Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৬
  • ||

ডায়াবেটিস রোগীরা স্থায়ীভাবে দৃষ্টি হারাতে পারেন : ডা. নুজহাত

প্রকাশ:  ২৫ জুলাই ২০১৯, ১৭:১৯ | আপডেট : ২৫ জুলাই ২০১৯, ১৮:১৭
পূর্বপশ্চিম ডেস্ক
প্রিন্ট icon
ডা. নুজহাত

ডায়াবেটিস শব্দটি আমাদের সবার কাছেই বেশ পরিচিত। এমন কোনো পরিবার খুঁজে পাওয়া যাবে না, যেখানে কোনো ডায়াবেটিসের রোগী নেই। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব অনুযায়ী, ডায়াবেটিস এখন একটি মহামারি রোগ। এই রোগের অত্যধিক বিস্তারের কারণেই সম্প্রতি এমন ঘোষণা দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। প্রশ্ন আসতেই পারে, ডায়াবেটিস কী? আমেরিকান ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশন বলছে, ডায়াবেটিস এমনই একটি রোগ, যা কখনো সারে না। কিন্তু এই রোগকে সহজেই নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়।

ডায়াবেটিস রেটিনোপ্যাথির কারণে চোখ স্থায়ীভাবে অন্ধ হয়ে যেতে পারে। তবে শুরুতে সঠিক চিকিৎসা নিলে ৯০ ভাগ ক্ষেত্রে রোগীর চোখের দৃষ্টি ভালো রাখা সম্ভব। এ ব্যাপারে পরামর্শ দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের চক্ষু বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. নুজহাত চৌধুরী।

ডায়াবেটিস রেটিনোপ্যাথি

ডায়াবেটিস নিয়ে আমাদের সমাজের মানুষ এখন অনেক সচেতন। তবে চোখে যে ডায়াবেটিস আক্রান্ত হতে পারে এ বিষয় রোগীদের মধ্যে অনেক সচেতনতার অভাব রয়েছে। ডায়াবেটিস রোগীদের ডাক্তারি নিয়ম অনুযায়ী প্রতিবছর একবার চোখ পরীক্ষা করার কথা বলা আছে।

এটা অনেকেই মানেন না। দীর্ঘদিন ধরে অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিসের কারণেই বেশিরভাগ ডায়াবেটিস রেটিনোপ্যাথি হয়। এমন সময় দৃষ্টি সম্পূর্ণ ব্যক্তি হঠাৎ অন্ধ হয়ে যেতে পারে। এমন সময় ডাক্তাররা রোগীর চোখ অপারেশনের করলেও ভাল হওয়া সম্ভাবনা অনেকাংশ কম থাকে।

প্রথমে জেনে নেয়া যাক রেটিনোপ্যাথি কী?

ডায়াবেটিস মেলিটাসে আমাদের শরীরে গ্লুকোজ সঠিক ভাবে ব্যবহৃত হয় না। ফলে আমাদের চোখের রেটিনার রক্তনালিকার গঠন স্থায়িভাবে পরিবর্তন হয়ে যায়।এতে আমাদের দৃষ্টিশক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। একেই ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি বলা হয়। প্রধানত দুই ধরনের রেটিণোপ্যাথি হয়।নন-প্রলিফেরাটিভ ও প্রলিফেরাটিভ ডায়াবেটিক রেটিণোপ্যাথি।

যেসব কারণে ডায়াবেটিস রেটিনোপ্যাথি হতে পারে

ডায়াবেটিস রেটিনোপ্যাথি এমন একটি রোগ যা শারীরের ক্ষুদ্র রক্ত নালীকে আক্রান্ত করে। শরীরের ভিতরের পানি লিক করতে থাকে। রক্তক্ষরণ হতে থাকে। এমনকি ছোট ছোট রক্ত নালীগুলো দুর্বল হয়ে যায়। এই ঘটনা শুধু চোখে না। কিউনিতে হচ্ছে, মাথায় হচ্ছে। হার্টে হচ্ছে, এমনকি আমাদের শরীরের প্রতিটি অঙ্গে আক্রান্ত করছে।

ডায়বেটিস রেটিনোপ্যাথি হলে চোখের যেসব সমস্যা হয়

ডায়বেটিস রেটিনোপ্যাথি আক্রান্ত হলে চোখের যে রেটিনা আছে, ছোট ছোট নালী থেকে পানি বের হয়ে আসতে পারে। তৈল জাতীয় কিছু হলুদ রংয়ের পানি জমা হতে পারে। এমন কি রক্তক্ষরণও হতে পারে। এমনকি যে রেটিনা দিয়ে আমরা ভাল দেখি সেটাকে ছিঁড়ে বাহিরে নিয়ে আসতে পারে। এমন সময় অন্ধত্ব হইয়ে থাকে। আর একটি হলো যে জায়গা দিয়ে আমরা ভালো দেখি সেই জায়গায় পানি জমতে পারে। এই সমস্যাগুলো দেখা দিলে আমাদের চোখে রক্ত চলাচল ব্যাহত হয়। ক্ষতির ফলে রেটিনা যেহেতু রক্ত পাচ্ছে না, তখন তার অক্সিজেন সাপ্লাই কমে যায়, অক্সিজেনের অভাব দেখা দেয়। এর মাধ্যমে নতুন রক্তনালী তৈরি হয় কিন্ত এটা ভালো রক্ত হয় না।

এমন সব সমস্যা দেখা দিলে আমাদের করণীয়

আমাদের করণীয় যদি কোনো ব্যক্তির ডায়াবেটিস থাকে, বছরে একবার অন্তত চোখ পরীক্ষা করে নেওয়া উচিত। রেটিনা পরীক্ষা করা উচিত। ১০ বছরের উপরে যেসব ব্যক্তি ডায়াবেটিসে আক্রান্ত তাদের ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি আক্রান্ত হতেই পারে। এখন আমাদের দেশে এই রোগী সুচিকিৎসা দেওয়া হয়। শুধু ঢাকাতে নয় বিভাগীয় শহরগুলোতেও পরীক্ষা ও সার্জারি করা হচ্ছে।

১. যথাযথভাবে ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ এবং স্বাস্থ্যসম্মত জীবন যাপন করা।

২. রক্তে কোলেস্টেরল বা চর্বি বেশি থাকলে তা নিয়ন্ত্রণে আনা।

৩. বছরে অন্তত একবার চক্ষুরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে চোখ পরীক্ষা করা জরুরি। এতে প্রাথমিক অবস্থায় রোগ ধরা পড়লে সহজে চিকিৎসা করা যায়।

৪. ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথির প্রাথমিক কোনো লক্ষণ দেখা দিলে, এমনকি চোখের যেকোনো অসুবিধায় তৎক্ষণাৎ চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া।

৫. নিয়মিত শরীরচর্চা করা।

৬. ওজন বেশি হলে তা কমানোর দিকে নজর দেওয়া। প্রয়োজনে পুষ্টিবিদের পরামর্শে স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ করা।

৭. ধূমপান বর্জন করা।

পূর্বপশ্চিমবিডি/লা-মি-য়া

ডায়াবেটিস দৃষ্টি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত