারা নিজেদের মনে করেন দেশের সব কিছুর কর্তা। তাদের বিরুদ্ধে কেউ সত্য কথাও বলতে পারবে না। দেশের গরীব মানুষকে আমাদের দেশের এক শ্রেণীর আমলা ব্যক্তিরা মনে করে থাকেন পোকা মাকড়। পোকা মাকড়ের সাথে মানুষ যে ভাবে ব্যবহার করে থাকে, আমাদের দেশের একশ্রেণির আমলারাও তেমন ব্যবহার করে থাকেন। প্রতিদিন ডিমপাড়া হাঁসের ডিম বিক্রি করে দরিদ্র খামারীরা তাদের বউ বাঁচ্চা নিয়ে জীবনযাপন করে থাকে। অনেক সময় এসব খামারীরা বিভিন্ন এনজিও কিংবা সুদের ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চড়া সুদে টাকা এনে তাদের খামারের ব্যবসা পরিচালনা করে থাকে। সময়মত এনজিও কিংবা সুদের ব্যবসায়ীদের টাকা কিংবা কিস্তি পরিশোধ করতে না পারলে, খামারীদের চরম এক দুর্দশার মাঝে পড়তে হয়। তখন দেখা যায় ঘরের সবকিছু, এমনকি খামারীদেকে ঘটি বাটি বিক্রি করতে হয়। তখন কৃষক কিংবা হাঁস মোরগের খামারীদের দুঃখের সীমা থাকে না। অনেক সময় তারা ঘরের ঘটি বাটি বিক্রি করেও নিজেদের রক্ষা করতে পারে না। প্রশ্ন হলো, যেসব দরিদ্র খামারীর হাঁস বিলের জলের চড়ে বেড়ানোর অপরাধে জবাই করে খাওয়া হলো, সেই দরিদ্র ব্যক্তিরা এখন কোথায় যাবে। তাদের তো মাথায় হাত দিয়ে বসে থেকে বিলাপ করা ছাড়া আর কোন উপায় নেই। খামারীরা যদি কোন অপরাধ করে থাকে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা যেত এবং অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে শাস্তি দেওয়া যেত। কিন্তু ইউএনও রাষ্ট্রের কোন আইনে দরিদ্র খামারীদের ১১৫টি হাঁস জবাই করে অফিসের অন্যান্য লোকদের নিয়ে খেয়ে ফেললেন তার কোন ব্যাখ্যা কি আছে। সবাই বলবেন ব্যাপারটা বোধগম্য হচ্ছে না। একটি উপজেলার একজন ইউএনও একটি উপজেলার মানুষের রক্ষাকর্তা। উপজেলাটির ভাল মন্দ দেখার দায়িত্ব ইউএনও-র উপরই থাকে। কিন্তু তিনি নিজে একটি উপজেলার মানুষের রক্ষাকর্তা হয়ে কিভাবে ভক্ষকে পরিণত হলেন। তা তিনি নিজে কি বলতে পারবেন। আমরা একটি সভ্য সমাজে বাস করি। সভ্য সমাজের একজন ইউএনও এমন কাজ অর্থাৎ দরিদ্র খামারীদের ডিম পাড়া হাঁস অন্যায় ভাবে খেয়ে ফেলতে পারেন না। আমাদের বিশ্বাস করতে কষ্ট হয় একজন বিসিএস ক্যাডারের অফিসার গরীব খামারীদের খামারের হাঁস ক্ষমতার অপব্যবহার করে খেয়ে ফেলতে পারেন। আমাদের রাষ্ট্রের সকল স্তরেই যেন এক ধরনের অমানুষরা জায়গা করে নিয়েছে। সরকারের একেবারে উচ্চ পর্যায়ে থেকে দেশের মানুষকে হাঁস মোরগের খামার গড়ে তোলার জন্য বলা হয়ে থাকে। সরকারও হাঁস মোরগের খামার গড়ে তোলতে যারা চায় তাদেরকে উৎসাহিত করে থাকেন। কিন্তু মানুষ যখন দেখবে, নিজেদের পরিশ্রমে এবং এনজিও এবং বিভিন্ন জায়গা থেকে টাকা পয়সা ধার দেনা করে গড়ে তোলা, হাঁস মোরগের খামারের হাঁস মোরগ দেশের একশ্রেণীর নির্লজ্জ কর্তাব্যক্তিরা খেয়ে ফেলেন, তখন কি কারো ইচ্ছে হবে নিজের পয়সা খরচ করে এবং ধার দেনা করে একটি হাঁস মোরগের খামার গড়ে তুলতে। সংবাদপত্রে প্রকাশিত সংবাদটি পড়ে, যে কোন ব্যক্তির মনে আমাদের দেশের একশ্রেণির আমলাদের সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণার অবশ্যই জন্ম নেবে। একবার শুনেছিলাম কোন এক আমলা জাতীয় ভদ্রলোক অর্থাৎ একজন কর্তাব্যক্তি নাকি কোন এক গ্রাম্য লোকের খাসি গাড়িতে করে তুলে নিয়ে গিয়েছিলেন। এসব সংবাদ যদি সত্য হয়, তাহলে আমাদেরকে অবশ্যই ভাবতে হবে, আমরা এ কোন শূন্যতার খেলা ঘরে বাস করছি। যে ব্যক্তি রাষ্ট্রের বড় পদে থেকে গরীব খামারীর হাঁস পুলিশের ভয় দেখিয়ে জবাই করে খেয়ে ফেলতে পারে কিংবা যে ব্যক্তি চলার পথে একজন লোকের খাসি তোলে আনতে পারে, তাদের মতো ব্যক্তিদের কোন দায়িত্বশীল পদে থাকার অধিকার আছে কি না, সেই প্রশ্নটা মনে ঘুরেফিরে আসতেই পারে। দেশের মানুষকে কেউ যদি মনে করেন তাদের পুতুল নাচের পুতুল, তাহলে ভুল করবেন। এখন সময়ের যেমন পরিবর্তন হয়েছে তেমনি করে মানুষের চিন্তার জগতেও পরিবর্তন এসেছে। মানুষ এখন কোন কিছুর স্থবিরতা মেনে নিতে চায় না। মানুষ এখন অন্যায়কেও মেনে নিতে চায় না। কর্তাব্যক্তিরা যদি মনে করেন মানুষ আগের মতো স্থবির হয়ে আছে, তাহলে তারা বিরাট ভুল করবেন। যে ভুল একশ্রেণির কর্তাব্যক্তিদের ভবিষ্যত জীবনকে অন্ধকারাচ্ছন্ন করে তুলতে পারে।

