• শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
  • ||

আদালতের ঘাড়ে বন্দুক রেখে, ইচ্ছেমতো রায় দেওয়াচ্ছে সরকার: ভিপি নুর 

প্রকাশ:  ২০ অক্টোবর ২০১৯, ১৭:৫৭ | আপডেট : ২০ অক্টোবর ২০১৯, ১৮:৩৬
নিজস্ব প্রতিবেদক

পাসপোর্টের জন্য বিভিন্ন কর্মকর্তার কাছে গত চার মাস ধরে ঘুরেও পাসপোর্ট না পাওয়ায় ক্ষোভ জানিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নুর।

সাধারণ প্রতিবাদী মানুষের চলাফেরাকে সরকার প্রতিনিয়ত সংকুচিত করার পাঁয়তারা করছে অভিযোগ করে তিনি বলেছেন, সরকার নৈতিকভাবে দুর্বল হওয়ায় ছাত্রদের প্রতিনিধিকে পাসপোর্ট দিতে ভয় পাচ্ছে। পাসপোর্ট পাওয়া একটি মানুষের মৌলিক অধিকার। এরপরও সরকার পাসপোর্ট না দিয়ে আমার চলাফেরা নিয়ন্ত্রণ করতে চায়।

এখন আদালতের ঘাড়ে বন্দুক রেখে, বিচার বিভাগকে প্রভাবিত করে নিজেদের ইচ্ছেমতো রায় দেওয়াচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

রোববার (২০ অক্টোবর) সুপ্রিম কোর্টে ল’ রিপোর্টার্স ফোরাম আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় নুরের আইনজীবী মোহসীন রশিদ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে সকালে পাসপোর্ট চেয়ে নুরুল হক নুরের করা রিট আবেদনের ওপর আগামী বছর জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে শুনানির জন্য দিন নির্ধারণ করেন বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলামের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চ।

বিদেশে যেতে পাসপোর্ট না পাওয়া প্রসঙ্গে নুর বলেন, ‘বিষয়টি স্পষ্ট যে, দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের শিক্ষার্থীদের একজন প্রতিনিধি হওয়ায় প্রতিনিয়ত ছাত্রলীগের হামলার শিকার হতে হচ্ছে। একটি ঘটনারও বিচার হয়নি। বাইরের দেশের সঙ্গে বা আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বা বাইরে কোনও ইউনিভার্সিটির সঙ্গে আমার যেন কোনও কানেকশন না থাকে, সে জন্য সরকার আমার চলাফেরা নিয়ন্ত্রণ করতে চায়।’

নুর আরও বলেন, ‘আমার পাসপোর্ট এখন দরকার। আমাকে জানুয়ারিতে দেবে। অর্থাৎ ভিপির দায়িত্বটা শেষ হওয়ার দ্বারপ্রান্তে গিয়ে দেবে। দীর্ঘদিন ধরে যেমন পাসপোর্ট অফিস তালবাহানা করেছে, আজকে দেবে না, কালকে আসতে বলেছে, এভাবে ঘুরিয়েছে আমাকে। এখন আবার আদালতে ঘোরাচ্ছে। হয়তো মেয়াদ শেষ (ভিপির মেয়াদ) হওয়ার পর পেতে পারি। এতে স্পষ্ট যে আদালত স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছেন না, আদালতকে প্রভাবিত করা হচ্ছে। আজ সাধারণ মানুষ-ছাত্র কেউ ন্যায়বিচার পাচ্ছে না।’

তিনি বলেন, আমি মনে করি, এমনটা হওয়ার কারণ সরকারের স্বৈরতান্ত্রিক মনোভাব। সরকারের উচ্চপর্যায়ের কনসার্নে আমার পাসপোর্ট দেয়া হচ্ছে না। এটা কোনোভাবেই কাম্য হতে পারে না।

এ সময় আইনজীবী মহসীন রশিদ বলেন, পাসপোর্ট জরুরি বিষয়। জরুরি ভিত্তিতে শুনানির জন্যই আমরা আদালতের শরণাপন্ন হয়েছিলাম। কিন্তু আদালত তা করলেন না। এতে আমার আশঙ্কা, সরকার হয়তো ভিপি নুরকে পাসপোর্ট দিতে চায় না। জানুয়ারিতে যদি আবার সরকার সময় চায়, আদালত যদি সময় দেন, তাহলে হয়তো ভিপি নুরের মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে।

উল্লেখ্য, সময়মতো পাসপোর্ট না পাওয়ায় গত ১ আগস্ট হাইকোর্টে একটি রিট দায়ের করেন নুর হোসেন নুর। সে রিট আবেদনটি রবিবার (২০ অক্টোবর) হাইকোর্টের কার্যতালিকায় উঠে এলেও শুনানির জন্য আগামী বছর জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে দিন নির্ধারণের আদেশ দেন আদালত।

পূর্বপশ্চিমবিডি/ওআর

ভিপি নুর,সরকার,আদালত,পাসপোর্ট
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত