• সোমবার, ১৩ জুলাই ২০২০, ২৯ আষাঢ় ১৪২৭
  • ||

আইইডিসিআর সরে যাওয়ায় ১৫শ রোগীর নমুনা পরীক্ষা অনিশ্চিত

প্রকাশ:  ০৪ মে ২০২০, ১০:২১ | আপডেট : ০৪ মে ২০২০, ১০:৫৫
পূর্বপশ্চিম ডেস্ক

এতদিন করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার মূল সম্বন্বয় করেছে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। কিন্তু দেশে সংক্রমণ পরিস্থিতির খুব গুরুত্বপূর্ণ সময়ে প্রতিষ্ঠানটিকে মূল সমন্বয়ের দায়িত্ব থেকে সরে যেতে হয়েছে। এখন থেকে সমন্বয়ের কাজটি করবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়ন্ত্রণকক্ষ। এর ফলে বর্তমানে আইডিসিআরে থাকা দেড় হাজারের বেশি মানুষের নমুনা পরীক্ষার ফল অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। প্রতিষ্ঠানটি এখন থেকে অন্য ল্যাবরেটরির মান যাচাই করবে।

এদিকে আইইডিসিআরের নিজস্ব ল্যাবের সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। প্রতিষ্ঠানের একাধিক কর্মকর্তা ও কর্মচারী করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন। মূল ল্যাবরেটরিও এখন সংক্রমিত। অথচ এত দিন আইইডিসিআর অন্য কোনো ল্যাবে নমুনা পরীক্ষার বিষয়ে নির্দিষ্ট মান বজায় রাখার কথা বলে এসেছে। মান ঠিক না থাকলে ল্যাবে যারা কাজ করবেন, তাদের মধ্যে সংক্রমণ ছড়াতে পারে। আইইডিসিআরের মূল দায়িত্ব পরিবর্তন এবং সেখানে সংক্রমণের ঘটনার কারণ হিসেবে যথাযথ পরিকল্পনা ও সমন্বয়ের ঘাটতিকে দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ বলেন, আইইডিসিআর মাত্রাতিরিক্ত কাজের চাপে ছিল। অভিযোগ ছিল, নমুনা সংগ্রহ ও ফলাফল জানাতে বিলম্ব হচ্ছিল তাদের।

তিনি আরও বলেন, আইইডিসিআর আর বাড়ি বাড়ি গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করবে না। অন্য ল্যাবরেটরির মান তারা যাচাই করবে। তারা করোনা নিয়ে রোগতাত্ত্বিক গবেষণা করবে। চিকিৎসকদের প্রশিক্ষণ দেবে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর নমুনা পাঠালে তবেই তা পরীক্ষা করবে।

আইইডিসিআরের পরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, আমি এমআইএসের সাবেক পরিচালক সমীর কান্তি সরকারের কাছে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়েছি।

তিনি স্বীকার করেছেন, তাদের কাছে জমে থাকা নমুনার সংখ্যা বাড়ছে। তবে তিনি পরিমাণ উল্লেখ করেননি।


পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএম

আইইডিসিআর,স্বাস্থ্য অধিদপ্তর,ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close