• বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
  • ||

‘পুলিশ সাইবার সাপোর্ট ফর উইমেনে’ যেভাবে অভিযোগ জানাবেন নারীরা

প্রকাশ:  ১৭ নভেম্বর ২০২০, ০১:০৬ | আপডেট : ১৭ নভেম্বর ২০২০, ০১:১৩
নিজস্ব প্রতিবেদক

ভার্চুয়াল জগতে নারীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ পুলিশের উদ্যোগে চালু হয়েছে ‘পুলিশ সাইবার সাপোর্ট ফর উইমেন’। সোমবার (১৬ নভেম্বর) পুলিশ সদর দপ্তরের পুলিশ অডিটোরিয়ামে এ সেবার উদ্বোধন করেন পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ।

পুলিশ জানায়, ভার্চুয়াল জগতে নারীরা নানান অপরাধের শিকার হচ্ছেন এবং তারা তা লুকিয়ে রাখেন। তাই বাংলাদেশ পুলিশের আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম (বার) এর ব্যক্তিগত প্রচেষ্টায় শুধুমাত্র নারী ভিকটিমের সহায়তার জন্য ‘পুলিশ সাইবার সাপোর্ট ফর উইমেন’ সেবা চালুর উদ্যোগ নিয়েছেন। এই সেবাটি পুলিশ সদর দপ্তরের এলআইসি শাখার অধীনে চালু করা হবে।

এই সেবাটির উদ্দেশ্য নারীর জন্য নিরাপদ সাইবার জগত তৈরি। এর মাধ্যমে ভুক্তভোগী নারীকে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা গ্রহণে সহায়তা করা হবে। একইসঙ্গে নারীকে সাইবার সচেতনতামূলক পরামর্শ দেওয়া হবে।

ভুক্তভোগীর তথ্যের গোপনীয়তা নিশ্চিত করা হবে বলে জানায় পুলিশ।

বাংলাদেশ পুলিশের ফেসবুক পেজে ওই অনুষ্ঠানের একটি ভিডিও পোস্ট করা হয়েছে, যেখানে আইজিপি বলেন, ‘বাংলাদেশে ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট, পর্নোগ্রাফি কন্ট্রোল অ্যাক্ট, আইসিটি অ্যাক্ট, টেলি-কম্যুনিকেশন অ্যাক্ট-এসব আইনে এ পর্যন্ত মোট ৬ হাজার ৯৯টি মামলা হয়েছে, এর অধিকাংশ ঘটনার ভিকটিম বা শিকার নারী। কিন্তু সাইবার অপরাধের ক্ষেত্রে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই নারীরা তাদের ওপর ঘটে যাওয়া অপরাধ সম্পর্কে অভিযোগ করেন না। তারা যাতে নির্দ্বিধায় অভিযোগ করতে পারেন, সেজন্য একটা অল-উইমেন ইউনিট করেছি আমরা।’

কীভাবে অভিযোগ জানাতে হবে

নতুন এই ইউনিটে অভিযোগ জানাতে হলে একজন ভুক্তভোগী দেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে ইমেইল করে বা হটলাইন নম্বরে ফোন করে অভিযোগ জানাতে পারবেন। অভিযোগ জানানোর জন্য নিম্নোক্ত উপায়ে পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করা যাবে-

Police Cyber Support for Women PCSW নামে ফেসবুক পেজে মেসেজ দিয়ে অভিযোগ জানাতে হবে। এ ছাড়া [email protected] এই ঠিকানায় ইমেইল করা যাবে, পুলিশ সদর দপ্তরের ০১৩২০০০০৮৮৮ নম্বরে ফোন করে অভিযোগ জানানো যাবে, হটলাইন নম্বর ৯৯৯ এ ফোন করেও অভিযোগ করা যাবে।

কীভাবে কাজ করবে এ ইউনিট ‘পুলিশ সাইবার সাপোর্ট ফর উইমেন’-এটি মূলত একটি তথ্য জানানোর সেবা, যেখানে অভিযোগ গ্রহণ, তদন্ত এবং পরামর্শ প্রদানসহ সব পর্যায়ের কর্মকর্তা থাকবেন পুলিশের নারী সদস্যরা। এ ক্ষেত্রে অভিযোগকারী নারী নিজের পরিচয় গোপন রেখেও নিজের ওপর সংঘটিত অপরাধ সম্পর্কে তথ্য দিতে এবং প্রতিকার চাইতে পারবেন।

ভুক্তভোগী নারীকে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা গ্রহণে সহায়তা করবে পুলিশ। সেই সঙ্গে তাকে সাইবার সচেতনতামূলক পরামর্শ দেওয়া হবে। আইনি প্রক্রিয়ায় যেতে হলে, সেক্ষেত্রেও অভিযোগকারীর পরিচয় প্রকাশ না করার ক্ষেত্রে পুলিশ সর্বোচ্চ গোপনীয়তার আশ্বাস দিয়েছে।

কী কী অপরাধ সম্পর্কে অভিযোগ জানানো যাবে

পুলিশ বলছে, বাংলাদেশে নারীরা যত ধরনের সাইবার অপরাধের শিকার হন তার মধ্যে বেশিরভাগের বয়স ১৮ থেকে ২৪ বছর। অভিযোগের বড় অংশটি হয় অনলাইনে নানা ধরনের প্রতারণা অথবা ব্ল্যাকমেইলিংয়ের মাধ্যমে। নতুন সেবার অধীনে পুলিশ সাইবার জগতে যত ধরনের অপরাধের মুখে পড়েন নারীরা তার সব সম্পর্কেই অভিযোগ জানাতে পারবেন। বাংলাদেশে যেসব উল্লেখযোগ্য অপরাধের শিকার হয়ে ভুগতে হয় নারীদের এবং যে অপরাধ সম্পর্কে তড়িৎ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা উল্লেখ করা হয়েছে সেগুলো হচ্ছে:

১. ব্যক্তিগত ছবি, ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়া

২. ফেসবুক আইডি হ্যাক

৩. ব্যক্তিগত ছবি, ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি

৪. ছবি, ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে অর্থ আদায়

৫, ব্ল্যাকমেইলিং

৬, ছবি বা ভিডিও এডিট করে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি

৭, সুপার ইম্পোজ ছবি

৮, পর্নোগ্রাফি

৯, ছবি দিয়ে আপত্তিকর কনটেন্ট বা ফেক আইডি তৈরি

১০, সাইবার বুলিং

১১, ফোন নম্বর ছড়িয়ে দেওয়া

১২, হয়রানিমূলক এসএমএস, মেইল বা লিংক পাঠানো

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

পুলিশ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close