• মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২০, ১৪ মাঘ ১৪২৬
  • ||

ষড়যন্ত্র নয়, দুর্নীতিবিরোধী যুদ্ধে শেখ হাসিনার পাশে দেশ

প্রকাশ:  ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:৫৩
পীর হাবিবুর রহমান

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ ও মাদকের বিরুদ্ধে সাফল্য অর্জনের পর এবার নির্বাচনী অঙ্গীকার অনুযায়ী দুর্নীতির বিরুদ্ধে যে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন, সেখানেও তার পাশে দাঁড়িয়েছে দেশ। সুমহান মুক্তিযুদ্ধের অসাম্প্রদায়িক চেতনার সঙ্গে দেশের উন্নয়নে তার নেতৃত্বে উন্নয়নের মহাকর্মযজ্ঞের যে বিপ্লবের সূচনা ঘটেছে সেটিই তার রাজনৈতিক শক্তির তুরুপের তাসে পরিণত হয়েছে। টানা ১১ বছরের শাসনামলে দেশের অর্থনীতিতে বিপ্লব ঘটিয়ে মহাশক্তিধর ভারতকে পর্যন্ত পেছনে ফেলে প্রবৃদ্ধি প্রায় ৮ শতাংশে নিয়ে গিয়ে দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশকে বিস্ময়কর উচ্চতায় তুলেছেন। যেখানে ’৭১-এর পরাজিত পাকিস্তানের নাগরিক সমাজও বলছে, বাংলাদেশকেই রোল মডেল করে অগ্রসর হতে। সেখানে পশ্চিমাদের কাছেও মুজিবকন্যার এই উন্নয়ন ব্যাপকহারে প্রশংসিত হচ্ছে।

আমাদের সুমহান মুক্তিযুদ্ধে সবচেয়ে পরম বন্ধু বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশ ভারতের সঙ্গে বন্ধুত্বের বিশ্বাস ও উষ্ণতা সম্পর্ক রেখে সীমান্ত সমস্যাসহ অনেক সমস্যার সমাধান ঘটিয়ে পূর্ব থেকে পশ্চিমের দেশগুলোর সঙ্গে উন্নয়নের বন্ধুত্ব জোরদার করেছেন। ইতিমধ্যে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ প্রায় চলে গেছে। যোগাযোগব্যবস্থার ব্যাপক উন্নয়ন দৃশ্যমান হয়েছে। বিশ্বব্যাংকের সহায়তা ছাড়াই নিজের অর্থায়নে পদ্মা সেতুসহ নানা মেগা উন্নয়ন প্রকল্প দ্রুত শেষ হতে চলেছে। একসময় আমরা খাবারের জন্য আর্তনাদ করেছি। দুর্ভিক্ষ ও মঙ্গার সঙ্গে লড়াই করেছি। আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে ভেজালের বিরুদ্ধে যুদ্ধে নেমেছি। অভিযান নিয়মিত চলছে বলেই খাবারে ভেজালের ভয়াবহতা উঠে আসছে। মহামান্য রাষ্ট্রপতি পর্যন্ত খাদ্যের ভেজাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের পদ-পদবির লোভ দৌড়ঝাঁপ-দুর্নীতির বিরুদ্ধে নিরন্তর কথা বলছেন। গোটা দেশকে সামগ্রিক উন্নয়নের চিত্রপটে নিয়ে যাওয়ার পথে এই প্রথম রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই কোনো অপরাধের সঙ্গে দলের কেউ জড়িত থাকলেও ব্যবস্থা নিচ্ছেন। অপরাধী অপরাধীই। কে কোন দলের সেটি দেখার বিষয় নয়- এ কথা অক্ষরে অক্ষরে কার্যকর করছেন। দলের বিতর্কিতদের বিদায় দিয়ে অঙ্গ সহযোগী সংগঠনে নেতৃত্বের পরিবর্তন আনছেন। অনেককে নানা অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে আইনের আওতায় এনেছেন। ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা বুয়েটের আবরার হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছেন। বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়েছেন। বিচার প্রক্রিয়া দ্রুত অগ্রসর হচ্ছে। নুসরাত হত্যার ঘটনায় মামলার দ্রুত বিচার শেষ করে অপরাধীদের বিরুদ্ধে আদালত ফাঁসির রায় দিয়েছেন। সব মহলে প্রশংসিত হয়েছে।

বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা হঠাৎ করে রাজনীতি বা ক্ষমতায় আসেননি। ’৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে পরিবার-পরিজনসহ নৃশংস হত্যাকান্ডে র মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের অর্জিত সব আদর্শ ও ইতিহাস সংবিধান থেকে সব পর্যায়ের মুছে ফেলে, সামরিক শাসনের বুটের তলায় বাংলাদেশকে অন্ধকার যুগে নিয়ে গিয়ে ন্যায়বিচারের পথ রুদ্ধ করে মানুষের সব অধিকার হরণ করা হয়েছিল। সেই দুঃসময়ের অন্ধকারে আগস্ট হত্যাকান্ডে বিদেশ থাকায় বেঁচে যাওয়া মুজিবকন্যা শেখ হাসিনা দিল্লির নির্বাসিত জীবনের অবসান ঘটিয়ে আলোর বাতি জ্বালিয়েছিলেন গণতন্ত্রের সংগ্রামের নেত্রী হয়ে। তার ৩৯ বছরের রাজনৈতিক জীবন আন্দোলন-সংগ্রাম উত্থান-পতন কারাদহন, বুলেটের আঘাত কখনো বা গ্রেনেডের ভয়াবহ আক্রমণ থেকে অলৌকিকভাবে বেঁচে এসে বারবার ঘুরে দাঁড়িয়েছেন। রুখে দাঁড়িয়েছেন। উপমহাদেশে ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন গণমুখী রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের কা ারিই নন, মুক্তিযুদ্ধের আদর্শের উত্তরাধিকারিত্ব বহন করা অসাম্প্রদায়িক শক্তির ঐক্যের প্রতীক হিসেবে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নিজের দৃঢ় নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠিত করেছেন। বারবার তার জীবনের ওপর যেমন আঘাত এসেছে তেমনি নানা সময় তার বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্রের জাল বিস্তার হয়েছে। ষড়যন্ত্র কখনো শেষ হয়ে যায়নি। সাম্প্রতিককালে নানা ঘটনাপ্রবাহে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রে নানা আলামতে সরকারকে অশান্ত-অস্থির করে তোলার জন্য নানামুখী গুজব ও ঘটনা দৃশ্যপটে এসেছে। আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা স্লোগান তুলেছিলেন, ‘যতক্ষণ শেখ হাসিনার হাতে দেশ, ততক্ষণ পথ হারাবে না বাংলাদেশ’। আজ দেশের সব মহল নানা ত্রুটিবিচ্যুতি থাকলেও সেটিই বিশ্বাস করেন। শেখ হাসিনা একদিন ক্ষমতায় না থাকলে দেশে যে রক্তপাত ও সহিংসতা নৈরাজ্য এবং সাম্প্রদায়িক শক্তির মহাউত্থান ঘটবে সেই আশঙ্কা সবাই লালন করেন। তাই সবাই মনে করেন, শেখ হাসিনার হাত ধরেই উন্নয়নের মহাসড়কের পথে সুশাসন নিশ্চিত এবং দুর্নীতির বিরুদ্ধে চলমান যুদ্ধে পাশে থাকাই উত্তম। শেখ হাসিনা যে দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু করেছেন, এই মহা দুর্নীতির বিস্তীর্ণ শেকড় ও বটবৃক্ষ দানবের রূপ একদিনে নেয়নি। বছরের পর বছর, যুগের পর যুগ আজকের এই অবস্থা নিয়েছে। যেখানে শুধু রাজনৈতিক বাণিজ্যিকীকরণের পথে রাজদুর্নীতির অভিশপ্ত গ্রহণে সব শ্রেণি-পেশার মানুষই জড়িয়ে গেছে। বৈধ পথ পরিহার করে রাতারাতি অবৈধ পথে দুর্নীতিতে ডুবে অঢেল টাকা ও সম্পদ গড়ার এক অসভ্য অশ্লীল প্রতিযোগিতায় এমনভাবে গা ভাসিয়েছে যে, এ দেশের রাজনীতি, শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতির সূতিকাগার, মূল্যবোধ ও আদর্শের ওপর দাঁড়ানো মধ্যবিত্ত শ্রেণির একাংশ পর্যন্ত এই পাপের সাগরে ভেসে গেছে। এই দুর্নীতির লড়াইয়ে শেখ হাসিনার পাশে সময় ও ধৈর্য নিয়ে দাঁড়াতে হবে। সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণ দুর্নীতি করে না। এই দুর্নীতির সিন্ডিকেটের সঙ্গে সব পেশার দৃশ্যমান একটি শক্তি জড়িয়ে গেছে। এদের কবল থেকে মুজিবকন্যার নেতৃত্বে দুর্নীতির বিরুদ্ধে জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদবিরোধী যুদ্ধের মতো জয়ী হলে উন্নয়নের তীব্র এই যাত্রাপথে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের উন্নত আধুনিক বাংলাদেশ রাষ্ট্র নির্মাণের তীরে ভিড়তে সময় বেশি লাগবে না।

