• বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
  • ||

ওয়ালটন ফ্রিজের কারখানা দেখে মুগ্ধ তারকারা

প্রকাশ:  ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ১৭:৫৯
বিনোদন প্রতিবেদক

ওয়ালটনের কারখানা ঘুরে এলেন এক ঝাঁক তারকা শিল্পী। বাংলাদেশে তৈরি বিশ্বমানের প্রযুক্তিপণ্য উৎপাদন শিল্পের অভাবনীয় অগ্রগতি দেখে তাদের চোখে বিস্ময়। সবার মুখে একই প্রতিক্রিয়া—‘ওয়াও! এত বিশাল কারখানা! এত এত অত্যাধুনিক মেশিন! ছোট-বড় যন্ত্রাংশ তৈরি এবং তার সংমিশ্রণে পূর্ণাঙ্গ ফ্রিজ উৎপাদন! ওয়ালটন কারখানায় না এলে জানতেই পারতাম না যে দেশে এত বড় কর্মযজ্ঞ চলছে।

ওয়ালটন ফ্রিজের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) গোলাম মুর্শেদের আমন্ত্রণে দেশের শিল্প-সংস্কৃতি অঙ্গনের তারকারা সম্প্রতি গাজীপুরের চন্দ্রায় ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের অত্যাধুনিক কারখানা পরিদর্শন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক চিত্রনায়ক আমিন খান।

ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শন করা তারকাদের মধ্যে ছিলেন—চিত্রনায়িকা আঁচল আঁখি, মডেল-অভিনেত্রী আইরিন সুলতানা, চিত্রনায়ক শিপন মিত্র, জনপ্রিয় আরজে এবং সিটি এফএম৯৬-এর হেড অব নিউজ অ্যান্ড প্রোগ্রাম নিরব খান, ফ্যাশন ডিজাইনার এবং কোরিওগ্রাফার সৈয়দ রুমা, গায়ক সাজ্জাদ খান, মডেল শাকিলা পারভীন, অভিনেত্রী পারসা ইভানা, অভিনেতা জাকির আহমেদ জারিফ ও তানজিম হাসান অনিক।

তাদের ওয়ালটন কারখানা ঘুরিয়ে দেখান প্রতিষ্ঠানটির সিনিয়র অ্যাডিশনাল ডিরেক্টর মোহসিন আলী মোল্লা এবং ব্র্যান্ড ম্যানেজার জীবন আহমেদ। তারকারা প্রথমে ওয়ালটনের সুসজ্জিত প্রোডাক্ট ডিসপ্লে সেন্টার ঘুরে দেখেন। এরপর তারা সরেজমিনে ওয়ালটনের ফ্রিজ, মেটাল কাস্টিং, কম্প্রেসর ইত্যাদি উৎপাদন ইউনিট পরিদর্শন করেন।

ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শনের ব্যাপারে আঁচল আঁখি বলেন, ‘‘ওয়ালটনের গেট দিয়ে যখন ঢুকছি, তখন একটাই বাক্য বলেছি, ‘ওয়াও’! মনে হচ্ছিল অন্য কোনো দেশে চলে এসেছি। এত বিশাল এরিয়া আমি বাংলাদেশের আর কোনো ফ্যাক্টরিতে দেখিনি। ওয়ালটন কারখানা দেখে মনে হচ্ছে আমাদের দেশটা প্রযুক্তিপণ্য উৎপাদন শিল্পে অনেক দূর এগিয়ে গেছে।’’

তিনি আরও বলেন, আমার বাসার ফ্রিজ এবং এসি ওয়ালটনের। খুবই ভালো সার্ভিস দিচ্ছে। সবাইকে বলব আমি নিজে ওয়ালটন পণ্য ব্যবহার করছি। আর ওয়ালটন কারখানায় গিয়ে যা দেখলাম, তাতে এটা নিশ্চিত যে ওয়ালটন পণ্য বাইরের দেশের পণ্য থেকে অনেক ভালো। আশা করি, ওয়ালটন পণ্য বিশ্বের সব দেশে ছড়িয়ে যাবে।

নিরব বলেন,ওয়ালটন কারখানায় এসে আমাদের চোখ খুলে গেছে। এত বিশাল ফ্যাক্টরি আমাদের কল্পনায়ও ছিল না। এক প্রান্ত থেকে কাঁচামাল ঢুঁকছে। অন্য প্রান্ত দিয়ে ফ্রিজ হয়ে বের হচ্ছে। যা চোখে না দেখলে বিশ্বাস করা যায় না। ওয়ালটন আমাদের দেশের গর্ব। ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ বলাটা সম্মানের। বাংলাদেশের পণ্য নিয়ে সারা পৃথিবী গর্ব করবে, সেই দিন চলে এসেছে।

আইরিন সুলতানা বলেন, অ্যামেজিং এক্সপেরিয়েন্স। ‘আমাদের পণ্য’ যে ট্যাগলাইন ওয়ালটনের, সেটা পারফেক্ট। তারা ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র সব যন্ত্রাংশ নিজেরাই তৈরি করছে। কারখানায় অত্যাধুনিক সব ইক্যুইপমেন্ট। আমি গর্বিত যে ওয়ালটন আমাদের দেশীয় প্রতিষ্ঠান। তাদের পণ্য উৎপাদন প্রক্রিয়া দেখে আমি অভিভূত।

তিনি আরও বলেন, সবচেয়ে ভালো লেগেছে কম্প্রেসর তৈরি দেখে। আমরা কম্প্রেসর নয়েজ টেস্টিং রুমে গিয়েছিলাম। সেখানে গিয়ে দেখলাম ওয়ালটনের তৈরি কম্প্রেসর ওয়ার্ল্ডের মোস্ট নয়েজলেস কম্প্রেসর। কারখানায় দেখলাম বিশ্বের অনেক নামিদামি ব্র্যান্ডের ফ্রিজ ওয়ালটন তৈরি করে দিচ্ছে। আমি গর্বিত। কারণ আমার দেশের একটা প্রতিষ্ঠানের তৈরি পণ্য বিশ্বের বহু দেশ ব্যবহার করছে। আমি সবাইকে অনুরোধ করব—আমাদের দেশে তৈরি পণ্য কেনেন এবং ব্যবহার করেন।

কারখানা দেখার আমন্ত্রণ জানানোর জন্য এ সময় ওয়ালটন কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান এসব তারকা শিল্পীরা।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এএ

ওয়ালটন,ফ্রিজ,তারকারা
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত