• রোববার, ১২ জুলাই ২০২০, ২৮ আষাঢ় ১৪২৭
  • ||

মালিক-শ্রমিকদের অযৌক্তিক দাবির মুখে ‘সড়ক পরিবহন আইন’ না করার আহ্বান

প্রকাশ:  ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৯:৪৩ | আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২০:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

মানুষের দীর্ঘ দিনের দাবি ‘সড়ক পরিবহন আইন- ২০১৮’ বাস্তবায়নের পূর্বেই সড়ক পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের অযৌক্তিক দাবি-দাওয়া ও চাপের মুখে আইনটি সংশোধনের উদ্যোগের সংবাদে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।

জনস্বার্থবিরোধী, অন্যায্য ও আত্মঘাতী চাপে প্রভাবিত না হয়ে সড়ক পরিবহন ব্যবস্থায় ন্যায়বিচার, সুশাসন ও শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা পরিপন্থী উদ্যোগ প্রতিহতের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি।

সম্পর্কিত খবর

    গত ২৫ সেপ্টেম্বর সচিবালয়ে পরিবহন মালিক ও শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে উপ-কমিটির সভা শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ও আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সড়ক পরিবহন আইন সংশোধনের সুপারিশ সম্বলিত প্রতিবেদন জাতীয় সড়ক নিরাপত্তা কাউন্সিলের কাছে দাখিল করতে যাচ্ছেন বলে জানান।

    পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের দাবির মুখে আইনটি বাস্তবায়নের আগেই ‘সংশোধন’ হচ্ছে- এমন আশঙ্কাও প্রকাশ পায়। এ আশঙ্কা প্রসঙ্গে ওই সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘আমরা আইনটি যখন তৈরি করেছি, তখন তাদের (পরিবহন মালিক-শ্রমিক) কিছু দাবি-দাওয়া ছিল। সেই দাবি-দাওয়া সম্পূর্ণভাবে আইনে আসেনি, এটি তাদের ডিমান্ড ছিল। সেজন্য পাস হওয়া আইন প্রয়োগের কোথায় সমস্যা হচ্ছে, কেন হচ্ছে সেটা আমরা দেখার জন্য বসেছি।’

    অর্থাৎ, আইনটি আবার সংশোধন হতে পারে কি-না, জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘হ্যাঁ, এটা হতে পারে। যদি জাতীয় সড়ক নিরাপত্তা কাউন্সিল মনে করে আইনটি সংশোধন হতে পারে তাহলে তারা প্রক্রিয়া অনুসরণ করে সংসদে নিয়ে যাবে।’

    গত বছরের ৮ অক্টোবর ‘সড়ক পরিবহন আইন- ২০১৮’ এর গেজেট জারি হয়। তবে পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের বাধার মুখে এখনও আইনটি বাস্তবায়ন করেনি সরকার। ফলে সড়কেও শৃঙ্খলা ফেরানো যাচ্ছে না।

    গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ অনুযায়ী, পরিবহন মালিক ও শ্রমিক সংগঠনের অযৌক্তিক দাবি-দাওয়া ও চাপে সরকার যদি নতিস্বীকার করে তা হবে আদালত অবমাননা ও জনস্বার্থের পরিপন্থী। বিশেষ করে জাতীয় সড়ক নিরাপত্তা পরিষদ কর্তৃক গঠিত কমিটির বৈঠকে মালিক-শ্রমিক সংগঠনের পক্ষ থেকে উপস্থাপন করা দাবি-দাওয়া সড়ক পরিবহন আইন ভঙ্গের জন্য সাজার মেয়াদ কমানোর দাবিটি সরাসরি সর্বোচ্চ আদালতের রায়ের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। এছাড়া আইনের সব ধারা জামিনযোগ্যসহ অর্থদণ্ড হ্রাস করা ও ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার শিক্ষাগত যোগ্যতা পঞ্চম শ্রেণি করা, ইত্যাদি অধিকাংশ দাবি-দাওয়া সড়ক পরিবহন ব্যবস্থায় সুশাসন, ন্যায়বিচার, জননিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠায় কোনোভাবেই সহায়ক হবে না।’ আজ শনিবার এক বিবৃতিতে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন।

    গত বছরের মাঝামাঝি নিরাপদ সড়কসহ সড়ক পরিবহন খাতে জবাবদিহি, আইনের শাসন ও ন্যায়বিচারের দাবিতে শিশু-কিশোর ও তরুণ শিক্ষার্থীদের নজিরবিহীন আন্দোলনের মুখে সরকার ‘সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮’ পাস করলেও পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের বাধার মুখে তা বাস্তবায়ন করতে ব্যর্থ হয়েছে। একই সঙ্গে পরিবহন মালিক-শ্রমিক পক্ষ আইনটির বিরোধিতা করে তা বাতিলের দাবিতে জনদুর্ভোগ সৃষ্টিকারী বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে উল্লেখ করে ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘এ পর্যায়ে তাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে আইনটির উল্লেখিত পরিবর্তন এ খাতে নৈরাজ্য নিরসনে গৃহীত সব অগ্রগতিকেই হুমকির মুখে ফেলে দেবে। তাই আমরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে এ ধরনের নতিস্বীকার করা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানাই।’

    পূর্বপশ্চিমবিডি/ এআর

    মালিক-শ্রমিকদের চাপে ‘সড়ক পরিবহন আইন’ না করার আহ্বান
    মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
    • সর্বশেষ
    • সর্বাধিক পঠিত
    close