• রোববার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮
  • ||

লকডাউন অমান্য করায় শনিবার রাজধানীতে গ্রেপ্তার ৪৮১

প্রকাশ:  ৩১ জুলাই ২০২১, ২২:০৯
নিজস্ব প্রতিবেদক

কঠোর লকডাউনের নবম দিনে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে বাইরে বের হয়ে রাজধানীতে গ্রেপ্তার হয়েছেন ৪৮১ জন। আর ২০২ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে দুই লাখ ৬ হাজার ৭১০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এছাড়া ট্রাফিক বিভাগ কর্তৃক ৪৪০টি গাড়ির বিরুদ্ধে মামলায় জরিমানা করা হয়েছে ১০ লাখ ৪৫ হাজার টাকা। এ পর্যন্ত রাজধানীতে মোট গ্রেপ্তার হলেন চার হাজার ৫ জন।

শনিবার (৩১ জুলাই) রাতে এসব তথ্য জানান ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) ইফতেখায়রুল ইসলাম।

তিনি বলেন, সকাল থেকে ডিএমপির ৮টি বিভাগের রমনা, লালবাগ, মতিঝিল, ওয়ারী, তেজগাঁও, মিরপুর, গুলশান ও উত্তরা এলাকায় সরকারি নিয়ম অমান্য করে বাইরে বের হওয়ায় ৪৮১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

লকডাউনে সড়কে যানবাহন নিয়ে বের হওয়ায় ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত ও ট্রাফিক বিভাগ ৪৪০টি গাড়ির বিরুদ্ধে মামলায় জরিমানা করেছে ১০ লাখ ৪৫ হাজার টাকা।

তিনি আরো বলেন, সরকার করোনার সংক্রমণরোধে দুই সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ নিশ্চিতে বৃষ্টি উপেক্ষা করে নবম দিনেও রাজধানীজুড়ে সক্রিয় ছিল আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। রাজধানীতে সরকারি বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে অকারণে ও নানা অজুহাতে ঘর থেকে বের হওয়ায় ও লকডাউনেও প্রতিষ্ঠান খোলা রাখায় ২০২ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে দুই লাখ ৬ হাজার ৭১০ টাকা জরিমানা করা হয়।

কঠোর বিধিনিষেধ নিশ্চিতে গতকাল শুক্রবার অষ্টম দিনে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে বাইরে বের হয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) হাতে গ্রেফতার হন ৩৮১ জন। আর ১০৮ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা করা হয়েছিল ৬৯ হাজার ৯৪০ টাকা। এছাড়া ট্রাফিক বিভাগ কর্তৃক ৩২১টি গাড়ির বিরুদ্ধে মামলায় জরিমানা করা হয়েছিল ৮ লাখ ১৭ হাজার টাকা।

প্রসঙ্গত, ঈদুল আজহার ছুটি শেষে ২৩ জুলাই ভোর থেকে সারাদেশে ফের কঠোর লকডাউন শুরু হয়েছে। এই কঠোর লকডাউন বলবৎ থাকবে আগামী ৫ আগস্ট রাত ১২টা পর্যন্ত।

তবে এর আগেই ১ আগস্ট থেকে রপ্তানিমুখী সব শিল্প কলকারখানা খুলে দেওয়ার ঘোষণা দেয় সরকার। গার্মেন্টসহ বিভিন্ন কলকারখানা শ্রমিকদের কর্মস্থলে ফেরার কথা চিন্তা করে রোববার দুপুর ১২টা পর্যন্ত সারাদেশে গণপরিবহন ও নৌযান চলাচলের অনুমতি দেয় সরকার। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে শুধু দূলপাল্লার বাস চলবে এই সময়।

করোনা সংক্রমণের উল্লম্ফন ঠেকাতে দুই সপ্তাহের এই কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে সরকার এবার ‘কঠোর’ অবস্থানে রয়েছে। পুলিশ ও বিজিবি সদস্যদের পাশাপাশি মাঠে নেমেছে সেনাবাহিনী। এবারের কঠোর লকডাউনে সরকারি, আধাসরকারি, বেসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ রয়েছে। বন্ধ রয়েছে সব ধরণের গণপরিবহন। পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

লকডাউন
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close