• রোববার, ০৫ জুলাই ২০২০, ২১ আষাঢ় ১৪২৭
  • ||
শিরোনাম

এন-৯৫ মাস্ক আসলে কী, কেন এত মাতামাতি?

প্রকাশ:  ০১ মে ২০২০, ১৬:০৬
নিজস্ব প্রতিবেদক

চলমান করোনাভাইরাসের প্রার্দুভাব মোকাবিলায় দেশে কর্মরত স্বাস্থ্যকর্মীদের কেবল অল্পসংখ্যক আমেরিকান এন-৯৫ মাস্ক সরবরাহ করতে সক্ষম হয়েছিল কর্তৃপক্ষ। বর্তমানে তারা এন-৯৫’র সমতুল্য মাস্ক আমদানি করছে, যেগুলোর বেশিরভাগই চীনের। এ ছাড়া, নকল ও নিম্নমানের মাস্কও বাংলাদেশে আসছে। এগুলো যারা ব্যবহার করছেন, বিশেষ করে যেসব স্বাস্থ্যকর্মীরা, তারা স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়ছেন।

এন-৯৫ মাস্ক গোল্ড স্ট্যান্ডার্ডের সুরক্ষা সরঞ্জাম হিসেবে বিবেচিত। যেটি বাতাসের শূন্য দশমিক ৩ মাইক্রন বা তার চেয়ে বড় কণা ৯৫ শতাংশ পর্যন্ত আটকাতে পারে।

বিশ্বজুড়ে যেসব স্বাস্থ্যকর্মীরা কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসাসেবা দিচ্ছেন ও নমুনা সংগ্রহ বা পরীক্ষা করছেন, তাদের সুরক্ষায় এন-৯৫ অন্যতম প্রধান পারসোনাল প্রোটেকটিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিই)।

অন্যদিকে, বাজারে থাকা অন্য মাস্কগুলোর মান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন স্বাস্থ্যকর্মী ও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। গত মার্চে ডাচ সরকার চীনের এক প্রস্তুতকারকের কাছ থেকে যাওয়া কেএন-৯৫ মাস্কের চালান ফেরত পাঠিয়েছিল। কারণ, সেগুলো মানসম্পন্ন ছিল না।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আমরা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) কাছ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি কিছু এন-৯৫ মাস্ক পেয়েছিলাম। কিন্তু, এরপরে আমরা আর কোনো এন-৯৫ মাস্ক পাইনি। এখন আমরা স্বাস্থ্যকর্মীদের এন-৯৫’র সমতুল্য মাস্ক সরবরাহ করছি।’

‘সরকার তালিকাভুক্ত বিক্রেতাদের মাধ্যমে এন-৯৫’র সমতুল্য মাস্ক আমদানি করছে। এগুলোর বেশিরভাগই চীন থেকে আমদানি হচ্ছে’, বলেন তিনি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কেন্দ্রীয় ঔষধাগারের (সিএমএসডি) পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, ‘আমাদের কাছে কেএন-৯৫, এফএফপি-২ ও অন্যান্য ক্যাটাগরির প্রায় এক লাখ ৪০ হাজারের মতো মাস্ক রয়েছে। যেহেতু আমেরিকা এন-৯৫ মাস্ক বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছে, তাই আমরা সেগুলো আর সংগ্রহ করতে পারছি না।’

এপ্রিলের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান মাস্ক প্রস্তুতকারী কোম্পানি ৩এম বলেছে, সরকার তাদের তৈরি এন-৯৫ মাস্ক কানাডা ও লাতিন আমেরিকায় রপ্তানি বন্ধ করতে বলেছে।

এক বিবৃতিতে ৩এম বলেছে, সরকার তাদের বলেছে, তারা যেনো এন-৯৫ মাস্ক প্রস্তুতের ক্ষেত্রে দেশটির ফেডারেল ইমার্জেন্সি ম্যানেজম্যান্ট অ্যাজেন্সি থেকে পাওয়া অর্ডারকে অগ্রাধিকার দেয়। (তথ্যসূত্র: বিবিসি, ৩ এপ্রিল ২০২০)

