• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯
  • ||

স্ত্রীর অভিযোগের তদন্ত শুরু, আত্মগোপনে মুরাদ

প্রকাশ:  ২০ জানুয়ারি ২০২২, ১৬:৪৭
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর ধানমন্ডি থানায় ডা. মুরাদ হাসানের বিরুদ্ধে নির্যাতন ও দুর্ব্যবহারের অভিযোগে তার স্ত্রী ডা. জাহানারা এহসানের করা সাধারণ ডায়েরি (জিডি) তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। তবে ডা. মরাদ আত্মগোপনে থাকায় এখনো তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারেননি তদন্ত কর্মকর্তা।

ধানমন্ডি থানা সূত্রে জানা গেছে, ডা. জাহানারা এহসানের করা জিডিতে বিবাদীর ঠিকানা দেওয়া আছে ধানমন্ডি। ওই ঠিকানায় তাকে পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি কোথায় আছেন তা কেউ বলতে পারছে না। তবে তদন্তে বেশ কিছু অগ্রগতিও আছে। বাদীর কাছ থেকে অভিযোগ সম্পর্কে তার বক্তব্য নেওয়া হয়েছে।

আলোচিত এই জিডি সম্পর্কে ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একরামুল মিয়া বলেন, আদালতের কাছ জিডি তদন্তের অনুমতির পাওয়ার পর একজন সাব-ইন্সপেক্টর এটা নিয়ে কাজ করছেন। তদন্ত চলছে, অগ্রগতিও আছে।

জিডির তদন্ত কর্মকর্তা উপ পরিদর্শক (এসআই) রাজীব হাসান বলেন, 'বিবাদী (ডা. মুরাদ হাসান) ঘটনার দিন কি ধরনের হুমকি দিয়েছিলেন তা আমরা তদন্ত করছি। এ ব্যাপারে বাদীর স্টেটমেন্ট নেওয়া হয়েছে। তবে বিবাদী কোথায় আছেন তাকে খোঁজা হচ্ছে। তাকে (ডা. মুরাদ) না পাওয়ায় এখনও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়নি।

তিনি বলেন, রাজীব হাসান বলেন, 'তার (মুরাদ) সঙ্গে আমরা কথা বলব, তিনি কোথায় আছেন তাও জানি না। যেহেতু ঠিকানা দেওয়া আছে ধানমন্ডি আর এখানে তো উনি নেই- যে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করব। তাকে পেলে বিস্তারিত আরও বলতে পারব।' প্রসঙ্গত, গত ৬ জানুয়ারি জাতীয় জরুরি সেবা ‘৯৯৯’ নম্বরে ফোন করে পুলিশের সহায়তা চান ডা. মুরাদের স্ত্রী জাহানারা এহসান। পরে ধানমন্ডি থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর আগেই মুরাদ হাসান বাসা থেকে বেরিয়ে যান। সেদিন বিকেলে স্বামীর বিরুদ্ধে একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন জাহানারা এহসান।

গত ৬ জানুয়ারি জাহানারা এহসান রাজধানীর ধানমন্ডি থানায় তার স্বামী মুরাদের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ এনে জিডি করেন। এর দুইদিন পর তদন্ত কর্মকর্তা ধানমন্ডি থানার উপপরিদর্শক রাজীব হাসান জিডি তদন্তের অনুমতি চেয়ে আদালতে আবেদন করেন। তদন্ত কর্মকর্তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ৯ জানুয়ারি ঢাকা মহানগর হাকিম মো. মামুনুর রশিদ জিডি তদন্তের অনুমতি দেন।

জিডিতে জাহানারা এহসান অভিযোগ করেন, সম্প্রতি ডা. মুরাদ কারণে-অকারণে তাকে ও তার সন্তানদের অকথ্য ভাষায় গালাগালসহ শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন এবং হত্যার হুমকি দিয়ে আসছেন। বৃহস্পতিবার বিকেল পৌনে ৩টার দিকে তিনি আবার তাকে ও তাদের সন্তানদের গালমন্দ করতে থাকেন। একপর্যায়ে মারধর করতে উদ্যত হলে তিনি ৯৯৯-এ কল করেন। তাদের মাধ্যমে জেনে ধানমন্ডি থানা পুলিশ বাসার ঠিকানায় পৌঁছালে ডা. মুরাদ বাসা থেকে বের হয়ে যান। এ অবস্থায় জাহানারা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। ডা. মুরাদ যে কোনো সময় তার ও সন্তানদের ক্ষতি করতে পারেন।

এর আগে, ডা. মুরাদ হাসান বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের মেয়ে জাইমা রহমানকে নিয়ে অশালীন মন্তব্য করে বিতর্কের মুখে পড়েন। ওই বিতর্কের মধ্যেই মোবাইল ফোনে তার কথোপকথনের একটি অডিও রেকর্ড ফাঁস হয়। তাতে তিনি এক অভিনেত্রীকে ধর্ষণের হুমকি দেন।

এসব ঘটনার পর প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে গত ৭ ডিসেম্বর প্রতিমন্ত্রীর পদ থেকে সরে দাঁড়ান মুরাদ। পরে আওয়ামী লীগের পদ হারিয়ে ৯ ডিসেম্বর রাতে তিনি কানাডার উদ্দেশে ঢাকা ছাড়েন। তবে প্রথমে কানাডায়, পরে সংযুক্ত আরব আমিরাতে ঢোকার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়ে ১২ ডিসেম্বর ঢাকা ফিরে আসেন তিনি।

পূর্বপশ্চিম এনই

ডা. মুরাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close