Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • রোববার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৭ আশ্বিন ১৪২৬
  • ||

বাবার হাত ধরে কারাগার থেকে বেরিয়ে এলেন মিন্নি

প্রকাশ:  ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৭:৪৮ | আপডেট : ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৮:৩১
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট icon

সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে আয়শা আক্তার মিন্নি ৪৮ দিন পর বাবার হাত ধরে কারাগার থেকে বেরিয়ে এলেন। এসময় গণমাধ্যমকমীরা তার ছবি তোলেন কিন্তু তাকে কোনো প্রশ্ন করেননি। কারণ আদালত বলছেন, মুক্তির পর গণমাধ্যমের সঙ্গে মিন্নি কোনো কথা বললে তার জামিন বাতিল হবে।

সোমবার (৩ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৪টায় কারাগার থেকে বের হওয়ায় সময় উপস্থিত ছিলেন মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোর ও তার আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম এবং অ্যাডভোকেট মোস্তফা কাদের। মিন্নি কারাফটক থেকে বের হওয়ার দেড় মিনিটের মাথায় অ্যাম্বুলেন্সে ‍উঠে বাড়ির উদ্দেশে স্থান ত্যাগ করেন।

মিন্নি কারাগার থেকে মুক্তি পাওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়লে কারাগার প্রাঙ্গণে উপস্থিত হয় উৎসুক জনতা। কারাগার প্রাঙ্গণে উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সদস্যরাও।

এর আগে বেলা ১২টার দিকে হাইকোর্টের দেওয়া মিন্নির জামিনাদেশ বরগুনা আদালতে পৌঁছায়। হাইকোর্টের আদেশের সই করা কপি বরগুনার আদালতে এসে পৌঁছানোর সঙ্গে সঙ্গেই মিন্নির পক্ষে জামিননামা (বেলবন্ড) দাখিল করেন তার আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম। এরপর সব দাফতরিক কাজ শেষ করে বিকেল ৩টা ৫০ মিনিটে জামিনাদেশ নিয়ে কারাগারে যান মিন্নির আইনজীবী আসলাম।

গত ২৬ জুন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত শরীফকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। যার ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হলে দেশে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়। বহুল আলোচিত বরগুনার চাঞ্চল্যকর রিফাত শরিফ হত্যা মামলার প্রধান সাক্ষী থেকে আসামি হয়েছিলেন মিন্নি ।

এ ঘটনায় রিফাতের বাবা আবদুল হালিম শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করেন। তাতে প্রধান সাক্ষী করা হয় রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে। কিন্তু মিন্নির শ্বশুর মামলার ১৮ দিন পর গত ১৩ জুলাই এই হত্যাকাণ্ডে মিন্নি জড়িত এমন দাবি করে সংবাদ সম্মেলন করার পর মামলাটির তদন্ত নাটকীয় মোড় নেয়। পরে এ মামলায় গ্রেফতার করা হয় মিন্নিকে। এ মামলায় এখন পর্যন্ত গ্রেফতার হওয়া সবাই আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। গত ২ জুলাই এ মামলার প্রধান আসামি সাব্বির আহম্মেদ ওরফে নয়ন বন্ড পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হন।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এআর

মিন্নি,minni
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত