• বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
  • ||

শেষ মুহূর্তে কেনাকাটার ধুম

প্রকাশ:  ৩১ মে ২০১৯, ১৫:৩৭ | আপডেট : ০১ জুন ২০১৯, ০১:১৬
কে এম জাহেদ
নিউমার্কেটে ক্রেতাদের ভিড়। ছবি: পূর্বপশ্চিম

মঙ্গলবার চাঁদ দেখা গেলে বুধবার (৫ জুন) পবিত্র ঈদ-উল ফিতর। তাই রাজধানীতে শেষ মুহুর্তের কেনাকাটার ধুম পড়ে গেছে। শুক্রবার (৩১ মে) দুপুরের পর থেকেই শপিংমল গুলোতে মানুষের ঢল নেমেছে।

এমনিতেই দিন-রাত সমানতালে চলছে বেচাকেনা। বিপনী বিতানগুলোতে তাই এখন তিল ধারনের ঠাঁই নেই। যেন ক্রেতা-বিক্রেতার ওপর রাজ্যের ব্যস্ততা ভর করেছে।

তবে ঈদ বাজার এবারও দখল নিয়েছে ভারতের পোশাক। বুটিক হাউজগুলো ফ্যাশনের নতুনত্ব তুলে ধরলেও ক্রেতারা ছুঁটছেন নেট ও জর্জেটের ওপর কাজ করা ভারতীয় ফ্যাশন প্যাকেজের পেছনেই। চায়নার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে রয়েছে শিশুদের ভারতীয় পোশাক।

নিউমার্কেট ঘুরে দেখা যায়, মেয়েদের পোশাকের দোকানে তুলনামূলক ভিড় বেশি। তাদের সাথে কথা বলতে চাইলেই বলে দিচ্ছেন, ব্যস্ততার কারণে কথা বলার মতো সময় নেই। একই দৃশ্য চন্দ্রিমা ও গাউছিয়া এলাকায়ও। নিউমার্কেট, গাউছিয়া মার্কেটসহ আশপাশের ফুটপাথেও মানুষের পদচারণা।

সব বয়সী মানুষের কয়েকশ রকমের পোষাক, ব্যাগ, শার্ট, পাঞ্জাবী, জুতো ও প্রসাধনীর নতুন নতুন কালেকশন এসেছে বাজারে। বিক্রেতারা বলছেন অন্যদিনের তুলনায় শুক্রবারে ঈদ বাজার বেশী প্রাণবন্ত। আর, যতক্ষন ক্রেতা থাকবেন ততক্ষনই শপিংমলগুলো খোলা রাখা হবে, এমনটাই জানালেন বিক্রেতারা।

নিউমার্কেটের বিক্রেতারা জানালেন, ঈদের আগ পর্যন্ত তাঁরা তাঁদের দোকান দিন-রাত খোলা রাখবেন। মোট কথা, যতক্ষণ ক্রেতা, ততক্ষণ দোকান খোলা থাকবে।

শুধু নিউমার্কেট নয়, রাজধানীর বসুন্ধরা শপিং মল, মোহাম্মদপুরের কৃষি মার্কেট, তাজমহল রোডের বিভিন্ন বিপণিবিতান, গুলশানের জারা ফ্যাশন মল থেকে শুরু করে সব জায়গার চিত্র প্রায় এক। এমনকি গলিতে গড়ে ওঠা বিভিন্ন পোশাকের দোকানের শাটার বন্ধ হচ্ছে না বলে বিক্রেতারা জানালেন। অন্যদিকে রাতে কেনাকাটা করে বাড়ি ফিরতেও আগের তুলনায় ঝক্কি-ঝামেলা কিছুটা কমেছে। ব্যক্তিগত গাড়ি না থাকলেও অসুবিধা নেই, উবার, পাঠাও তো হাতের কাছেই আছে। আর প্রায় প্রতিটি শপিং মলেই ফুড কোর্ট আছে।

নিউমার্কেট আবর ফ্যাশনের মালিক রফিক বলেন, শেষ মুহুর্তে বরাবরের মতো এবারো দোকানে মানুষের ঢল নেমেছে। তাই ভীড় সব সময়ের। এখনও অনেকেই পোশাকের কেনাকাটা শেষ করতে পারেনি, আর শেষ দিকে কিছু কিনতেই হবে এমন ভেবেও অনেক ক্রেতারা আসছেন সকাল থেকেই দোকানে ভীড় জমাচ্ছেন বলে জানান।

এদিকে, ঈদের শেষ মুহুর্তের কেনাকাটায় শুক্রবার (৩১ মে) শুধু পোশাক ও জুতা বা কসমেটিকসহ ভীড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে আতর, টুপি, সুরমাসহ বিভিন্ন প্রসাধনীর দোকানগুলোতেও।

প্রতি টুপি দশ টাকা থেকে ২শ’ টাকা পর্যন্ত বিক্রি করা হচ্ছে। একই সঙ্গে শেষ মুহুর্তের ঈদ বাজারে দই, মিষ্টি সেমাইসহ নিত্য প্রয়োজনীয় খাবার, মশলা, কনফেকশনারিসহ বিভিন্ন ধরনের ক্রেতায় মুখরিত হয়ে উঠেছে।


পিপিবিডি/কেএম

ঈদবাজার,কেনাকাটা,শপিংমল,পবিত্র ঈদ-উল ফিতর,রাজধানীর নিউমার্কেট
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত