• শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ৯ কার্তিক ১৪২৭
  • ||

পুত্রহত্যার বিচার দেখার ‘সৌভাগ্য’ হয়নি অভিজিতের বাবার

প্রকাশ:  ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০২:১২ | আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০২:২৩
নিজস্ব প্রতিবেদক

মুক্তমনা ব্লগের প্রতিষ্ঠাতা ও বিজ্ঞানবিষয়ক লেখক অভিজিৎ রায়ের নৃশংস হত্যাকাণ্ডের পাঁচ বছর পূর্ণ হয়েছে। বাংলা একাডেমির একুশে বইমেলা থেকে ফেরার পথে ২০১৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ফুটপাতে তাঁকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এসময় দুবৃত্তদের হামলায় জথম হন তার স্ত্রী, অল্পের জন্য তিনি প্রাণে বেঁচে যান।

এ ঘটনায় রাজধানীল শাহবাগ থানায় অভিজিৎ রায়ের বাবা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক অজয় রায় বাদী হয়ে মামলা করেন। এই হত‌্যাকাণ্ডের বিচার শেষ হয়নি পাঁচ বছরেও। পুত্রহত্যার বিচার দেখার সুযোগ পাননি বাবা। মামলার বাদী হিসেবে গত বছর ২৮ অক্টোবর অজয় রায় আদালতে সাক্ষ্য দেন। এরপরই ওই বছরের ৯ ডিসেম্বর তিনি মারা যান।

অভিজিৎ হত্যা মামলার তদন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম এই হত্যাকাণ্ডে আল-কায়েদাপন্থী জঙ্গিসংগঠন আনসার আল ইসলামের সম্পৃক্ততা খুঁজে পায়। মামলা দায়েরের চার বছর পর ১১ জনকে আসামি করে এ মামলায় অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশ।

এ মামলার আসামি করা হয়- বরখাস্তকৃত মেজর সৈয়দ জিয়াউল হক জিয়া, আকরাম হোসেন ওরফে হাসিব ওরফে আবির ওরফে আদনান ওরফে আবদুল্লাহ, আবু সিদ্দিক সোহেল (সাংগঠনিক নাম সাকিব ওরফে সাজিদ ওরফে শাহাব), মোজাম্মেল হুসাইন ওরফে সায়মন (সাংগঠনিক নাম শাহরিয়ার), আরাফাত রহমান (সাংগঠনিক নাম সিয়াম ওরফে সাজ্জাদ ওরফে শামস্) ও শাফিউর রহমান ফারাবী। আসামিদের মধ্যে প্রথম দুজন পলাতক আছেন। অপর আসামিরা কারাগারে আছেন।

ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মজিবুর রহমানের আদালতে অভিজিৎ হত্যা মামলা বিচারাধীন।বর্তমানে মামলাটি সাক্ষ্যগ্রহণের পর্যায়ে রয়েছে। সর্বশেষ গত ১৯ ফেব্রুয়ারি মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের দিন ধার্য করা ছিল। ওই দিন তিন পুলিশ কর্মকর্তা রমনা থানার এসআই মজিবর রহমান, শাহবাগ থানার এসআই সোহেল রানা এবং এএসআই খলিলুর রহমান সাক্ষ্য দিতে আদালতে হাজির হন। কিন্তু বিচারক ছুটিতে থাকায় আগামী ২ মার্চ মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ ধার্য করা হয়।

মামলা সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট ট্রাইব্যুনালের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর গোলাম ছারোয়ান খান জাকির বলেন, ‘চার বছর লেগেছে মামলার তদন্তে। এরপর মামলা আমাদের আদালতে এসেছে। রাষ্ট্রপক্ষ থেকে সাক্ষীদের হাজির করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত ১০ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে। আশা করছি, এ বছরই মামলাটির বিচার শেষ হবে।’

এ হত্যাকাণ্ডের বিচার প্রসঙ্গে অভিজিৎ রায়ের পরিবারের অভিমত জানতে চেয়ে যোগাযোগ করা হলে তারা কথা বলতে রাজি হননি।

অভিজিৎ হত্যা,অধ্যাপক অজয় রায়,অভিজিতের বাবা,মুক্তমনা ব্লগ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close