• বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ১৭ আশ্বিন ১৪২৭
  • ||

প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে ১৫ আগস্ট

প্রকাশ:  ০৩ আগস্ট ২০২০, ১৪:৫৮
জুলফিকার বকুল

১৫ আগস্ট। বাঙালি জাতির শোকাবহ একটি কালো অধ্যায়। যে অধ্যায়ে রক্ত দিয়ে লেখা আছে করুণ ইতিহাস। সেদিন পুরো বাংলাদেশ স্তব্ধ হয়েছিল দানবের নৃশংস, নির্মম, জঘন্যতম হত্যাকাণ্ডে। একদিকে যেমন ঝরছিল তাজা প্রাণ, অন্যদিকে চরম মর্মবেদনা নিয়ে অশ্রুসিক্ত নয়নে প্রকৃতির বৃষ্টিতে ছিল রক্তের ফোটা। ওরা বঙ্গবন্ধুর দেহের সমাপ্তি ঘটিয়েছিল। কিন্তু কখনও ভাবেনি দেহের মৃত্যু হলেও আত্মার মৃত্যু হয় না। চেতনা থেকে যায় অনন্তকাল ধরে।

বাঙালির ইতিহাসের মহানায়ক ও সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, যিনি উপমহাদেশের একজন প্রভাবশালী রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, বাঙালির অধিকার রক্ষায় ব্রিটিশসহ পশ্চিম পাকিস্তানীদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম পরিষদ গড়ে তুলে নেতৃত্ব প্রদান করেছেন, যার নেতৃত্বে লাখো বাঙালি অকাতরে জীবন দিয়ে স্বাধীনতার প্রদীপ্ত লাল সূর্যকে ছিনিয়ে এনেছে, তাকে কি আসলে বাংলার মাটি ও মানুষের অস্তিত্ব থেকে মুছে দেয়া সম্ভব?

দীর্ঘ ২৪ বছর আন্দোলন - সংগ্রামের ফসল ছিল রেসকোর্স ময়দানের ৭ মার্চের ভাষণ। যেখানে বঙ্গবন্ধুর সুস্পষ্ট মুক্তির ডাকে উজ্জীবিত করেছিল সর্বস্তরের মানুষের বাঙালি চেতনাকে।

এ প্রসঙ্গে বলতে গেলে কবি নির্মলেন্দু গুণ -এর কয়টি চরণ উল্লেখ করতে হয়,

" শত বছরের শত সংগ্রাম শেষে,

রবীন্দ্রনাথের মত দৃপ্ত পায়ে হেঁটে

অতঃপর কবি এসে জনতার মঞ্চে দাঁড়ালেন।

তখন পলকে দারুণ ঝলকে তরীতে উঠিল জল,

হৃদয়ে লাগিল দোলা,জন সমুদ্রে জাগিল জোয়ার

সকল দুয়ার খোলা। কে রোধে তাঁহার বজ্রকণ্ঠ বাণী?

অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী একটি কবিতায় লিখেছেন, " তোমার উদাত্ত কণ্ঠে বলেছো আমাদের মহা অর্জনের জন্য দরকার মহাত্যাগ।"

