• বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ১৭ আশ্বিন ১৪২৭
  • ||

কিশোর গ্যাং তৈরির চেষ্টা ছিল টিকটক অপুর

প্রকাশ:  ০৫ আগস্ট ২০২০, ১৮:০৮
নিজস্ব প্রতিবেদক

সড়কে মারামারির ঘটনায় ‘টিকটক অপু’ ওরফে ‘অপু ভাইকে’ সোমবার (৩ আগস্ট) গ্রেফতার করে পুলিশ। মারধরের ঘটনায় গ্রেফতার করা হলেও তার বিরুদ্ধে কিশোর গ্যাং তৈরির প্রচেষ্টা খুঁজে পেয়েছে পুলিশ।

এ ঘটনায় নাজমুল নামের একজনকে গ্রেফতার করা হলেও এজাহারভুক্ত আরও সাত আসামি এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে। পুলিশ জানায়, পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের পাশাপাশি মামলার তদন্ত কার্যক্রম চালাচ্ছে তারা।

এদিকে অস্ত্র দিয়ে মারপিট করে রক্তাক্ত জখম, চুরি ও হুমকির অভিযোগে তার তিন দিনের রিমান্ডে চেয়েছিল পুলিশ। তবে মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) তার রিমান্ড না দিয়ে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

অপুর গোড়াপত্তনের বিষয়ে তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ জানতে পারে, সে নোয়াখালীর ছেলে। সেখানে একটি মাদরাসায় পড়াশোনা করত সে। টাকার অভাবে মাদরাসা ছেড়ে ঢাকায় চলে আসে। ঢাকায় একটি সেলুনে কাজ করত।

সেলুনের বন্ধুরা তাকে ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ টিকটক ও লাইকি’র কথা জানালে সে ভিডিও তৈরি করতে শুরু করে। তার ভিডিওগুলো নির্দিষ্ট কোনো গল্প বা বিষয় নিয়ে তৈরি করত না। এমনিতে বিভিন্ন ইস্যুতে নিজের মতামত দিত সে। এছাড়া তার সমালোচকদের ভিডিওর মাধ্যমে জবাব দিত।

জানা গেছে, অপু সেলুনে কাজ করার পাশাপাশি রাস্তায়, অন্যের বাসার ছাদে, ক্ষেতে, বাসের ভেতরেও খুব উদ্দেশ্যহীনভাবে টিকটক বানাত। তার টিকটকে দেড় লাখ ও লাইকিতে ১০ লাখ ফলোয়ার হওয়ার কারণে সে গত দুই মাসে শুধু ভিডিও তৈরি করে অর্ধলাখের মতো টাকা আয় করে।

টাকা আসছে এ কারণে সে পেশাদার টিকটকার হিসেবে ভিডিও তৈরি করতে ঢাকার বিভিন্ন ফাঁকা সড়কে শুটিং শুরু করে। অল্পদিনেই তার ফ্যান-ফলোয়ার বাড়তে থাকায় তার মধ্যে একটা দাম্ভিক ভাব চলে আসে। সেই ভাব থেকেই রোববারের মারধরের ঘটনার সূত্রপাত।

পুলিশ তদন্তে জানতে পারে, অপুর সহযোগীরা অধিকাংশই ভবঘুরে, ঢাকার বিভিন্ন বস্তিতে বসবাস করে। কেউ হোটেলে বেয়ারার কাজ করে, কেউ মোটরসাইকেল মেরামতের দোকানে। অপুর ভিডিওগুলোতে তার আচরণ প্রথম থেকেই উশৃঙ্খল ছিল। তবুও তার ফলোয়াররা এটাকে খুব স্বাভাবিকভাবে নিয়েই তাকে সমর্থন করে যাচ্ছিল।

অপুর বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উত্তরা পূর্ব থানার এসআই আজিজুর তালুকদার বলেন, আমরা ঘটনার তদন্ত করছি। পুলিশি হেফাজতে থাকা অপু তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলো স্বীকার করেছে। আমরা তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছি। এছাড়া বাকি আসামিদের ধরতেও অভিযান চলছে। মারধরের মামলাটি তদন্ত করতে গিয়ে অপুর কিশোর গ্যাং প্রতিষ্ঠার বিষয়টি উঠে আসে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে অন্য কোনো অপরাধের অভিযোগ আছে কি না- তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

পুলিশের উত্তরা বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) নাবিদ কামাল শৈবাল বলেন, অপু নোয়াখালী থেকে বছরখানেক আগে ঢাকায় এসেছে। সেলুনের পাশাপাশি টিকটকের কাজ করছে। সে ও তার সঙ্গীদের কিশোর গ্যাংয়ের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা আছে কি না- আমরা দেখছি। তবে আমরা ধারণা করছি, কিশোর গ্যাং হিসেবে নিজেদের আত্মপ্রকাশে একটি জোর প্রচেষ্টা তারা চালিয়ে যাচ্ছে। আমরা তদন্ত করছি।

পূর্বপশ্চিমবিডি/অ-ভি

সড়ক,মারামারি,টিকটক,অপু
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close