• শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭
  • ||

শুধু হোম কোয়ারেন্টাইন যথেষ্ট নয়

প্রকাশ:  ২৫ মার্চ ২০২০, ১০:৪০
নিজস্ব প্রতিবেদক

বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৮ হাজার ৮০৪ জনে দাঁড়িয়েছে। ১৯৭টি দেশের ৪ লাখ ২১ হাজার ১৮৭ জন আক্রান্ত হয়েছেন। বাংলাদেশেও প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। এ কারণেই বিশ্বের নানা দেশ থেকে আসা প্রবাসীদের ও তার পরিবারকে আহ্বানও জানানো হয়েছে হোম কোয়ারেন্টাইনের নির্দেশনা মেনে চলতে। যদিও মানছেন না অনেকে।

এমনই দেখা যায় খোদ রাজধানীর মিরপুরে। সাধারণ মানুষের কথা বিবেচনা করে মিরপুর মডেল থানা পুলিশ নিজ উদ্যোগে সচেতনতা বৃদ্ধিতে বিদেশ ফেরতদের বিষয়ে নিয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা। কিন্তু তারও ব্যত্যয় ঘটেছে সেখানে।

সেখানকার একটি বাড়ির এক ভাড়াটিয়া বলেন, আমাদের বাড়িওয়ালি ভারতে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে আসার পর উনি এ বাসা থেকে শেনপাড়ায় উনার বাবার বাড়িতে আসা যাওয়া করেন।

এ কারণেই গৃহ অন্তরীণ হয়ে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ কীভাবে মোকাবিলা করা যায় তার কিছুটা ধারণা দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। বলছেন, আক্রান্ত ব্যক্তি বা বিদেশ ফেরত প্রবাসীরা যথপোযুক্তভাবে নিয়ম মেনে চললে ঠেকানো যেতে পারে কোভিড-১৯’র সংক্রমণ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক ডা. ইকবাল কবির বলেন, আপনি জানেন না ভাইরাসটা বহন করছেন কিনা। আপনি যদি বিদেশফেরত হয়ে থাকেন তাহলে নিজেকে ১৪ দিন পর্যন্ত অন্যদের থেকে কোনও একটা জায়গায় আলাদা করে রাখবেন। আপনি কাউকে ছড়াবেন না, কাউকে ক্ষতিগ্রস্ত করবেন না- এটাই হচ্ছে হোম কোয়ারেন্টাইনের মূল কথা।

বিএসএমএমইউ’র সাবেক উপাচার্য নজরুল ইসলাম বলেন, খুব নাজুক অবস্থায় চলে গেছি আমরা। হোম কোয়ারেন্টাইনটা মনে হচ্ছে, আর কাজ করছে না। গ্রামে কি এমন আছে যে, একজনের জন্য একটা আলাদা রুম। বাড়িগুলোতে তো দেখা যায়, রুমই একটা বা দুইটা। সেজন্যই হয়তো ইনস্টিটিউশনাল কোয়ারেন্টাইন বা হসপিটালে কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা করা উচিত ছিল।

পূর্বপশ্চিমবিডি/অ-ভি

হোম কোয়ারেন্টাইন,করোনাভাইরাস,বিশ্ব
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close