• শনিবার, ২০ আগস্ট ২০২২, ৫ ভাদ্র ১৪২৯
  • ||

লোডশেডিংয়ে আইপিএস-সোলারের রমরমা ব্যবসা

প্রকাশ:  ০৫ জুলাই ২০২২, ২৩:২২
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর গুলিস্তানের সুন্দরবন স্কয়ার মার্কেটের ওয়ার্ল্ড পাওয়ার দোকানে গিয়ে দেখা মিলল সবুজ সরকারের।

দোকানটিতে আইপিএস কিনতে এসেছেন তিনি। বলেন, ‘কিছুদিন হলো আমার বাচ্চা হয়েছে। ইদানীং প্রচুর লোডশেডিং হচ্ছে। গরমে বাচ্চার কষ্ট হয়ে যাচ্ছে। বাচ্চার কথা চিন্তা করে আইপিএস কিনতে এসেছি।’

হঠাৎ ফিরেছে বিদ্যুতের যাওয়া-আসার দিন। আর এতে করে সবুজের মতো মানুষ, যাদের আর্থিক সক্ষমতা আছে, তারা ঘরে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সুবিধার জন্য ভিড় করছেন আইপিএসের দোকানে।

গত এক যুগে দেশে দৃশ্যমান যে পরিবর্তন এসেছে, নিঃসন্দেহে তার ওপরের সারিতে ছিল বিদ্যুৎ খাত। এই খাতের দুঃসহ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ হয়েছে আগেই। কিন্তু আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেল, তরল গ্যাস বা এলএনজির অস্বাভাবিক উচ্চমূল্য এবং আরেক কাঁচামাল কয়লা সরবরাহেও দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা।

এই পরিস্থিতিতে স্পট মার্কেট থেকে এলএনজি না কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ফলে বিদ্যুৎ উৎপাদনে পড়েছে প্রভাব। গত কয়েক বছর ধরে যে লোডশেডিং শব্দটি বিদ্যুৎ বিভাগ ব্যবহার করত না, তারাই এখন লোডশেডিংয়ের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছে।

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপুও ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে সমস্যার কথা বলেছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও জনগণকে কারণ জানিয়ে সাশ্রয়ী হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

কিন্তু সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ সুবিধা যারা এতদিন পেয়ে আসছে, তারা এই গরমে বিদ্যুতের যাওয়া আসায় অতিষ্ঠ। লোডশেডিংয়ের সময়টায় অন্তত যেন বৈদ্যুতিক পাখা চালু রাখা যায়, সেটি নিশ্চিত করতে ঘরে আইপিএস স্থাপনের চেষ্টা চলছে।

আইপিএসের পাশাপাশি সোলার সিস্টেম এবং এসি/ডিসি লাইটের বিক্রিও বেড়েছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

গুলিস্তানের সুন্দরবন স্কয়ার মার্কেটের ওয়ার্ল্ড পাওয়ার দোকানের বিক্রেতা আব্দুল মান্নান বলেন, ‘বিদ্যুৎ ঠিকমতো থাকে না। এই কারণে মানুষ এখন আইপিএস কিনছে। অবশ্য মানুষ এখন আইপিএস থেকে সোলার প্যানেলের দিকে বেশি ঝুঁকছে। একসময় ঘরে ঘরে সোলার প্যানেল হয়ে যাবে। সোলার প্যানেলের বিক্রিও বেড়েছে।’

চাহিদার পাশাপাশি বেড়েছে দামও। কারণ হিসেবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন ডলারের দাম বৃদ্ধি।

আব্দুল মান্নান বলেন, ‘আমাদের প্রত্যেকটা মাল ইন্ডিয়া ও চায়না থেকে আসে। ৫০০ ওয়াট থেকে শুরু করে ৩ হাজার ওয়াট পর্যন্ত আমরা বিক্রি করি। সকল প্রকারের আইপিএসের দাম বেড়েছে।’

বাংলা পাওয়ার ইলেকট্রনিকস নামে আরেকটি দোকানের বিক্রেতা জাকির হোসেন বলেন, ‘বর্ষার সময় প্রতি বছর কারেন্টের ঝামেলা করে, তখন আইপিএসের বিক্রি বাড়ে। আর এবার কারেন্ট তো খুব ঝামেলা শুরু করেছে। তবে সিলেট ও উত্তরবঙ্গে বিক্রি বেশি। দক্ষিণবঙ্গে বিক্রি কম। ঢাকায়ও বিক্রি ভালো।

তানভির ইলেকট্রিকের কর্মচারী মো. বিজয় বলেন, ‘সারা দেশেই আমাদের এখান থেকে মাল যায়। এখন এক ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে লোডশেডিং হয়, তাই এসি/ডিসি বাল্বের চাহিদা বেড়েছে। গত এক মাস ধরে বিক্রি বেড়েছে।’

রাজধানীর খিলগাঁও থেকে তানভির ইলেকট্রিকে পাইকারি মূল্যে ইলেকট্রিক পণ্য কিনতে এসেছিলেন মো. হোসাইন।

তিনি বলেন, ‘গত কয়েক দিনের লোডশেডিংয়ের কারণে এসি/ডিসি লাইটের বিক্রি বেড়েছে। আজকে দুই ডজন এই লাইট নিলাম।’

একই মার্কেটের আরেক বিক্রেতা ফারহানা ইলেকট্রিকের রবিউল আলম বলেন, ‘আগে যদি ১০টা লাইট বিক্রি করতাম এখন ২০ থেকে ৩০টা লাইট বিক্রি করি। এক কথায় দ্বিগুণের বেশি বিক্রি হচ্ছে।’

পূর্বপশ্চিম/ম

লোডশেডিং
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close