• বৃহস্পতিবার, ০২ এপ্রিল ২০২০, ১৯ চৈত্র ১৪২৬
  • ||

সিটি নির্বাচন নিয়ে উত্তপ্ত সংসদ, বিএনপির ওয়াকআউট

প্রকাশ:  ১৪ জানুয়ারি ২০২০, ২১:৪১
নিজস্ব প্রতিবেদক

আসন্ন ঢাকার দুই সিটি নির্বাচন নিয়ে জাতীয় সংসদে উত্তপ্ত বিতর্ক হয়েছে সরকারী ও বিরোধীদলের সাংসদদের মধ্যে। বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ সিটি নির্বাচনকে প্রহসনে পরিণত করতে সরকারি দলকে দায়ী করেন।

জবাবে সরকারি দলের আমির হোসেন আমু ও তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, মিথ্যাচার ও মিথ্যা অভিযোগ করে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করা বিএনপির অভ্যাসে পরিণত হয়েছে।

কারণ এ দলটির জন্মই হচ্ছে গণতান্ত্রিক রাজনীতি ও নির্বাচনবিরোধী রাজনৈতিক দর্শন নিয়ে। বিএনপি এখন বাংলাদেশ নেগেটিভ পার্টিতে পরিণত হয়েছে।

আওয়ামী লীগের প্রবীণ সাংসদরা বলেন, পৃথিবীর কোনো দেশে আছে নির্বাচনের পর বিরোধী দল বলছে ভোট অবাধ নিরপেক্ষ হয়েছে, আমরাও বলিনি, স্বীকার করছি।

দুই পক্ষের উত্তপ্ত বিতর্কের মধ্যে বিএনপির সংসদ সদস্যরা ওয়াকআউট করেন।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে মঙ্গলবার সংসদে মাগরিবের নামাজের বিরতির পর পয়েন্ট অব অর্ডারে এ নিয়ে দীর্ঘ উত্তপ্ত বিতর্ক শুরু হয়।

রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর সাধারণ আলোচনাকালেও সরকারি দলের সংসদ সদস্যরা বিএনপির নির্বাচন নিয়ে ষড়যন্ত্র-চক্রান্তের তীব্র সমালোচনা করেন।

অনির্ধারিত বিতর্কের সূত্রপাত করে বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ প্রশ্ন রেখে বলেন, আদৌ কী ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনে জনগণ অবাধে ভোট দিতে পারবে? সরকার কী অবাধ নির্বাচন নিশ্চিত করতে পারবে? কিন্তু বাস্তবে দেখছি অতীতের মতো নির্বাচনের নামে প্রহসনের প্রচেষ্টা চলছে।

তিনি বলেন, ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনে মন্ত্রী-এমপিদের অংশগ্রহণ করা নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। সরকারি দল আওয়ামী লীগ নির্বাচন পরিচালনার জন্য যে দু’জন নেতাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে, তা সম্পূর্ণ আইন বহির্ভূত। চট্টগ্রামের নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ। সেখানে নির্বাচনের নামে আগের রাতেই অনেক কিছু হয়েছে।

তাই আমাদের আশঙ্কা, দুই সিটি নির্বাচনে কী জনগণ ভোট দিতে পারবে? আমাদের নির্বাচনী মিছিল থেকে নেতাকর্মীদের ধরে নিয়ে বলা হচ্ছে পকেটমার, চাঁদাবাজ ইত্যাদি। এভাবে কতদিন চলবে? সিটি নির্বাচন কী আদৌ সুষ্ঠু হবে? আমরা এ ব্যাপারে সরকারের তরফে স্পষ্ট বক্তব্যে চাই।

জবাব দিতে গিয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারের দায়িত্বপ্রাপ্ত তোফায়েল আহমেদ বলেন, বিএনপি যতক্ষণ পর্যন্ত নির্বাচনে না জিতবে, ততক্ষণ পর্যন্ত নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না। নির্বাচনের আগে মিথ্যাচার ও নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করা বিএনপির ট্রেডিশনে পরিণত হয়েছে। অথচ এখনই সংসদে দাঁড়িয়ে বিএনপির এমপি হারুন সাহেব স্বীকার করলেন, তাঁর এলাকায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে, বিএনপি প্রার্থী বিজয়ী হয়েছে।

আবার সিটি নির্বাচন না হওয়ার আগেই বলছেন উল্টো কথা। ঢাকার দুই সিটি নির্বাচন অবশ্যই সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও দৃঢ়ভাবে জানিয়েছেন, সিটি নির্বাচন অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচব হবে।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে নির্বাচনের নামে প্রহসনের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ নয়, বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার কাছে ভোট মাপার মেশিন রয়েছে। ২০০১ সালে নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে খালেদা জিয়া বলেছিলেন, আওয়ামী লীগ ৩০টির বেশী আসন পাবে না। কিন্তু ২০০৯ সালের নির্বাচনে বিএনপিই মাত্র ২৯টি আসনে বিজয়ী হয়েছে। খালেদা জিয়ার কাছে ভোট মাপার মেশিন রয়েছে।

তিনি বলেন, গাজীপুর ও সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি জিতেছিল। কিন্তু যতক্ষণ পর্যন্ত এ দুটি নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা হয়নি, ততক্ষণ বলেছে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না, সরকার ভোট ডাকাতি করছে! তোফায়েল আহমেদ বলেন, মিথ্যাচার ও মিথ্যা অভিযোগ করা বিএনপির একটি ট্রেডিশনে পরিণত হয়েছে।

নির্বাচনের বিধিতে রয়েছে- সুবিধাভোগী ও অতিগুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। আমরা কী সুবিধাভোগী? আমি মন্ত্রী ছিলাম, এখন এমপি।

ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ কী গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি নন? এরশাদের আমলে মওদুদ সাহেব প্রধানমন্ত্রী, ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট, বিএনপির আমলে একাধিকবার গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী ছিলেন। অথচ ব্যারিস্টার মওদুদ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি নন, আমি এবং আমির হোসেন আমুরা গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি! তিনি বলেন, মুজিববর্ষে উপলক্ষে বিভিন্ন ওয়ার্ড, থানায় আমরা যাব, বঙ্গবন্ধুর পক্ষে কথা বলবো, ভোট চাইবো না। আর সমন্বয়ক বলে কোন কিছু নেই। আমরা মুজিববর্ষের কর্মসূচিতে গিয়ে রাজনৈতিক বক্তব্য রাখবো, প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাইবো না।

এ বিষয়ে ফ্লোর নিয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারের দায়িত্বপ্রাপ্ত আমির হোসেন আমু বলেন, জন্মলগ্ন থেকেই বিএনপি নির্বাচন নিয়ে নেগেটিভ রাজনীতি করে। নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করা মানে রাজনীতিকে প্রশ্নবিদ্ধ করা। এটা করেই বিএনপি সবসময় অগণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থার স্বপ্ন দেখে। তিনি বলেন, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করার পর থেকেই বিএনপি বলে আসছে নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে না।

আসলে নির্বাচন নয়, নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চক্রান্ত করছে বিএনপি। তিনি বলেন, বিএনপির প্রত্যেকটি কর্মকান্ডই হচ্ছে রাজনীতি ও নির্বাচনবিরোধী। একদিকে তারা রাজনীতির কথা বলবে, অন্যদিকে নির্বাচনী বিরোধী বক্তব্যে দিচ্ছে- এটা বিএনপির স্ববিরোধীতা। বাস্তবে বিএনপি গণবিরোধী ও জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে। এ কারণেই তারা প্রতিটি নির্বাচনে কারচুপি দেখে। বিএনপির দলীয় সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ বলেন, নির্বাচন কি আসলে হবে, নাকি প্রহসন চলবে? সারাদেশে নির্বাচনের ব্যাপারে সরকার বার বার বলছেন যে আপানার নির্বাচনে আসেন শেষ পর্যন্ত থাকেন। আমরা শেষ পর্যন্ত থাকব আমাদের মিছিল থেকে লোক ধরে নিয়ে বলবেন ছিনতাইকারী, পকেটমার। মিছিল থেকে ধরে নিয়ে গায়েবি মামলা দেবেন। এটা কত দিন চলবে।

তিনি বলেন, দেশে কি গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে পারবো না। আমরা কি দেশে নির্বাচনের পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে পারবো না। এটি সৎ ইচ্ছার ব্যাপার। তার প্রমাণ আমার এলাকায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন হয়েছে একেবারে শান্তিপূর্ণ, সেখানে কোন ধরনের সহিংসতা হয়নি। মানুষ শান্তিপূর্ণভাবে ভোট দিয়েছে। এটা সৎ ইচ্ছার ব্যাপার।

চট্টগ্রামে ২২ শতাংশ ভোট কাস্ট হয়। কাজেই সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যে বির্তক তৈরি হয়েছে মন্ত্রী, এমপিদের অংশগ্রহণে কোনো ঘরোয়া সভার করার সুযোগ নাই। আপনার আইন পাস করেছেন আইন করে আবার আপনারাই দাবি জানাচ্ছেন নির্বাচন কমিশনের কাছে। পুলিশের ঘাড়ে কয়টা মাথা আছে সিনিয়র এমপি-মন্ত্রীরা যদি পুলিশকে বলে এটা কর তার বাইরে পুলিশ কোনো কাজ করতে পারে?

তিনি বলেন, জনপ্রিয়তা যাচাই করতে হলে অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে প্রমাণ করুন। পরে তারা সংসদ থেকে ওয়াক আউট করেন।

পূর্বপশ্চিমবিডি/ওআর

সিটি নির্বাচন,সংসদ,বিএনপি,আওয়ামী লীগ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close