• মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
  • ||

'বেঁচে থাকলে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণে কাজ করতেন শেখ রাসেল'

প্রকাশ:  ২৮ অক্টোবর ২০২১, ২৩:৪৩
নিজস্ব প্রতিবেদক

বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের কথা উল্লেখ করে দৈনিক মানবকণ্ঠের সম্পাদক দুলাল আহমদ চৌধুরী বলেছেন, বেঁচে থাকলে তিনি আজ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের ‘সোনার বাংলা’ বিনির্মাণে শামিল হতেন।

বৃহস্পতিবার (২৮ অক্টোবর) রাজধানীর মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় কলেজে শেখ রাসেল শিশু দিবস-২০২১ উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

দুলাল আহমদ চৌধুরী বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুসহ পরিবারের অন্যান্য সসদ্যদের সঙ্গে নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার হন মাত্র ১১ বছর বয়সী শিশু শেখ রাসেল। পৃথিবীতে যুগে যুগে নানা রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড ঘটলেও এমন নির্মম, নিষ্ঠুর এবং পৈশাচিক হত্যাকাণ্ড কোথাও ঘটেনি।

তিনি বলেন, শিশু রাসেলকে হত্যা করার মধ্য দিয়ে ঘাতকরা মানব সভ্যতার ইতিহাসে জঘন্যতম অপরাধ করেছে। তারা শুধু রাসেলের জীবনকেই কেড়ে নেয়নি, সেই সঙ্গে ধ্বংস করেছে তার সব অবিকশিত সম্ভাবনাও। তিনি বেঁচে থাকলে আজ শামিল হতেন বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের ‘সোনার বাংলা’ বিনির্মাণে।

এসময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর সাবেক তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, রাজনৈতিক পরিবারে শেখ রাসেলের জন্ম। তাকে নিয়ে অসীম সম্ভাবনা ছিল । তিনি বেঁচে থাকলে বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য উত্তরসূরি হতেন। ঘাতকরা বুঝতে পেরেছিল রাসেল বেঁচে থাকলে আরেকটি ইতিহাসের জন্ম হবে। তাই তাকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়া হয়েছে।

কলেজের অধ্যক্ষ সৈয়দ জাফর আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় ইকবাল সোবহান চৌধুরী আরো বলেন, বাঙালি জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের সুদক্ষ নেতৃত্বের কারণে আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি। ১৯৭৫ সালের ২৫ আগস্ট শেখ রাসেলসহ বঙ্গবন্ধুর পরিবারকে হত্যা করে আরেকটি কালো অধ্যায় রচনা করা হয়। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হলেও তিনি রয়েছেন মানুষের হৃদয়ে। তিনি ইতিহাসের মহানায়ক।

কলেজের অধ্যক্ষ সৈয়দ জাফর আলী বলেন, দেশ স্বাধীন না হলে আমাদের সামাজিক, অর্থনৈতিক, শিক্ষা, সমাজ ও সংস্কৃতির এত উন্নয়ন হতো না। দেশকে স্বাধীন করতে অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছেন জাতীর পিতা শেখ মুজিবুর রহমান। হাসিমুখে ভরণ করেছেন জেল-ঝুলুম।

কলেজের সহযোগী অধ্যাপক ফারুক উজ জামান ও শারমীন সুলতানার যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক অলিউল্লাহ মো. আজমতগীর, কলেজের গভর্নিং বডির সদস্য ব্রিগেডিয়ার নাজমুল হক, মুজাহিদুল ইসলাম ভূঁইয়া, মনিরুল ইসলাম শাহীন, কলেজের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এএইচএম অলিউল্লাহ, ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ফরহাদ হোসেন, ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আবু জাহিদ মো. জগলুল পাশা, স্টাফ কাউন্সিলের সম্পাদক এসএম রকিবুজ্জামান।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান ও শেখ রাসেল দিবস উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক শারমীনা পারভীন। সবশেষে দোয়া পরিচালনা করেন কলেজ মসজিদের ইমাম জাহিদুল ইসলাম জুয়েল।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এআই

শেখ রাসেল,দুলাল আহমদ চৌধুরী
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close