Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৪ ভাদ্র ১৪২৬
  • ||

জয়শংকর পররাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়া বাংলা‌দে‌শের জন্য সুখবর

প্রকাশ:  ০১ জুন ২০১৯, ১৪:৩২
মাসুদ ক‌রিম
প্রিন্ট icon
সুব্রাম‌নিয়াম জয়শংকর‌। ফাইল ছবি

কং‌গ্রেস জোট সরকা‌রের আম‌লের শেষ দি‌কে ভার‌তের ওই সম‌য়ের পররাষ্ট্র স‌চিব সুজাতা সিং বাংলা‌দে‌শের রাজনী‌তি‌তে সব‌চে‌য়ে বে‌শি আলোচিত হ‌য়ে‌ছি‌লেন।

২০১৪ সা‌লের ৫ জানুয়া‌রির ভো‌টের আগে তি‌নি বাংলা‌দেশ সফর ক‌রেন। রাজনী‌তি‌বিদ‌দের স‌ঙ্গে বৈঠক ক‌রেন। ওই সফরকা‌লে আওয়ামী লী‌গের প‌ক্ষে ভার‌তের অবস্থান স্পষ্ট হ‌য়ে‌ছিল। য‌দিও বিএন‌পি ভোট বর্জন ক‌রে।

ভো‌টে হতাশা ব্যক্ত ক‌রে যুক্তরাষ্ট্র, ইউরো‌প। ভারত ওই ভোট‌কে সাংবিধা‌নিকভা‌বে বৈধ ব‌লে সমর্থন দেয়। তার প‌রের বছর ভার‌তে ক্ষমতা বদল হয়।

ম্যা‌জিক দে‌খি‌য়ে বিশাল সংখ্যাগ‌রিষ্ঠতা নি‌য়ে ক্ষমতায় ব‌সেন ন‌রেন্দ্র মো‌দি। তি‌নি ভার‌তে উন্নয়‌নের বিশাল গ‌তির সঞ্চার কর‌বেন ব‌লে শ্লোগান দি‌য়ে‌ছি‌লেন।

স্বাভা‌বিকভা‌বে প্রশাসন‌কে সাজাতে চান সেইভা‌বে। মো‌দি প্রথ‌মে যে কাজ‌টি ক‌রেন তা হল, সুজাতা সিংকে পররাষ্ট্র স‌চি‌বের পদ থে‌কে স‌রি‌য়ে দেন। সুজাতা ভার‌তে তখন প্রভাবশালী একজন পেশাদার কূটনী‌তিক।

২০১৩ সা‌লে পররাষ্ট্র স‌চিব হ‌য়ে‌ছি‌লেন। ২০১৫ সা‌লে হঠাৎ করে তা‌কে স‌রি‌য়ে দেয়ায় ভার‌তে বিতর্ক শুরু হয়।

মো‌দি তখন সুব্রাম‌নিয়াম জয়শংকর‌কে পররাষ্ট্র স‌চিব নি‌য়োগ দি‌লেন। কূট‌নৈ‌তিক রি‌পোর্টার হিসা‌বে ওই সম‌য়ে প্রথম জয়শংক‌রের নাম শুন‌তে পাই। তার ব্যাপা‌রে আমার খুবই কৌতুহল সৃ‌ষ্টি হয়। জান‌তে পা‌রি, তি‌নি যুক্তরাষ্ট্র ও চী‌নে ভার‌তের রাষ্ট্রদূত ছি‌লেন। তি‌নি একজন বিচক্ষণ কূটনী‌তিক। তার বাবা কে সুব্রাম‌নিয়াম ভার‌তে একজন সে‌লি‌ব্রে‌টি বি‌শ্লেষক।

ভারত যুক্তরাষ্ট্র পরমাণু চু‌ক্তির ভি‌ত্তি রচনার ক‌মি‌টি‌তে কে সুব্রাম‌নিয়াম খুবই গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ছি‌লেন। জয়শংকর সিঙ্গাপু‌রে ও চেক রিপাব‌লি‌কেও ভার‌তের রাষ্ট্রদূত ছি‌লেন। ভার‌তের ফ‌রেন সা‌র্ভি‌সের ১৯৭৭ ব্যা‌চের ওই কর্মকর্তা মো‌দির নজ‌রে আ‌সেন যুক্তরা‌ষ্ট্রে ভার‌তের রাষ্ট্রদূত থাকার সময়।

গুজরা‌টে মুস‌লিম নিধ‌নের ঘটনার পর ওই রা‌জ্যের মুখ্যমন্ত্রী থাকা‌কা‌লে মো‌দি‌কে ভিসা দি‌তে অস্বীকার ক‌রে‌ছিল যুক্তরাষ্ট্র। তার ওপর থে‌কে মা‌র্কিন নি‌ষেধাজ্ঞা প্রত্যাহা‌রে সব‌চে‌য়ে বে‌শি কাজ ক‌রে‌ছেন জয়শংকর। এভা‌বে তি‌নি মো‌দির এক আস্থাভাজ‌নে প‌রিণত হন।

ভার‌তের পররাষ্ট্র স‌চিব হিসা‌বে শুধু নয়, মো‌দির পু‌রো আম‌লে তার অঘো‌ষিত পররাষ্ট্র উপ‌দেষ্টা ছি‌লেন জয়শংকর। তি‌নি ২০১৫ থে‌কে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ভার‌তে পররাষ্ট্র স‌চিব ছি‌লেন।

মো‌দির পররাষ্ট্রনী‌তি সুষমা স্বরাজ নির্ধারণ ক‌রেন‌নি। বি‌জে‌পির রাজনী‌তি‌তে মো‌দি ও সুষমা বিপরীত অবস্থা‌নে। তাই সুষমা‌কে সাম‌নে রে‌খে‌ছেন ঠিক; কিন্তু পররাষ্ট্রনী‌তির নির্ধারক ছি‌লেন মো‌দি নি‌জেই। পেছ‌নে পর্দার আড়া‌লে মো‌দি‌কে পরামর্শ দি‌য়ে‌ছেন জয়শংকর।

এবার লোকসভা কিংবা রাজ্যসভার সদস্য না হ‌ওয়া স‌ত্ত্বেও তা‌কে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক‌রে মো‌দি চমক দে‌খি‌য়ে‌ছেন। টেক‌নোক্র্যাট মন্ত্রী হওয়ায় আরেকবার প্রমাণ হল, জয়শংকর তার খুবই বিশ্বস্ত।

জয়শংকর পররাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়া বাংলা‌দে‌শের জন্য সুখবর। পররাষ্ট্র স‌চিব নিযুক্ত হওয়ার পর তি‌নি প্রথম বি‌দেশ সফ‌রে বাংলা‌দে‌শে এসে্‌ছি‌লেন। আমি তার ওই সফর কভার ক‌রে‌ছিলাম।

ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণাল‌য়ের ক‌রি‌ডো‌রে শ্রশ্রুম‌ণ্ডিত সুদর্শন জয়শংকর মৃদু হা‌সি আর মি‌ষ্টি ভাষায় আমা‌দের এ বার্তাই দি‌য়ে‌ছি‌লেন যে, সন্ত্রাস দমনসহ সব কা‌জে ভারত ও বাংলা‌দেশ এক সা‌থে থাক‌বে। ওই দৃশ্য আমার চো‌খের কো‌নে ভাস‌ছে। পরব‌র্তী‌তে মো‌দি বাংলা‌দেশ সফরকা‌লে একই কথা হি‌ন্দি‌তে ব‌লেন, ‘সবকা সাথ, সবকা বিকাশ’।

জয়শংকর ক‌য়েক দফায় বাংলা‌দেশ সফর ক‌রে‌ছেন। তার সম‌য়ে মো‌দি বাংলা‌দেশ সফর ক‌রে‌ছেন, শেখ হা‌সিনা ভারত সফর ক‌রে‌ছেন। স্থলসীমান্ত চু‌ক্তি কার্যকর হওয়ার মাধ‌যারমে ছিটমহল বি‌নিময় হ‌য়ে‌ছে।

মো‌দির আম‌লে বাংলা‌দেশ ভারত সম্পর্ক যতটা এগি‌‌য়ে‌ছে তার পু‌রোটা জয়শংক‌রের মাধ্যমে হ‌য়ে‌ছে। আ‌মি মো‌দির বাংলা‌দেশ সফর এবং শেখ হা‌সিনার ভারত সফর দি‌ল্লি গি‌য়ে কভার ক‌রে‌ছি।

আ‌মি খুব নি‌বিড়ভা‌বে লক্ষ্য ক‌রে‌ছি যে, জয়শংকর বাংলা‌দেশ ভারত সম্পর্ক‌কে সাম‌নেই নি‌য়ে‌ছেন। ভার‌তের বর্তমান পরাষ্ট্র স‌চিব বিজয় গোখ‌লে সে ধারা ধরে রে‌খে‌ছেন। তিনি চীন বি‌শেষজ্ঞ হিসা‌বে পার‌চিত।

জয়শংক‌রের দুই দি‌কের সু‌বিধা- এক পেশাদার কূটনী‌তিক হওয়ায় বৈ‌দে‌শিক সম্পর্ক ভাল বুঝেন, দুই মো‌দির বিশ্বস্ত হওয়ায় সরকা‌রের নী‌তির ওপর তার একটা প্রভাব ও সামঞ্জস্য থাক‌বে।

তাই আশা করা যায়, তিস্তার ব্যাপা‌রে জয়শংক‌রের কিছু করার থাক‌তে পা‌রে। মো‌দি নি‌জে ব‌লে‌ছেন, তি‌নি ও শেখ হা‌সিনার আম‌লে তিস্তা সমস্যার সমাধান হ‌তে পার‌বে। ভার‌তে কো‌র্টের নি‌র্দে‌শে নাগ‌রিক নিবন্ধন নি‌য়ে দ্বিপক্ষীয় সম্প‌র্কের পা‌নি ঘোলা কর‌বেন না ব‌লে আশা করা যায়। তার দক্ষতার বাংলা‌দেশ ভারত সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় যা‌বে ব‌লে আশা কার। কারন মো‌দির আম‌লে এ সম্প‌র্কের রূপকার তি‌নি।

জয়শংকর তার দে‌শের স‌ঙ্গে পা‌কিস্তা‌নের সম্পর্ক, চী‌নের স‌ঙ্গে সম্পর্ক, যুক্তরা‌ষ্ট্রের স‌ঙ্গে সম্পর্ক কোন দি‌কে যায় সে দি‌কেও সবার দৃ‌ষ্টি থাক‌বে। আ‌মি জয়শংক‌রের সাফল্য কামনা ক‌রি। সূত্র: যুগান্তর

লেখক: মাসুদ করিম, চিফ রিপোর্টার, দৈনিক যুগান্তর


পিপিবিডি/এসএম

ভারত
apps
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত