Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৬
  • ||

শাহরিয়ারের সাহসিকতাপূর্ণ অভিযানে বদলিতে, আঁতকে উঠি

প্রকাশ:  ০৪ জুন ২০১৯, ১১:৩৪
বাউল রিপন
প্রিন্ট icon

দেশের বাইরে আমি।

খবরটা পড়ে আৎকে উঠলাম। দেশের প্রতিথযশা সাংবাদিক, আমার সাংবাদিকতার অনুপ্রেরণা, দেশের সর্বাধিক পাঠকপ্রিয় দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিনের নির্বাহী সম্পাদক Peer Habibur Rahman ফেসবুকে দেয়া একটি স্টেটাস থেকে জানলাম যে, আড়ংয়ে অভিযান চালিয়ে অনিয়মের পেয়ে জরিমানা করার কারণে একজন সরকারি কর্মকর্তাকে তাৎক্ষনিক বদলী করা হয়েছে। স্টেটাসে দেয়া ছবিটি দেখে আরও চমকে উঠলাম। একি! এ যে আমার বন্ধু মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার। তার মত এত ভাল একজন মানুষ কিভাবে এতটা শাস্তি পেতে পারে এটা ভেবেই আশ্চর্য হচ্ছি।লজ্জায় মাথা অবনত হয়ে যাচ্ছে।

সেসময় ময়মনসিংহের ঐতিহ্যবাহী সংগঠন সূর্যোদয় এর সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হই আমি।যার প্রধান উপদেষ্ঠা ছিলেন দেশবরেন্য বুদ্ধিজীবী যতীন সরকার। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন কবি শতাব্দী কাদের। নবাব এন্ড কোং এর স্বত্তাধিকারী আসলাম ভাই সহ ময়মনসিংহের অধিকাংশ সংস্কৃতজন আমার পরম প্রিয়ভাজন ছিলেন। তখন থেকেই বন্ধু শাহরিয়ার এর সাথে গভীর বন্ধুত্বের বন্ধন গড়ে উঠেছিল। খুব কাছে থেকে দেখা মানুষটি এক অসাধারন ভাল মানুষের পর্যায়ে পরে।সংস্কৃতিমনা,উদার,শিশুবান্ধব মানুষ মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার। চাকরী জীবনেও যেখানে যেখানে তার পোষ্টিং ছিল সবজায়গাতেই তিনি তার রুচির পরিচয় দিয়েছেন। সুনামগঞ্জ এবং মানিকগঞ্জে চাকরিরত অবস্থায় তিনি রুটিনওয়ার্কের পাশাপাশি উল্লেখযোগ্য সামাজিক সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড করেছেন। তিনি ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তরের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-পরিচালক পদে কর্মরত ছিলেন।ইতিমধ্যেই তিনি ভোক্তা অধিকার সংরক্ষনের স্বার্থে বেশ কিছু অভিযান এবং গঠনমুলক কর্মকান্ড পরিচালনা করেছেন যা মানুষের কাছে প্রশংসনীয় হয়েছে।

আড়ং এর ক্রেতা ঠকানোর অভিযোগ নিয়ে তিনি সাহসী অভিযান চালান এবং জরিমানা করেন। অথচ এই ঘটনার অব্যবহিত পর পরই তাকে বদলী করে খুলনা জোনের সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরে সংযুক্ত করা হয়েছে। সোমবার রাতে জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে এই তথ্য জানানো হয়।

একজন সরকারি কর্মকর্তা সততা ও জনগনের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকেই আড়ংয়ে অভিযান চালিয়ে অনিয়মের কারনে জরিমানা করেছিলেন। ২৪ঘন্টার জন্য বন্ধ রেখেছিলেন।ভেজাল বিরোধী অভিযানে সফল হয়েছিলেন।তাকে পুরস্কৃত না করে কেন বদলি করা হল এ নিয়ে জনমনে প্রশ্ন উঠেছে! এটা কি মেনে নেয়া যায়? দেশে যদি সংবিধান ও আইন, প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীর সততা ক্ষমতা ও বিত্তের কাছে পরাজিত হয় তাহলে আইনের পরাজয় প্রতীয়মান হয় না কি?

সাহস ও সততার পরাজয় জাতি কিভাবে মেনে নেবে?। এটা জাতির পরাজয়, লজ্জা ও গ্লানি আর বেদনার!

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা সবদিকে বিবেচনা করে এই বিষয়ে হস্তক্ষেপ করবেন বলে আমরা আশা করি। কারণ তিনিই আমাদের প্রধান আশ্রয়স্থল, আমাদের আশা ভরসার কেন্দ্রবিন্দু, আমাদের বাতিঘর।

লেখক: সাংবাদিক

বাউল রিপন
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত