• বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
  • ||

পেঁয়াজের ঝাঁজ কমলেও দাম বেড়েছে চাল-সবজির

প্রকাশ:  ২২ নভেম্বর ২০১৯, ১৪:৫২ | আপডেট : ২২ নভেম্বর ২০১৯, ১৫:১০
নিজস্ব প্রতিবেদক
দাম বেড়েছে শীতকালিন এসব সবজির। ছবি: সংগৃহীত

বেশ কিছুদিন পেঁয়াজের বাজার অস্থির থাকার পর ঢাকার বাজারে ঝাঁজ কমলেও বেড়েছে চাল-সবজির দাম। ব্যবসায়ীরা বলছেন, পরিবহন শ্রমিকদের কর্মবিরতির ফলে বাজারে চাহিদা অনুযায়ী সবজি না আসায় দামে কিছুটা বেড়েছে। এদিকে সব ধরনের চালের দামও বেড়েছে বলে ক্রেতাদের দাবি।

শুক্রবার (২২ নভেম্বর) রাজধানীর পাইকারি ও খুচরা বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১৮০ টাকায় এবং আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকায়। যা গেল সপ্তাহে বিক্রি হয়েছে কেজিতে ২০০-২৫০ টাকা। চালের বাজারে কেজিতে ৪-৫ টাকা বেড়েছে।

রামপুরা বাজারে চাল ব্যবসায়ী মাহবুব বলেন, চালের দাম বাড়িয়েছে মিল মালিকরা। তাই আমাদের বাড়তি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। এমন সময়ে প্রশাসন নিরব থাকলে চালের দাম দিন দিন আরও বাড়বে।

চালের খুচরা বাজারে প্রতি কেজি মিনিকেট বিক্রি হচ্ছে ৪৮ থেকে ৫০ টাকায়, নাজিরশাইল চালের দাম বেড়ে ৫৫ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে যা আগে ছিলো ৫০ থেকে ৫২ টাকায়, বিআর-২৮ চাল বিক্রি হচ্ছে ৩৬ থেকে ৩৮ টাকায়, যা আগে ছিলো ৩৩ থেকে ৩৪ টাকা, স্বর্ণা চাল বিক্রি হচ্ছে ৩৫ থেকে ৩৬ টাকায় যা আগে ছিলো ৩৩ টাকা, তবে চিনিগুঁড়া চাল কেজিপ্রতি ৮ টাকা বেড়ে ৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

খিলগাঁও বাজারের ক্রেতা তুহিন পূর্বপশ্চিমকে বলেন, গত সপ্তাহের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম কেজিতে ৮০ টাকা কমেছে। বহুদিন পর ৫ কেজি পেঁয়াজ নিলাম। তিনি আরও বলেন, শীতকালিন সবজিতে বাজার ভরপুর কিন্তু দাম অনেক বেশি। তাছাড়া চালের দামও কিছুটা বেড়েছে। বাজারে মনিটরিং না থাকলে পণ্যে দাম ক্রেতাদের হাতের নাগালের বাইরে চলে যাবে। তাই বাজার মনিটরিং প্রয়োজন।

শীতকালীন সবজির বাজারে প্রতি কেজি আলু ২৫ টাকা, ফুলকপি ৫০-৬০ টাকা, বাঁধাকপি ৪০ টাকা, লাউ ৭০, পেঁয়াজের কলি ২০০ টাকা, শালগম ৭০ টাকা, কাঁচা পেঁপে ৪০ টাকা, শিম ৮০-১০০ টাকা, টমেটো ১৬০ টাকা, কাঁচা মরিচ ১২০ টাকা, বেগুন ৭০-৮০ টাকা, মুলা ৪০ টাকা, গাজর ১০০ টাকা, বরবটি ৬০ টাকা, পটল ৫০ টাকা, ঢেঁড়স ৬০ টাকা, কাঁকরোল ৭০ টাকা, করলা ৭০-৮০ টাকা, শসা ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

মাছের বাজারে প্রতি কেজি পাবদা মাছ ৫০০ টাকা, রূপচাঁদা মাছ ৬০০-৮০০ টাকা, আইড় মাছ ৬৫০ টাকা, টেংরা মাছ ৭০০ টাকা, চিংড়ি মাছ ৬০০ টাকা, রুই মাছ ৩০০ টাকা, তেলাপিয়া মাছ ১৬০ টাকা, শিং মাছ ৬০০ টাকা, বেলে মাছ ৬০০ টাকা, কৈ মাছ ৪০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া ১ কেজি ওজনের ইলিশ ১২০০ টাকা, এর কম ওজনের ইলিশ ৬০০-৮০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

প্রতি কেজি গরুর মাংস ৫২০-৫৫০ টাকা, খাসির মাংস ৭৫০ টাকা এবং বকরির মাংস ৬৫০, ব্রয়লার মুরগি কেজি প্রতি ১২৫-১৩০ টাকা, লেয়ার মুরগি ২১০ টাকা, পাকিস্তানি মুরগি ২৪০ টাকা, দেশি মুরগি ৩৮০-৪০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।


পূর্বপশ্চিমবিডি/কেএম

পেঁয়াজ,সবজি বাজার,চাল
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত