• শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৪ আশ্বিন ১৪২৭
  • ||

হাসপাতালে অভিযান হয় না, অভিযান হয় চট্টগ্রামের পাহাড়ি এলাকায়: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশ:  ০৯ আগস্ট ২০২০, ২০:১৭
নিজস্ব প্রতিবেদক
ফাইল ছবি

হাসপাতালগুলোতে অভিযান পরিচালনা অব্যাহত থাকবে কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, ‘অভিযান শব্দটি নিয়ে আমার আপত্তি আছে। হাসপাতালে অভিযান হয় না, অভিযান হয় চট্টগ্রামের পাহাড়ি এলাকাসহ যেসব এলাকায় সন্ত্রাসী আছে তাদের বিরুদ্ধে। হাসপাতালে অনিয়ম অনুসন্ধান চলতে পারে।’

রোববার (৯ আগস্ট) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের মন্ত্রী বলেন, ‘সারা দেশের হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারসহ স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোর যেখানেই অনিয়ম ও দুর্নীতির সন্ধান পাওয়া যাবে সেখানেই অভিযান চলবে। অভিযান বন্ধ হয়নি। এটি চলমান রয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে আমরা অনুরোধ করেছি, অভিযানের সময় যাতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে অবহিত করা হয়।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে অবহিত করলে করোনা টেস্ট নিয়ে জালিয়াতির ঘটনায় গ্রেপ্তার মোহাম্মদ সাহেদ এবং জেকেজির আরিফ চৌধুরী ও ডা. সাবরীনা আরিফের প্রতিষ্ঠানে অভিযান সফল হতো কি না? এমন প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের অবস্থান সব সময় দুর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে। আমরা দুর্নীতি ও অনিয়মকে আশ্রয় ও প্রশ্রয় দেই না।’

বাংলাদেশে করোনা আক্রান্ত রোগী ও মৃত্যু হার আগের চেয়ে কমেছে বলেও দাবি করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। দেশের করোনা পরিস্থিতি সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘রোগীর সংখ্যা ও মৃত্যুর হার কমেছে। রোগী যদি না কমে তাহলে হসপিটালে ৬০-৭০ ভাগ সিট খালি থাকত না। এটাই প্রমাণ করে দেশে করোনা রোগীর সংখ্যা কমেছে।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষ এখন বাসায় বসে বেশি চিকিৎসা নিচ্ছে। মানুষের মধ্যে কনফিডেন্ট তৈরি হয়েছে। দেশে ৪-৫ হাজার ডাক্তার টেলিমেডিসিন সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। মুমূর্ষু বা ক্রিটিকেল রোগী ছাড়া হাসপাতালে কেউ ভর্তি হয় না।’

দেশে এখন টেস্টে সংখ্যা কমছে কি না এমন প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, ‘মানুষ বাসায় চিকিৎসা নিয়ে ভালো হয়ে যাচ্ছে ফলে টেস্ট করার সংখ্যাও কমছে। এ ছাড়া, বন্যা, মানুষের মধ্যে টেস্ট করার অনীহা এবং বাসায় থেকে চিকিৎসা নিয়ে ভালো হয়ে যাওয়ার কারণে টেস্ট সংখ্যা কমছে।’

আগের চেয়ে ল্যাবের সংখ্যা বাড়লেও করোনার নমুনা পরীক্ষারগার কমলেও করোনা পরীক্ষার কিটের কোনো সংকট নেই বলেও জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘এখন করোনা থেকে সুস্থ হওয়ার হারও বেশি। আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হওয়ার হার প্রায় ৬০ শতাংশ। এখনও অনেক জেলায় কোনো মৃত্যু নেই এবং সংক্রমণ সংখ্যাও অনেক কম। সব বিষয়ে বিচার বিশ্লেষন করলেই এটা বলাই যায় যে বাংলাদেশে করোনা রোগী ও মৃত্যু সংখ্যা কমছে।’

বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ সফল করার আহ্বান জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, সুস্থ্য জাতি গঠনে মায়ের দুধের বিকল্প নেই। করোনা পজেটিভ হওয়া মা তার শিশু সন্তানকে মুখে মাস্ক পরে সতর্কতার সঙ্গে দুধ পান করাতে পারবেন। এতে কোনো অসুবিধা নেই। মায়ের দুধে করোনাভাইরাস নেই।

সংবাদ সম্মেলনে আরো বক্তব্য দেন স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব মো. আবদুল মান্নান, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব মো. আলী নূর, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ প্রমুখ।

সচিব আবদুল মান্নান বলেন, আগামী ২৩ আগস্টের মধ্যে বেসরকারি হাসপাতালগুলোকে লাইসেন্স নবায়নের জন্য সময়সীমা বেধে দেওয়া হয়েছে। এ সময়ের মাধ্যমে নবায়ন না করলে প্রয়োজনীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

স্বাস্থ্যমন্ত্রী
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close