• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯
  • ||

ইসি নিয়োগে দেরি হলেও শূন্যতা সৃষ্টি হবে না

প্রকাশ:  ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ১৪:৩১
নিজস্ব প্রতিবেদক

নির্বাচন কমিশন গঠন করতে একটু বিলম্ব হলে আইনে শূন্যতা হিসাবে গণ্য হবে না বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

রোববার (১৩ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীতে ইসি আয়োজিত এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।

সোমবার মেয়াদ শেষ হচ্ছে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদার নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশনের (ইসি)।

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘এ সময়ের মধ্যে নতুন কমিশন গঠিত না হলে আইনের ব্যত্যয় ঘটবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সংবিধানে কিংবা আইনে এ ধরনের কোনো শূন্যতার কথা নাই। সেজন্য কাল এই কমিশনের মেয়াদ পূর্ণ হচ্ছে এবং তারপরও যদি নির্বাচন কমিশন গঠন করতে একটু বিলম্ব হলে আইনে শূন্যতা হিসাবে গণ্য হবে না।’

মেয়াদ নূরুল হুদার কমিশন অফিসিয়াল কোনো দায়িত্ব পালন করতে পারবেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘না তারা সেটা পারবেন না। কারণ সংবিধানে সুনির্দিষ্টাভাবে বলা আছে তারা পাঁচ বছর দায়িত্ব পালন করবেন। পাঁচ বছর শেষ হয়ে গেলে এমন কথা নাই যে যারা স্থলাভিষিক্ত হবেন তারা না আসা পর্যন্ত দায়িত্বে থাকবেন। এই সময়ে তো ইলেকশন কমিশন বন্ধ হয়ে যাবে না। অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ দায়িত্ব পালন করবে। কিন্তু নতুন নির্বাচন কমিশন আসলেই কোনো নির্বাচনের বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে পারবে।

সার্চ কমিটিতে বিএনপির মতামত না দেওয়ার প্রসঙ্গে আনিসুল হক বলেন, বাংলাদেশের সংসদ আইন পাস করেছে সার্চ কমিটি গঠন করেছে। রাষ্ট্রপতির সঙ্গে গত বছরের ডিসেম্বরের ২০ তারিখ থেকে শুরু করে এই বছর জানুয়ারির ১৭ তারিখ পর্যন্ত যে সংলাপ রাজনৈতিক দলগুলোর হয়েছে, সেই রাজনৈতিক দলগুলো এবং যে দলগুলো সংলাপে যায়নি আজকে যারা সার্চ কমিটিতে যায়নি সকলেরই কিন্তু একটা দাবি ছিল যে একটা ইলেকশন কমিশন গঠনের আইন করা উচিত।

আনিসুল হক আরো বলেন,‘সংসদ এই আইন করেছে সকলের পার্টিসিপেশনে। এরকম কোনো আইন এখন পর্যন্ত হয়নি যেখানে বিরোধীদলীয় ২২টি সংশাধনী নেওয়া হয়েছে। এমনকি এই আইনের যে নাম তাও বিরোধীদলীয় যে সংশোধনী তার প্রেক্ষিতে বদলে দেওয়া হয়েছে। সেই ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশন আইন হয়েছে। তার প্রেক্ষিতে সার্চ কমিটি কাজ করছে। তারা তাদের দায়িত্ব পালন করছেন, আমরা আশা করব তাদের দায়িত্ব পালনের শেষে সকলেই একটা গ্রহণযোগ্য নির্বাচন কমিশন পাবে।’

বিএনপির আলোচনায় অংশ না নেওয়াতে সেটিকে গণতান্ত্রিক মনে করেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘অবশ্যই গণতান্ত্রিক না। এটা নিয়ে তো প্রমাণের কিছু নাই যে গণতান্ত্রিক না। গণতন্ত্রের কথাই হচ্ছে সংলাপ। সেখানে প্রত্যেকবারই কোনো পদক্ষেপকে যদি তারা ইতিবাচকভাবে না নিয়ে নেতিবাচকভাবে নেয় তাহলে আমার মনে হয় জনগণ সেটিকে গণতান্ত্রিক বলে মনে করবে না।’

এ সময় অন্য এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, এ কমিশন তার যে দায়িত্ব, সেটা যথাযথ পালন করতে পেরেছে।

ইসি সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকারের সভাপতিত্বে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের 'বীর মুক্তিযোদ্ধা' খচিত স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান এবং গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ, ১৯৭২ (বাংলা পাঠ) এবং জাতীয় সংসদের নির্বাচনী এলাকার সীমানা নির্ধারণ আইন, ২০২১ এর মোড়ক উন্মোচন উপলক্ষে অনুষ্ঠানটিতে উপস্থিত ছিলেন সিইসি, অন্য নির্বাচন কমিশনার এবং অন্যান্য কর্মকর্তারা।

পূর্বপশ্চিমবিডি/জেএস

আইনমন্ত্রী,আনিসুল হক,নির্বাচন কমিশন
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close