আসল কথা হচ্ছে, আমাদের সমাজের রন্ধে রন্ধে একশ্রেণির নষ্ট মানুষ তাদের কালো থাবার পরিধি দিন দিন শুধু বৃদ্ধি করেই যাচ্ছে। নষ্ট মানুষের দল আমাদের পাওয়ার জায়গাটুকু গ্রাস করে নিতে চায় বলেই, আমাদের সমাজ জীবনে নষ্ট মানুষের এতটা দাপট আমরা আজ দেখতে পাচ্ছি। একজন ইউএনও কি বুঝেন না উনার কি করা উচিত কিংবা কি করা উচিত নয়। তিনি ভাল করে বুঝেন এবং জানে যে, বিলের জলে খামারীদের হাঁস চড়ে বেড়ানো হাঁসকে পাহারাদার দিয়ে ধরে এনে জবাই করে অফিসের লোকদের নিয়ে খাওয়া যায় না। হাঁসের খামারীরা যদি আইন অমান্য করে বিলের জলে হাঁসের দল চড়িয়ে থাকে, তাহলে খামারীদের শাস্তি দেওয়া যেত। একথা একজন ইউএনও ভাল করে জানেন যে, তিনি যখন একটা উপজেলার রক্ষক হয়ে আসেন তখন তার দায়ীত্ব হলো, যারা হাঁস মোরগের খামার করে থাকে, তাদেরকে উৎসাহিত করা। কিন্তু আমারা দেখছি একজন ইউএনও সবকিছু জেনেও নিজেকে অপরাধীর সারিতে দাঁড় করিয়ে দিচ্ছেন। এখন আমরা যে সময়টায় বাস করছি, সেই সময়টা হলো একজন শিক্ষিত লোকের নিজের সবকিছু মানুষের মাঝে উদার মনে বিলিয়ে দেওয়ার সময়। মানুষের জন্য কাজ করাটাই আজ সময়ের দাবী। অথচ আমরা দেখতে পাচ্ছি আজ আমাদের মধ্যে একশ্রেণির মানুষ বসবাস করছে, যারা নিজেরাই অনুধাবন করতে পারছেন না, তাদের কুকর্ম মানুষকে কতোটা ক্ষতির সম্মুখিন করছে। তাই বলছিলাম, যারা ক্ষমতা পেয়ে কিংবা ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে এবং ক্ষমতার অপব্যবহার করে মানুষের বেঁচে থাকার শেষ সম্বল কেড়ে নিতে চায়, তাদেরকে আজ চিহ্নিত করতে হবে। তাদেরকে চিহ্নিত করে আইনের কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে সেই সব শিক্ষিত দুর্বৃত্তদের (সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিটি যতবড় আমলা কিংবা কর্তাব্যক্তি হোন না কেন) বুঝিয়ে দিতে হবে যে, রাষ্ট্র সৎ মানুষের। সেখানে কোন দুর্বৃত্ত কিংবা অসৎ প্রকৃতির মানুষের স্থান নেই।

লেখক: আইনজীবি, কবি ও গল্পকার

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

শরদিন্দু ভট্টাচার্য্য টুটুল
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close