• রোববার, ০৯ মে ২০২১, ২৬ বৈশাখ ১৪২৮
  • ||

এক পোস্টে যা হারালেন কঙ্গনা

প্রকাশ:  ০৫ মে ২০২১, ১০:৫৮
বিনোদন ডেস্ক

ধারাবাহিক হিংসাত্মক পোস্ট করার জন্য মঙ্গলবার টুইটারে স্থায়ী ভাবে নিষিদ্ধ হয়েছেন বলিউডের বিতর্কিত অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউত। এবার তিনি কাজও হারালেন। ভবিষ্যতে কঙ্গনার সঙ্গে কোনো কাজ করবেন না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন বলিউডের দুই নামী ফ্যাশন ডিজাইনার আনন্দ ভূষণ ও রিমঝিম ডাদু।

এছাড়া অভিনেত্রীর সঙ্গে আগামী বেশ কিছু কাজ বাতিলও করেছেন তারা। এখানেই শেষ নয়, এ পর্যন্ত কঙ্গনার সঙ্গে যে সব কাজ করেছেন আনন্দ ও রিমঝিম, সে সবও নেট মাধ্যম থেকে সরিয়ে ফেলার কথা জানিয়েছেন তারা।

ঘটনার সূত্রপাত পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভার নির্বাচনের ফলাফলকে ঘিরে। ২ মে ফলাফল প্রকাশের পর থেকেই একের পর এক পোস্টে ভরে উঠেছে কঙ্গনার টুইটার হ্যান্ডেল। মমতা বন্দ্যোপা‌ধ্যায়কে রাবণের সঙ্গে তুলনা করা থেকে শুরু করে পশ্চিমবাংলাকে কাশ্মীরের সঙ্গে তুলনা। এমনকি এ রাজ্যে তিনি রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করার দাবিও জানান কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে।

এর পরই চূড়ান্ত পদক্ষেপ নেয় টুইটার কর্তৃপক্ষ। স্থায়ী ভাবে নিষ্ক্রিয় করে দেয়া হয় কঙ্গনার টুইটার হ্যান্ডেল। দিনের পর দিন টুইটারের নিয়মবিধি লঙ্ঘন করার জন্য এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন টুইটারের মুখপাত্র। তাদের আশঙ্কা, কঙ্গনার এমন ধারাবাহিক বক্তব্যের ফলে হিংসার উদ্রেক হতে পারে।

মঙ্গলবার বিকাল বেলা একই রকম পদক্ষেপ নেন ভারতের দুই খ্যাতনামা ফ্যাশন ডিজাইনার আনন্দ ভূষণ এবং রিমঝিম ডাদুর। দুজনেই তাদের ইনস্টাগ্রামে জানান, আগামী দিনে যে যে প্রকল্পের কথা হয়েছিল কঙ্গনার সঙ্গে, তা বাতিল করা হবে। এর আগে যা যা কাজ তারা করেছেন, সে সব ছবি ও ভিডিও নেটমাধ্যম থেকে তুলে নেয়া হবে।

এমন কঠিন সিদ্ধান্তের কারণ ব্যাখ্যা করে আনন্দ লিখেছেন, ‘আজকের (মঙ্গলবার) সমস্ত ঘটনার পর আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কোনো ভাবেই উস্কানিমূলক বক্তব্যকে সমর্থন করব না।’ রিমঝিম লিখেছেন, ‘ঠিক কাজ করার নির্দিষ্ট সময় হয় না।’ অভিনেত্রী স্বরা ভাস্কর দুই ডিজাইনারের এমন সিদ্ধান্তের প্রশংসা করে টুইট করেছেন।

এর আগে পশ্চিমবঙ্গের মানুষের মধ্যে বিভেদ তৈরির চেষ্টার অভিযোগে এনে বলিউড অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউতের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। সোমবার হাইকোর্টের আইনজীবী সুমিত চৌধুরী ই-মেইল মারফত কঙ্গনার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

তৃণমূলের জয় যেন কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছেন না কঙ্গনা। টুইট বার্তায় তিনি লিখেন- বাংলাদেশি আর রোহিঙ্গারা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সবচেয়ে বড় শক্তি, যা ট্রেন্ড দেখছি তাতে বাংলায় আর হিন্দুরা মেজরিটিতে নেই এবং তথ্য অনুযায়ী গোটা ভারতবর্ষের তুলনায় বাংলার মুসলিমরা সবচেয়ে গরিব আর বঞ্চিত। ভালো আরেকটা কাশ্মীর তৈরি হচ্ছে।

এখানেই থামেননি কঙ্গনা। আরামবাগে বিজেপির পার্টি অফিসে আগুন লাগানোর খবর শেয়ার করে তিনি লিখেছেন, আগামী দিনে বাংলায় রক্তস্নান হবে। সরকার হেরে যাওয়ার ভয়ে রক্ত পিপাসু হয়ে উঠবে।

এ ধরনের টুইটের পরই উচ্চ আদালতের আইনজীবী সুমিত চৌধুরী বলিউড অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেন।


পূর্বপশ্চিমবিডি/জিএস

পোস্ট,কঙ্গনা
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close