যে মহাত্যাগের বিনিময়ে আজকের এই বাংলাদেশ। এখনো প্রতিটি আগস্ট সেই ভয়াল স্মৃতিকে মনে করিয়ে দেয়। যে স্মৃতিতে জড়িয়ে আছে সেই বজ্রকণ্ঠী কবির উদ্দীপ্ত ভাষণ, সোনার বাংলা বিনির্মানের স্বপ্ন। এ চরম সত্য ইতিহাস অবিরাম প্রবাহিত হবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে। যে গতিধারা অনন্তকাল মহান আদর্শিক দৃশ্যপট এঁকে যাবে প্রজন্মের স্মৃতির ক্যানভাসে। গড়ে উঠবে দেশপ্রেম। আত্মত্যাগে উদ্বুদ্ধ হয়ে মহাত্যাগে নিজেকে অর্পণ করবে দেশের তরে। আমি বঙ্গবন্ধুকে দেখিনি। কিন্তু কিশোর-তরুণদের সাথে কাজ করতে গিয়ে দেখেছি মুজিব আদর্শের চেতনা কিভাবে মুহূর্তেই কিশোর-তরুনদের মুজিব করে তোলে। ১৫ আগস্টের সেই দিনটি তারা হৃদয়াবেগে ধারণ করে অবিকল যখন দর্শকের সামনে তুলে ধরে তখন দেখেছি। না, এটা কোন অভিনয় নয়। এটা বাস্তব। স্বাশ্বত জীবনের ইতিহাস। লক্ষ লক্ষ মুজিবের জন্ম হয়েছে। মুজিব মরে নাই। লক্ষ লক্ষ কিশোর-তরুণদের তেজদীপ্ত রক্ত কণিকায় মিশে আছে মুজিব। এটাই অমরত্ব, এটাই মহাঅর্জন, এটাই বাঙালির বাংলা। আজ ইতিহাস প্রজন্মের অন্তরাত্মাকে আলোকিত করে চলতে শিখিয়েছে। এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। শত্রুরা ভেবেছিল একটি মুজিব ধ্বংস হলেই ভ্রান্ত ধারণা দিয়ে দেশটাকে নিজের করে নেয়া যাবে। কিন্তু প্রকৃতি তার আপন গতিতে চলে, তাই 'বিগব্যাংঙ' এর মত মহাবিস্ফোরণের মাধ্যমে যেমন মহাজাগতিক এই মহাবিশ্বের সৃষ্টি হয়েছিল তেমনি একটি মুজিব থেকে প্রকৃতি কোটি কোটি মুজিবের জন্ম দিয়েছে। মুজিব চেতনা লালন করে তরুণ প্রজন্ম হয়ে উঠছে প্রজ্ঞাময়, অসীম সাহসী, অসাধারণ নেতৃত্বের গুণাবলী সম্পন্ন এবং দূরদর্শী।

কিউবার প্রয়াত প্রেসিডেন্ট ফিদেল কাস্ত্রো বলেছেন, 'আমি হিমালয় দেখিনি কিন্তু শেখ মুজিবকে দেখেছি।ব্যক্তিত্ব এবং সাহসিকতায় তিনিই হিমালয়।'

তিনি আরও বলেছেন, 'বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুতে বিশ্বের শোষিত মানুষ হারালো তাদের একজন মহান নেতাকে,আমি হারালাম একজন অকৃতিম বিশাল হৃদয়ের বন্ধুকে।' এমন মহান ব্যক্তিদের উক্তি তরুণ প্রজন্মকে আরও গতিশীল করে। দেশপ্রেমে মুজিব অনুসরণে অনুপ্রাণিত করে।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় তরুণ প্রজন্মকে জাগ্রত হয়ে অন্তরে লালন করতে হবে যে বঙ্গবন্ধু ছিলেন আপোষহীন এবং আত্মত্যাগে উদ্বুদ্ধ একজন মানুষ। মানুষকে একতাবদ্ধ করার অসাধারণ গুণাবলী তাঁর মধ্যে ছিল।একজন আরধ্য পুরুষ হিসেবে বঙ্গবন্ধু হয়ে থাকবেন তরুন প্রজন্মের মনোজগতের চিন্তাশীল ভাবনায়। স্বপ্নচারী এই তরুণরাই বাংলাদেশ সৃষ্টি করেছে (মুক্তিযুদ্ধ কালীন সময়ে মুক্তিযোদ্ধারা বয়সে বেশিরভাগ তরুণ ছিল)। তাদের অদম্য প্রাণশক্তির বলেই মুক্তিযুদ্ধে আমরা বিজয় অর্জন করেছি। বঙ্গবন্ধু বর্তমান তরুন প্রজন্মের কাছে একজন অবিস্মরণীয় রাষ্ট্রনায়ক।

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তরুণ সমাজসহ দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের অবিরাম চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এ উন্নয়নে তরুন সমাজ তাদের মেধা ও মুজিব আদর্শিক দেশপ্রেম নিয়ে সরকারকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে এমনটিই প্রত্যাশা।

জুলফিকার বকুল শিক্ষক, ঢাকা ইন্জিনিয়ারিং ইউনিভার্সিটি স্কুল, ডুয়েট ক্যাম্পাস, গাজীপুর।


পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএম

জুলফিকার বকুল,১৫ আগস্ট
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close