বর্তমানে দেশে কোভিড-১৯’র জন্য ডেডিকেটেড হাসপাতালের সংখ্যা ১৭। এসব হাসপাতালের স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য দৈনিক প্রায় তিন থেকে চার শ মাস্ক প্রয়োজন হয় বলে জানিয়েছেন ডা. মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ। তবে, বর্তমানে মজুদে থাকা বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মাস্কের ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য দেননি তিনি।

সিএমএসডি সূত্রে জানা গেছে, সেখানে প্রায় চার হাজার ৪৭০টির মতো এন-৯৫ মাস্ক, ছয় হাজার ১৯৫টির মতো এফএফপি-২ মাস্ক ও ৬০ হাজার ২১০টির মতো কেএন-৯৫ মাস্ক মজুদ রয়েছে। এফএফপি-২ মাস্ক ইউরোপের ও কেএন-৯৫ মাস্কগুলো চীনা মানের।

সিএমএসডি’র পরিচালক জানান, তারা পাঁচ ধরনের স্বাস্থ্যকর্মীদের মাঝে মাস্কগুলো দিচ্ছেন। তারা হলেন— যেসব চিকিৎসক ও নার্সরা সরাসরি করোনা রোগীদের সেবা দিচ্ছেন, পিসিআর পরীক্ষার টেকনোলজিস্ট ও যেসব চিকিৎসক ও নার্সরা করোনাভাইরাস স্ক্রিনিং ও আইসিইউ ম্যানেজম্যান্টের কাজ করছেন।

তিনি জানান, আন্তর্জাতিক বাজারে দাম ও মানের ওপর নির্ভর করে একটি মাস্কের মূল্য সাড়ে চার শ থেকে এক হাজার দুই শ টাকা পর্যন্ত হয়।

এন-৯৫ মাস্ক আসলে কী?

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এন-৯৫ এক ধরনের পারটিকুলেট-ফিল্টারিং মাস্ক, যেটি ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর অকুপেশনাল সেফটি অ্যান্ড হেলথের (এনআইওএসএইচ) দেওয়া এয়ার ফিলট্রেশনের (বাতাস পরিশোধক) শ্রেণিবিন্যাসের মানদণ্ড পূরণ করে।

এন-৯৫ এমন এক ধরনের মাস্ককে বোঝায় যেটি বাতাসের শূন্য দশমিক ৩ মাইক্রন বা তার চেয়ে বড় কণা ৯৫ শতাংশ পর্যন্ত আটকাতে পারে। এক মাইক্রন সমান এক মিটারের ১০ লাখ ভাগের এক ভাগ। ভাইরাসগুলো শূন্য দশমিক ৩ মাইক্রন পরিসীমার মধ্যেই থাকে।

তবে, প্রস্তুতকারী ভেদে এন-৯৫ মাস্কের ধরন আলাদাও হতে পারে।

যেহেতু গত বছরের ডিসেম্বরের দিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে করোনার সংক্রমণ শুরু হয় এবং পর্যায়ক্রমে তা ইউরোপ-আমেরিকাসহ সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে, তাই এন-৯৫ দুষ্প্রাপ্য ও দামী হয়ে গেছে।

গত ১৮ এপ্রিল প্রকাশিত ওয়াশিংটন পোস্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এন-৯৫ মাস্কের দাম ১ দশমিক ৭৫ ডলার থেকে বেড়ে ১২ ডলার হয়েছে। প্রতিবেদনে এও বলা হয়েছিল, যুক্তরাষ্ট্রের হাসপাতালগুলো ফেস মাস্ক সংকটের অভিযোগ করছে।

বর্তমানে বিশ্বে ফেস মাস্কের যে আকাশচুম্বী চাহিদা, তার অর্ধেকই পূরণ করছে চীন। যে কারণে বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশের পক্ষে চীন থেকে ফেস মাস্ক আনাটা বেশ কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য অনুসারে, চীনের ফেস মাস্কের দর প্রায় চার গুণ বেড়েছে। এ ছাড়া, এখন এই মাস্কের এত পরিমাণ চাহিদা যে চীনা প্রস্তুতকারী কোম্পানিগুলো অর্ডারের সঙ্গে খাপ খেতে পারছে না।

এরপর, এগুলোর মান নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণের সাবেক পরিচালক বে-নজির আহমেদ বলেন, ‘যেহেতু চীনের মাস্কের মান নিয়ে সন্দেহ রয়েছে, তাই ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর বা সিএমএসডি’র উচিৎ এগুলো সঠিকভাবে পরীক্ষা করা।’

তিনি বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে এন-৯৫ লেবেলযুক্ত কিছু মাস্ক দেখেছি, যেগুলো আসলে এন-৯৫ নয়। তাই যদি আমরা স্বাস্থ্যকর্মীদের সঠিক মাস্ক দিতে ব্যর্থ হই, তাহলে বড় ধরনের বিপর্যয় আসবে।’

ডব্লিউএইচও’র দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সাবেক আঞ্চলিক উপদেষ্টা অধ্যাপক ডা. মোজাহেরুল হক বলেন, ‘যেহেতু আমরা এন-৯৫ সংগ্রহে ব্যর্থ হয়েছি, তাই আমাদের কেএন-৯৫ ও এফএফপি-২ মাস্ক গ্রহণ করতে হবে।’

‘কিন্তু, যেহেতু চীনের মাস্কের মান নিয়ে সন্দেহ রয়েছে, তাই এগুলো মানসম্পন্ন কি না, সেটি পরীক্ষার মাধ্যমে নিশ্চিত করতে হবে’, যোগ করেন তিনি।

ভুল?

যখন বিভিন্ন হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স ও অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীরা এন-৯৫ মাস্কের সংকটের জন্য আক্ষেপ করছিলেন, তাদের কেউ কেউ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মাস্ক সংকট ও নকল মাস্ক সরবরাহের কারণে হতাশা ব্যক্ত করেছিলেন, তখনই নকল এন-৯৫ মাস্ক সরবরাহের ব্যাপারটি প্রকাশ্যে আসে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অনুমোদনপ্রাপ্ত বাংলাদেশি কোম্পানি জেএমআই হসপিটালস রিকুইজিট ম্যানুফ্যাকচারিং লিমিটেডে মেডিকেল ইকুইপমেন্ট প্রস্তুত করে থাকে। তারাই সিএমএসডিকে মাস্ক, গ্লাভস ও স্যানিটাইজার সরবরাহ করছে।

জেএমআই গ্রুপের কাছ থেকে ২০ হাজার ৬০০টি মাস্ক সংগ্রহ করেছে সিএমএসডি। যা পরবর্তীকালে তারা হাসপাতালগুলোতে সরবরাহ করেছে।

কিন্তু, যখন দেখা গেল, আসল এন-৯৫’র মানের সঙ্গে জেএমআই গ্রুপের দেওয়া মাস্কগুলোর মানের বিস্তর ফারাক, তখন সিএমএসডি এই মাস্কগুলো ফিরিয়ে নিতে শুরু করে।

এই ব্যাপারটি নিয়ে জিজ্ঞাসা করলে সিএমএসডির পরিচালক বলেন, ‘জেএমআই গ্রুপের এন-৯৫ মাস্ক সরবরাহের কথা ছিল না।’

তিনি বলেন, ‘জেএমআই দীর্ঘদিন ধরেই সার্জিক্যাল মাস্ক সরবরাহ করে আসছে। তাদেরকে সাধারণ সার্জিক্যাল মাস্কই দিতে বলা হয়েছিল এবং তারাও তাই দিয়েছিল। শুধু ভুলবশত প্যাকেটের গায়ে এন-৯৫ লেখা হয়েছিল।’

‘এগুলো পাওয়ার পর যাচাইয়ের ক্ষেত্রে সিএমএসডির কোনো গাফিলতি ছিল কি না?’— এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করি। কিন্তু, অনেক সময় এটি সম্ভব হয়ে ওঠে না। কারণ, এখন জরুরি অবস্থা।’

‘এ ব্যাপারে আমরা তাদের কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছিলাম। জবাবে তারা বলেছে, ভুলবশতই এটি হয়েছে। বিষয়টি প্রকাশ্যে আসার পর আমরা তাদের দেওয়ার সব মাস্ক ফিরিয়ে নিয়েছি’, যোগ করেন সিএমএসডি পরিচালক।

এক বিবৃতিকে জেএমআই গ্রুপ জানিয়েছে, তারা ভুলবশত এন-৯৫’র প্যাকেটে সাধারণ মাস্ক রেখেছিল। এটা মোড়কীকরণগত ভুল।

