• শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৫ কার্তিক ১৪২৭
  • ||

নুরের বিরুদ্ধে ঢাবি ছাত্রীর আরেকটি মামলা, তদন্তে পিবিআই

প্রকাশ:  ১৪ অক্টোবর ২০২০, ২১:০২
নিজস্ব প্রতিবেদক
নুরুল হক নুর

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক লাইভে এসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের ছাত্রীকে ‘কটূক্তি’ করায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক সহসভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুরের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে।

বুধবার (১৪ অক্টোবর) বাংলাদেশ সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালে বাদী হয়ে মামলাটি করেন ঢাবির শিক্ষার্থী। শুনানি শেষে বিচারক জগলুল হোসেন মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) নজরুল ইসলাম শামীম বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন। তিনি আরো বলেন, ‘পাশাপাশি আদালত আগামী ২৯ নভেম্বর এ ব্যাপারে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন।’

এদিকে নুরসহ মামলার অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের দাবিতে অনশনে অনড় রয়েছেন মামলার বাদী। এ রকম একটি পরিপ্রেক্ষিতেই ডাকসুর সাবেক এই ভিপি গত সোমববার ফেসবুক লাইভে আসেন।

ওই ছাত্রীকে ‘দুশ্চরিত্র’ মন্তব্য করে নুর বলেন, ‘নাজমুল হাসান সোহাগের সঙ্গে যে একটা ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে আপনারা দেখেছেন, লঞ্চের কেবিনে হাসিখুশিভাবে। যে লঞ্চের কেবিনে মেয়েটি ধর্ষণের অভিযোগটি এনেছিল, সেই লঞ্চের কেবিনে। একেবারেই হাস্যরসাত্মক, ছিঃ! আমরা ধিক্কার জানাই যে, এত নাটক করছে, যেই দুশ্চরিত্র। যে ধর্ষণের নাটক করছে। স্বেচ্ছায় একজন ছেলের সঙ্গে বিছানায় গিয়ে, লঞ্চে হাসিখুশিভাবে।’

লাইভে ডাকসুর সাবেক ভিপি দুটি মামলার অভিযোগ খণ্ডন, মামলার বাদী ও তাঁর অনশন নিয়েও কথা বলেন। এক ঘণ্টা ২২ মিনিটের লাইভে নুর ওই ছাত্রীকে ‘দুশ্চরিত্র’ বলে মন্তব্য করায় এ নিয়ে এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নানা আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়েছে।

এর পরিপ্রেক্ষিতেই আজ ঢাবি ছাত্রী নুরের বিরুদ্ধে মামলা করেন ট্রাইব্যুনালে।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, ‘নুরুল হক নুর গত ১২ অক্টোবর দুপুর আড়াইটার দিকে তার ফেসবুক আইডি থেকে ভিডিও প্রকাশ করে। যেখানে তিনি বাদীকে দুশ্চরিত্রাহীন বলে প্রকাশ করেন। এছাড়া ভিডিওতে বলেন, ‘ছি, ধিক্কার জানাই এতো নাটক যে করছে সে দুশ্চরিত্রাহীন, ধর্ষণের নাটক করছে, স্বেচ্ছায় একটি ছেলের সঙ্গে বিছানায় গিয়ে।’ যা বাদীর জন্য অপমানজনক, মানহানিকর এবং আক্রমণাত্মক তথ্য বটে।’

আরো বলা হয়, ‘আসামি ছাত্র অধিকার পরিষদ নামীয় একটি সংগঠনের নেতা। তার এমন উসকানিমূলক বক্তব্যগুলো আক্রমণাত্মক, বিরক্ত, অপমান, অপদস্ত ও সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করার অভিপ্রায়ে প্রকাশ ও প্রকাশ করে বাদীকে ও তার পরিবারকে প্রতিবেশীদের সঙ্গে বা সমাজের সঙ্গে শত্রুতা ও ঘৃণা সৃষ্টি করে সমাজে অস্থিরতা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে এবং আইন শৃঙ্খলার অবনতি ঘটায়। বাদীর সুনাম নষ্ট করে ও মানহানি করে। যা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে শাস্তিযোগ্য অপরাধ।’

এজাহারে বাদী বলেন, এ ঘটনার বিষয়ে গত ১১ অক্টোবর শাহবাগ থানায় বাদী মামলা করতে যান। থানা কর্তৃপক্ষ মামলা না নিয়ে তাকে আদালতে মামলা করার পরামর্শ দেন বলে এজাহারে উল্লেখ করেন বাদী।

নুরের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আবেদন করেন বাদী।

এর আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের ওই শিক্ষার্থী কোতয়ালী থানায় গত ২১ সেপ্টেম্বর নুরসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুনকে প্রধান আসামি করে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরসহ আরও পাঁচজনকে সহযোগিতার অভিযোগে আসামি করা হয়।

মামলার অপর আসামিরা হলেন- বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নাজমুল হাসান সোহাগ (২৮), একই সংগঠনের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন (২৮), বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. সাইফুল ইসলাম (২৮), বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের সভাপতি নাজমুল হুদা (২৫) এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহিল কাফি (২৩)।

পূর্বপশ্চিমবিডি/ এনএন

পিবিআই,ঢাবি,নুরুল হক নুর
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close