• শনিবার, ০৪ জুলাই ২০২০, ২০ আষাঢ় ১৪২৭
  • ||

নারীদের চেয়ে বেশি ধর্ষণের শিকার মেয়ে শিশুরা

প্রকাশ:  ৩০ জুন ২০২০, ০২:০৭ | আপডেট : ৩০ জুন ২০২০, ০২:০৯
নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশে নারীদের তুলনায় মেয়ে শিশুরা বেশি ধর্ষণের শিকার হচ্ছে। এই শিশুদের বড় অংশেরই বয়স ১০ বছরের মধ্যে। পরিচিতজন, নিকটাত্মীয় ও প্রতিবেশীদের মাধ্যমেই তারা নির্যাতি হচ্ছে। শহর থেকে গ্রামাঞ্চলে নির্যাতনের হার বেশি।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের ‘বাংলাদেশের নারী ও কন্যা নির্যাতন চিত্র : ধর্ষণ, গণধর্ষণ ও ধর্ষণের চেষ্টা’ শীর্ষ এক সমীক্ষা প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

শীর্ষক প্রতিবেদনে জানানো হয় যে, এতে বলা হয় ধর্ষণ ও ধর্ষণের চেষ্টায় উভয় ক্ষেত্রে ৬-৯ বছর বয়সী মেয়ে শিশুরা নির্যাতনের শিকার হচ্ছে বেশি। এটি যথাক্রমে ১৮ ও ১১ শতাংশ। আর গণধর্ষণের ক্ষেত্রে ১৪ থেকে ১৮ বছর বয়সের মেয়ে শিশুদের নির্যাতনের হার ২৫ শতাংশ। দেখা যায় যে, ২ থেকে ৫ বছরের শিশুও এই নির্যাতনের হাত থেকে রেহাই পায়নি। অপরদিকে ১৮ থেকে ৩০ বছর বয়সের নারীরাও উল্লেখযোগ্য সংখ্যায় ধর্ষণ, গণধর্ষণসহ যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। প্রতিবেদন অনুযায়ী স্কুল পর্যায়ের মেয়েরা সবচেয়ে বেশি ধর্ষণের শিকার হচ্ছে। বিশেষত ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণিতে পড়ুয়া মেয়েদের সংখ্যাই বেশি।

সমীক্ষা প্রতিবেদনে বলা হয়, ধর্ষণের ক্ষেত্রে ১ম থেকে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত ১৫ শতাংশ এবং ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেনি পর্যন্ত ২০ শতাংশ মেয়ে শিক্ষার্থী নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। এ ছাড়া ধর্ষণ চেষ্টার ক্ষেত্রে ভুক্তভোগী ১ম থেকে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত ১৫ শতাংশ শিক্ষার্থী এবং ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেনি পর্যন্ত ১৮ শতাংশ মেয়ে শিক্ষার্থী। আর গণধর্ষণের ক্ষেত্রে ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত স্কুলপড়ুয়া মেয়েদের সংখ্যা বেশি। ২ থেকে ১৩ বয়সী মেয়েরা সবচেয়ে বেশি ধর্ষণের শিকার আর এর বড় অংশই ১০ থেকে ১৩ বছর বয়সে নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। ১ম থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত মেয়েরা ধর্ষণের শিকার হলেও ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণি পড়ুয়া মেয়েদের সংখ্যা বেশি। অর্থাৎ ধর্ষণের শিকার উল্লেখযোগ্যসংখ্যকই ছাত্রী।

এতে আরও বলা হয়, গার্মেন্টকর্মী, বিভিন্ন কারখানা শ্রমিক ও গৃহপরিচারিকারাও এই নির্যাতনের ঝুঁকিতে আছে। আবার ধর্ষণ, গণধর্ষণ ও ধর্ষণের চেষ্টা সব ক্ষেত্রে গৃহিণীরাও উল্লেখজনকহারে নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। সমীক্ষায় প্রাপ্ত তথ্যে, নির্যাতনের শিকার অধিকাংশ নারী ও মেয়ে শিশু উপজেলা ও গ্রামে বাস করে। ধর্ষণের ক্ষেত্রে অধিকাংশই সংঘটিত হয়েছে উপজেলা পর্যায়ে (৫০ শতাংশ) এবং গ্রাম এলাকায় (২৬ শতাংশ)। গণধর্ষণের ক্ষেত্রে উপজেলা পর্যায়ে ৪৬ শতাংশ এবং গ্রাম পর্যায়ে ২২ শতাংশ এবং ধর্ষণের চেষ্টা উপজেলায় ৪৪ শতাংশ ও গ্রাম এলাকায় ২৯ শতাংশ। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে নারী ও মেয়েরা ধর্ষণের শিকার হয় পরিচিতজন, নিকটাত্মীয় ও প্রতিবেশীর দ্বারা। প্রতিবেশীর মাধ্যমে একটি বড় অংশ কন্যা শিশু ধর্ষণের শিকার হচ্ছে। এ হার ধর্ষণের ক্ষেত্রে ৪৫ শতাংশ আর গণধর্ষণের ক্ষেত্রে ১৮ শতাংশ।

জরিপ প্রতিবেদনের পর্যবেক্ষণে বলা হয়- দুই বছরের কম বয়সী শিশুও প্রতিবেশীর দ্বারা ধর্ষণের শিকার হচ্ছে। আবার কিশোরীদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য সংখ্যকই প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে ধর্ষণের শিকার হচ্ছে। তারা স্মার্টফোন, সহজলভ্য ইন্টারনেটের কারণে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ছে। পরে বিয়ের প্রলোভনে পড়ে ধর্ষণের শিকার হয়। এ ছাড়া প্রেমের প্রস্তাব ও বিয়েতে সাড়া না দিলে এলাকার বখাটে, স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তি দ্বারা জোরপূর্বক ধর্ষণের শিকার হচ্ছে কিশোরীরা। গণধর্ষণের ক্ষেত্রে দেখা যায় বেশির ভাগ ঘটনায় ২৭ শতাংশ অভিযুক্ত হচ্ছে এলাকার বখাটে ও সন্ত্রাসী। দুঃখজনক হলেও ধর্ষণের মতো নির্যাতনে তরুণ সমাজের সম্পৃক্ততা বেশি। ৩২ শতাংশ অভিযুক্তের বয়স ১১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে। বিশেষ করে ২১ থেকে ২৫ বছর বয়সীদের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। গণধর্ষণকারীর প্রায় অর্ধেকের বেশির বয়স ১৬ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে। যা মোট অভিযুক্তের ৪৮ শতাংশ। অভিযুক্তের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি চালক ৭ শতাংশ, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী (মুদি দোকানদার, স্টেশনারি বিক্রেতা) ৬ শতাংশ, শিক্ষক ৪ শতাংশ ও এলাকার বখাটে ৫ শতাংশ।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ ২০১৯ সালের ধর্ষণের ঘটনাগুলো বিশ্লেষণ করে জানায়, ৪৬ শতাংশ ঘটনায় ধর্ষণের মামলা হয়েছে। ৯ শতাংশ ক্ষেত্রে মামলা হয়নি। ২ শতাংশ ক্ষেত্রে হুমকির কারণে মামলা হয়নি। আর যেখানে ৫ শতাংশ ঘটনায় মামলা হয়েছে। ধর্ষণের মামলায় ২১ শতাংশ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়। ধর্ষণের শিকার নারীদের ক্ষেত্রে শারীরিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় ১২ শতাংশ, হত্যা করা হয় ১ শতাংশকে, আত্মহত্যা করে ১ শতাংশ, মানসিক অসুস্থ হয়ে পড়ে ১২ শতাংশ, কলেজ যাওয়া বন্ধ করে দেয় ৭ শতাংশ এবং হাসপাতালে ভর্তি ৬ শতাংশ। গণধর্ষণের পর হত্যার ক্ষেত্রে প্রাপ্তবয়স্ক নারীর তুলনায় শিশুর হার বেশি।

পূর্বপশ্চিম-এনই

ধর্ষণ,ধর্ষণ চেষ্টা,গণধর্ষণ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close