নকল এন-৯৫ মাস্ক সরবরাহের কারণে উদ্ভূত বিক্ষুব্ধ পরিস্থিতির মুখে প্রথম পর্যায়ে সরকারি হাসপাতালগুলোতে দেওয়া এ ধরনের সাত হাজার মাস্ক ফিরিয়ে নিয়েছে সিএমএসডি।

সিএমএসডি যখন এন-৯৫ মাস্ক সংগ্রহে রীতিমতো লড়াই করছে, ঠিক সেই মুহূর্তে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম দাবি করেছেন, তিনি ব্যক্তিগত উদ্যোগ ও অর্থায়নে চীন থেকে প্রায় ২৮ হাজার এন-৯৫ মাস্ক এনেছেন। যেগুলো তিনি বিতরণ করেছেন।

তিনি এও বলেন, ‘আরও ২০ হাজার এন-৯৫ মাস্ক আনছেন। যেগুলোর চালান প্রক্রিয়াধীন।’

‘এগুলো আসল এন-৯৫ মাস্ক কি না’— জিজ্ঞাসা করলে মেয়র জাহাঙ্গীর বলেন, ‘এগুলো চীনের এন-৯৫ মাস্ক। যুক্তরাষ্ট্রের এন-৯৫ মাস্কের আদলেই চীন এগুলো তৈরি করেছে।’ তবে, মাস্কগুলোর মান তিনি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কাছ থেকে ক্রসচেক করাননি।

তিনি জানান, প্রতিটি মাস্কের মূল্য চার শ থেকে সাড়ে চার শ টাকার মতো পড়েছে।

সম্প্রতি গ্রামীণ টেলিকমও চীন থেকে ৫০ হাজার পিস এন-৯৫ মাস্ক আমদানি করেছে। অনুমোদনের জন্য এগুলোর নমুনা তারা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে জমা দিয়েছে।

গ্রামীণ টেলিকমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আশরাফুল হাসান বলেন, ‘আমরা চীন থেকে এন-৯৫ (জিবি১৯০৮৩-২০১০) মেডিকেল প্রোটেকটিভ মাস্ক এনেছি। সেগুলো ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর অকুপেশনাল সেফটি অ্যান্ড হেলথের (এনআইওএসএইচ) দেওয়া স্ট্যান্ডার্ডের সমমানের।’

এন-৯৫ মাস্কগুলো স্বাস্থ্যবিষয়ক মার্কিন গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোলের (সিডিসি) গবেষণা সংস্থা এনআইওএসএইচ’র কর্তৃক পরীক্ষিত ও প্রত্যয়িত।

সম্প্রতি দেওয়া এক নির্দেশনায় যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ) জানিয়েছে, যখন পূর্ব-অনুমোদিত মাস্কগুলো পাওয়া সহজলভ্য না, তখন সিডিসির তালিকায় থাকা বিকল্প মাস্ক ব্যবহারে এফডিএ’র কোনো আপত্তি থাকে না। এই তালিকায় কেএন-৯৫ মাস্কও রয়েছে।

গ্রামীণ টেলিকমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জানান, তারা চীন থেকে যে মাস্কগুলো এনেছেন, সেগুলো চীনের ন্যাশনাল মেডিকেল প্রোডাক্ট অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের তালিকাভুক্ত।

তিনি বলেন, ‘চীনের বিভিন্ন সোর্সের কাছ থেকে আসল ফেস মাস্ক কেনা একটি বড় চ্যালেঞ্জের বিষয়। নিম্নমানের মাস্কের ভেতরে দিয়ে বায়ুবাহিত জীবাণু প্রবেশ করতে সক্ষম। যেগুলো পরলে স্বাস্থ্যকর্মীরা ঝুঁকিতে পড়বেন।’

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি ডা. ইকবাল আরসালান বলেন, ‘শুরুর দিকে মাস্ক নিয়ে কিছুটা বিশৃঙ্খলা ছিল। তবে, এখন পরিস্থিতি আরও উন্নত হচ্ছে।সূত্র: দ্য ডেইলি স্টার।

পূর্বপশ্চিমবিডি/জিএম

করোনাভাইরাসের প্রার্দুভাব,স্বাস্থ্যকর্মীরা ঝুঁকি,সিডিসি,গবেষণা সংস্থা
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close