• রোববার, ২৯ মার্চ ২০২০, ১৫ চৈত্র ১৪২৬
  • ||

বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার শিল্পীদের নিয়ে চিত্রশিল্প প্রদর্শনী

প্রকাশ:  ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২০:৫৯
নিজস্ব প্রতিবেদক

জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার বিশিষ্ট শিল্পীদের অংশগ্রহণে শুরু হলো ‘মুজিব শতবর্ষ’ শীর্ষক চিত্রকলা প্রদর্শনী।

শনিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় রাজধানীর জাতীয় জাদুঘরের নলিনীকান্ত ভট্টশালী গ্যালারিতে এই প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. এম আবদুল মোমেন। প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে সোসাইটি ফর প্রমোশন অব বাংলাদেশ আর্ট (এসপিবিএ)

সম্পর্কিত খবর

    উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ, বিশিষ্ট চিত্রশিল্পী হাশেম খান, শিল্পী শাহাবুদ্দিন আহমেদ, এসপিবিএ এবং স্কয়ার এর প্রধান অঞ্জন চৌধুরীসহ দুই দেশের বিশিষ্ট শিল্পী ও কূটনীতিকরা।

    পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, শিল্পীদের কোনো ভৌগোলিক পরিধি নেই। সারাবিশ্বের তারা চিরঞ্জীব হয়ে থাকেন বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন।

    তিনি বলেন, ‘আমরা গতকাল আমাদের অমর একুশে ফেব্রুয়ারি উদযাপন করেছি। এরপর দিনই চিত্রপ্রদর্শনী, এটাতো বিরাট আয়োজন। বাংলাদেশ এবং শ্রীলঙ্কা উভয় দেশের যারা সৃজনশীল, ক্রিয়েটিভ আর্টিস্ট তাদের যৌথ একটি চিত্রপ্রদর্শনী হচ্ছে। শিল্প একটা বড় রকমের বহিঃপ্রকাশ, এর আবেদন সার্বজনীন। শিল্পীর তুলির ছোট ধারার মধ্যে শক্তিশালী প্রভাব প্রকাশ পায়, সেটা আমরা দেখেছি। এখানে বাংলাদেশে এবং শ্রীলঙ্কার আর্টিস্টদের ছবি দেখলাম। তাদের মধ্যে নির্দিষ্ট বৈচিত্র্য আছে।’

    তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতিতে পিপল টু পিপল আমরা অধিকতর দাঁড়াতে চাই। তাহলে আমাদের মধ্যে হিংসাবিদ্বেষ দূর হয়ে যাবে।’

    মন্ত্রী বলেন, ‘বিশেষ করে এই চিত্রপ্রদর্শনী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে উৎসর্গ করায় আয়োজকদের আমি ধন্যবাদ জানাই।’

    সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেন, বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে অনেক কিছুতেই মিল আছে। দুটি দেশের অবস্থান প্রায় পাশাপাশি হওয়ায় মিল আরো বেশি। সেদিক থেকে এই সাংস্কৃতিক আদান-প্রদান অব্যাহত থাকবে, এটাই প্রত্যাশা।

    শিল্পী শাহাবুদ্দিন আহমেদ বলেন, প্রদর্শনীর সব ছবিগুলোই সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন কাজ। আমাদের অনেক বড় কাজ করলেই হবে না, একইসঙ্গে আমাদের শেকড়কেও ধরে রাখতে হবে।

    অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন অঞ্জন চৌধুরী ও চিত্রশিল্পী হাশেম খান।

    প্রদর্শনীতে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার ১৮ জন শিল্পীর মোট ৭২টি শিল্পকর্ম প্রদর্শিত হচ্ছে। প্রদর্শনী চলবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

    পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

    মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
    • সর্বশেষ
    • সর্বাধিক পঠিত
    close