• বুধবার, ০৩ জুন ২০২০, ২০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
  • ||

পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত বাড়িভাড়া নেবেন না ফারজানা

প্রকাশ:  ২২ মে ২০২০, ২২:১৩ | আপডেট : ২২ মে ২০২০, ২২:১৭
নিজস্ব প্রতিবেদক
ফারজানা তাহের

করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত বাড়িভাড়া না নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনীর লাইফ কেয়ার হাসপাতালের চেয়ারম্যান ফারজানা তাহের।

করোনার কারণে বিপদে পড়ায় ১০ জন ভাড়াটিয়ার গত মার্চ থেকে মে মাস পর্যন্ত ভাড়া মওকুফ করেছেন ফারজানা তাহের। করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হলে আগামীতেও ভাড়া নেবেন না তিনি।

জানা গেছে, ফারজানা তাহেরের বাসা বেগমগঞ্জে উপজেলার কিসমত করিমপুরে। তার বাড়িতে ১০ ভাড়াটিয়ার বসবাস। মফস্বল এলাকা হলেও প্রত্যেকের বাসা ভাড়া ৮ হাজার টাকা করে। এদের কেউ ব্যবসায়ী, আবার কেউ স্বল্প আয়ের মানুষ। করোনার কারণে মার্কেট বন্ধ থাকায় ব্যবসায়ীদেরও আয় বন্ধ। তাই মানবিক কারণে ভাড়াটিয়াদের পাশে দাঁড়িয়ে নজির স্থাপন করেছেন তিনি।

সম্প্রতি নিজের ফেসবুকে একটা পোস্ট দেন ফারজানা তাহের। পোস্টে তিনি লিখেন, ‘আমি স্বেচ্ছায় গত মার্চ, এপ্রিল, মে তিন মাসের বাসাভাড়া মওকুফ করলাম। মহান হওয়ার জন্য এই স্ট্যাটাস নয়, ফ্রেন্ডলিস্টে যদি এমন কেউ থাকেন তাদের প্রতি আমার অনুরোধ থাকবে ভাড়াটিয়াদের এই সাহায্যটুকু যেন করেন।’

ফারজানা তাহের লাইফ কেয়ার হাসপাতাল ছাড়াও চৌমুহনীতে তার বাবার নামে প্রতিষ্ঠিত মফিজ উল্লা মেমোরিয়াল একাডেমির অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। মার্চের শেষ দিন থেকে সাধারণ ছুটি চললেও তার এই প্রতিষ্ঠানের ২৬ জন শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীর সবার নিয়মিত বেতন ও বোনাস দেয়া হয়েছে। এখানকার শিক্ষার্থীরা সবাই বিনামূল্যে পড়াশোনা করার সুযোগ পান।

এছাড়াও তার প্রয়াত বাবার নামে চালু করা ‘মফিজ উল্লা স্মৃতি মেধা বৃত্তি পরীক্ষা’ অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে ১৯৯২ সাল থেকে। এটি পরিচালনা কমিটির সভাপতিও ফারজানা তাহের। প্রতিবছর সাড়ে তিনশো মেধাবী শিক্ষার্থীদের এখান থেকে বৃত্তি দেয়া হয়।

লাইফ কেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসক, নার্স ও অন্য কর্মকর্তা-কর্মচারী মিলে সংখ্যাটা ১৩০ জনের মতো। সবার শতভাগ বেতন-বোনাস পরিশোধ করা হয়েছে বলে জানান ফারজানা তাহের।

ফারজানা তাহের বলেন, ‘করোনার কারণে অনেকের আয়-রোজগার নেই। যারা আমার বাসায় ভাড়া থাকছেন তারা মধ্যবিত্ত পরিবারের লোকজন। তার থেকে কম আয়ের মানুষও আছেন। এই বিপদে মধ্যবিত্ত মানুষ কারো কাছে কিছু চাইতে পারছেন না। এজন্য তিন মাস ভাড়া নিচ্ছি না। পরিস্থিতি যদি খারাপ হয় তাহলে সামনে দিনগুলোতেও ভাড়া নেব না। এখনই যেহেতু নিচ্ছি না, খারাপ হলে তো নেওয়ার প্রশ্নই আসে না। আমি আমার নীতিতেই থাকবো।’

তিনি বলেন, ‘অন্য যাদের সুযোগ আছে আমি সবার কাছে অনুরোধ করবো যতটুকু সম্ভব আপনার ভাড়াটিয়া হোক আর পাশের মানুষ হোক সহযোগিতা করুন। সামান্য সহযোগিতাও এসব মানুষের অনেক উপকারে আসবে। আমারও খুব একটা সমস্যাও হবে না ইনশাল্লাহ।’

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

ফারজানা তাহের,নোয়াখালী
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close