শক্তিশালী সরকারের পাশাপাশি শক্তিশালী বিরোধী দলের প্রয়োজন অপরিহার্য। কিন্তু সেই বিরোধী দলকেও মুক্তিযুদ্ধের প্রশ্নে সব বিতর্ক ও কলঙ্ক থেকে মুক্ত হয়ে গণতন্ত্রের রীতিনীতি অনুসরণ করেই ব্যালটের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসতে হয়। নির্বাচন গ্রহণযোগ্য মনে না হলে তার জন্য গণতান্ত্রিক আন্দোলনের ইতিহাসের নজির রয়েছে। কিন্তু আগুন সন্ত্রাস ও সহিংসতা ২০১৪ সাল থেকে দেশের প্রধান বিরোধী দল বিএনপিকে রাজনীতিতে কোথায় দাঁড় করিয়েছে, সেটিও তাদের মূল্যায়ন করেই সিদ্ধান্ত গ্রহণ অনিবার্য হয়ে উঠেছে। কোনো সরকারই বিরোধী দলের আন্দোলনকে নিজের পতন ডেকে আনার মতো পরিস্থিতি দিতে যেতে চায় না। এ দেশের অতীতের ইতিহাসও তাই। বিশ্ব রাজনীতিতেও একই অবস্থা। আওয়ামী লীগ ’৭৫-উত্তর মার্শাল ল’ জমানার কঠিন দুঃশাসনের মধ্যে মিডিয়া ক্যু ও ভোট ডাকাতি বা গণরায় ছিনতাইয়ের কিংবা প্রহসনের নির্বাচনকে যেমন চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিতে ভুল করেনি, তেমন আন্দোলনের সিদ্ধান্ত গ্রহণে তাড়াহুড়োর পথ নেয়নি। সংগঠন শক্তিশালী করা থেকে জনমত পক্ষে টানার মাধ্যমে সময়ের অপেক্ষা করে আন্দোলনকে যৌক্তিক পরিণতির দিকে নিয়ে গেছে। আজকের বিএনপিকেও তাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে যদি মনে করেন, রাজনৈতিক কারণে আটক রাখা হয়েছে, তাহলে রাজপথের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের পথকেই নিতে হবে। কিন্তু তাই বলে গতকাল সর্বোচ্চ আদালতের এজলাসে দলীয় আইনজীবীরা যে ঘটনা ঘটিয়েছেন, তা এ দেশের ইতিহাসে নজিরবিহীন কলঙ্কময়। সর্বোচ্চ আদালতের এজলাসই নয়, নিম্ন আদালতও কারও গুন্ডামির জায়গা নয়। এতে আইনের খড়গে যেমন পড়তে হবে, তেমনি জনবিচ্ছিন্নও হতে হবে। অতীতে অনেক দল হঠকারী পথে শেষ হয়েছে। গণতন্ত্রের পথেই বিজয়ী হয়েছে। বিএনপি কোন পথ নেবে-সেটি নির্বাসিত কোনো নেতার সিদ্ধান্তের ওপর ভর না করে নিজেরা আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে রণকৌশল নির্ধারণের পথ নিতে পারেন।সূত্র:বাংলাদেশ প্রতিদিন।

লেখক: নির্বাহী সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন।

প্রধানমন্ত্রী,শেখ হাসিনা,নির্বাহী সম্পাদক,পীর হাবিবুর রহমান,বাংলাদেশ প্রতিদিন
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত