• বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৯ আশ্বিন ১৪২৭
  • ||

করোনাভাইরাস

যেভাবে মানসিক উৎকন্ঠা থেকে মুক্তি মিলবে

প্রকাশ:  ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪:৫৭ | আপডেট : ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৫:২২
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রতীকী ছবি

করোনাভাইরাস: মানসিক উৎকন্ঠা থেকে মুক্তি পেতে যা করতে পারেন

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে গত কয়েক মাসে আমাদের জীবনে যেসব নাটকীয় পরিবর্তন ঘটেছে, তাতে আমাদের মানসিক দুশ্চিন্তা যেন অনেক বেড়ে গেছে। এক নতুন সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, অভিভাবকরা বিশেষ করে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন তাদের সন্তানদের নিয়ে।

কোনটাকে আমরা মানসিক দুশ্চিন্তা বলবো? আর এই দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তির উপায় কী?

মানসিক উৎকন্ঠা বা দুশ্চিন্তা কি? যখন বলা হয়, কেউ মানসিক উৎকন্ঠা বা দুশ্চিন্তায় ভুগছেন, তার মানে এটা মানসিক চাপ বা কোন কিছু নিয়ে চিন্তিত হওয়ার চাইতে বেশি কিছু। আমরা সবাই কমবেশি কোন না কোন বিষয়ে চিন্তায় থাকি, বা মানসিক চাপে ভুগি। এগুলো মানুষের স্বাভাবিক প্রতিক্রিয়া। এরকম প্রতিক্রিয়া দেখানো ভালো।

কিন্তু কেউ যখন সারাক্ষণ দুশ্চিন্তায় থাকেন, যেটা রীতিমত ভীতিকর হয়ে উঠে এবং যা থেকে আর মুক্তি পাওয়া যায় না, তখন সেটাই আসলে মানসিক উৎকন্ঠা বা দুশ্চিন্তা। এই সমস্যা এতটাই তীব্র হয়ে উঠতে পারে যে এটি আপনার পুরো জীবন বিপর্যস্ত করে দিতে পারে, আপনার নিত্যদিনের স্বাভাবিক কাজকর্মে বিঘ্ন তৈরি করতে পারে।

এর ফলে আপনাকে সারাক্ষণই খুব চিন্তিত মনে হবে, আপনি ক্লান্তিতে ভুগবেন এবং কোন কিছুতেই মন বসাতে পারবেন না। আপনার ঘুমাতে অসুবিধা হবে এবং আপনি বিষন্ন বোধ করবেন।

প্রায়শই এমন কিছু লক্ষণ চোখে পড়বে, যার প্রভাব শরীরেও পড়বে। যেমন হৃদস্পন্দন বেড়ে যাওয়া, ঘন ঘন নিশ্বাস নেয়া, শরীর কাঁপা, ঘাম হওয়া, মাথা ঘোরা, ডায়ারিয়া এবং অসুস্থ বোধ করা।

মানসিক উৎকন্ঠার অনেক রকমফের আছে। কারও ক্ষেত্রে এটা হয়তো খুবই মৃদু, কারও ক্ষেত্রে এটি খুবই তীব্র হয়ে উঠতে পারে।

প্রতি দশ জনের একজন জীবনের কোন না কোন পর্যায়ে মানসিক দুশ্চিন্তায় বা কোন ধরণের ফোবিয়া বা ভীতিতে আক্রান্ত হবেন। কিন্তু অনেকেই এরজন্য চিকিৎসকের কাছে যান না।

কোথায় সাহায্য মিলবে? মানসিক দুশ্চিন্তায় ভোগা মানুষদের প্রথমেই উচিৎ নিজেই নিজেকে দুশ্চিন্তামুক্ত করার চেষ্টা করা। যুক্তরাজ্যের রয়্যাল কলেজ অব সাইক্রিয়াট্রিস্টসের পরামর্শ হচ্ছে, নিজেকে নিজে সাহায্য করার কিছু কৌশল আছে, প্রথমে সেটাই চেষ্টা করা উচিৎ। যেমন:

কোন বন্ধু বা আত্মীয়ের সঙ্গে কথা বলা

কোন সেল্ফ হেলপ গ্রুপ বা অনলাইন সাপোর্ট গ্রুপে যোগ দেয়া

রিল্যাক্সেশন বা শারীরিক-মানসিক শিথিলকরণের কৌশল শেখা

যোগ ব্যায়াম, শরীরচর্চা, বই পড়া এবং গান শোনা। এগুলো খুব সহায়ক হতে পারে

বিশেষজ্ঞরা বলেন, মদ পান এবং ধূমপান বন্ধ করলেও মানসিক উৎকন্ঠা অনেক কমে যায়।

এরপরও যদি দুশ্চিন্তা দূর না হয়, তখন অনেক ধরণের আত্মোন্নয়নমূলক (সেলফ হেল্প) বই আছে, সেগুলোর সাহায্য নেয়া যেতে পারে। এসব বইতে নানা ধরণের থেরাপির বর্ণনা আছে। যেমন, কগনিটিভ বিহ্যাভিয়ারাল থেরাপি (সিবিটি)। যুক্তরাজ্যে জাতীয় স্বাস্থ্য সেবার (এনএইচএস) মাধ্যমেও এসব থেরাপি নেয়া যায়। সূত্র: বিবিসি বাংলা

পূর্বপশ্চিমবিডি/ এনএন

করোনাভাইরাস
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

ঘটনা পরিক্রমা : করোনাভাইরাস

cdbl
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close