Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬
  • ||

তিথীর ভালোবাসায় জয়া

প্রকাশ:  ৩১ জুলাই ২০১৯, ০০:১১
বিনোদন প্রতিবেদক
প্রিন্ট icon

দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান সমান তালে অভিনয় করে চলেছেন। মডেল হিসেবে যাত্রা শুরু করেছিলেন। সেখানে বাজিমাত করে নাম লিখিয়েছিলেন নাটক-টেলিছবির অভিনয়ে। এরপর আসেন সিনেমায়। পরের গল্পটা কেবলই সাফল্যের।

একের এক পর তিনি চমক দেখিয়েছেন বৈচিত্র্যময় চরিত্রে। ঢাকার পাশাপাশি তার অভিনয়ের মায়ায় বাধা পড়েছে কলকাতার সিনেমার দর্শকও। দীর্ঘ ১৫ বছরের ক্যারিয়ারে দর্শকদের উপহার দিয়েছেন বেশ কয়েকটি ব্যবসাসফল চলচ্চিত্র। অভিনয় করেছেন কলকাতার আঞ্চলিক সিনেমায়ও। স্বীকৃতি হিসেবে পেয়েছেন তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারসহ অসংখ্য সম্মাননা।

দুই বাংলায় অভিনয়ের জন্য দুদেশেই তার ভক্ত সংখ্যা অনেক। সময়ের বহমান আবহায় জীবন নদীতে দর্শকের কাছে বেশ আপনজন জয়া আহসান। বাংলাদেশে যেমন তার অগণিত ভক্ত তেমনি কলকাতায় তার ভক্তের সংখ্যাও কম নয়। এই ভক্তরাও তার প্রিয় অভিনেত্রীকে নিয়ে স্বপ্ন দেখেন। মনের মাধুর‌ী মিশিয়ে কবিতা লিখে থাকেন। প্রিয় শিল্পীকে স্মরণ করেণ সময়-অসময়ে। প্রিয় তারকার জন্য জীবনের সর্বস্ব দিয়ে ছবি এঁকে জান জীবন খাতার ডায়েরিতে। তারকাকে নিয়ে ভালোবাসার ছোঁয়ায় মন রাঙান তার মনে ভিতর। তেমনি এক ভক্তের সঙ্গে কথা হয় পূর্বপশ্চিমবিডির

ভারতীয় বাঙালী তিথী চৌধুরী। তাকে জয়া আহসানের পাগল ভক্ত বললেও ভুল হবে না। কারণ তার সবটুকু ভালোবাসা প্রিয় অভিনেত্রীর প্রতি।

জয়া আহসানের প্রতি তার অব্যক্ত ভালোবাসার কথা বলতে গিয়ে তিথী চৌধুরী বলেন, সালটা ২০০৩ কিংবা চার হবে। বাংলাদেশের চট্টগ্রামে ঘুরতে মামার বাড়ি যাই। সেখানে আমি প্রথম টিভিতে মাম্মাম (জয়া আহসান) এর ছবি প্রথম দেখতে পাই। তখন খুব ছোট হলেও তার প্রতি ভালোলাগার বিষয়টি তৈরি হয় সেসময়। মূলত তার অভিনয়, কথা বলার ধরণ, হাসি এসব আমার খুব ভালো লাগে। আর এসব কারণে তার প্রতি আমার ভালোলাগা তৈরি হয়।

ব্যক্তি জয়া আহসান আর অভিনেত্রী জয়া আহসানের পার্থক্য খুঁজতে গিয়ে তিনি বলেন, এই দুয়ের মধ্যে আমার কাছে কোন পার্থক্য নেই। যদিও এখন পর্যন্ত তার সঙ্গে আমার দেখা হয়নি তারপরও তার মাঝে আমি কোনো পার্থক্য খুঁজে পাইনি।

প্রিয় অভিনেত্রীকে নিয়ে স্বপ্ন দেখার বিষয়ে তিথি জানান, আমি ছোট বেলা থেকে জয়া আহসানের ভীষণ বড় ভক্ত। আমার তাকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন আছে। তবে একটা স্বপ্ন আছে যেটা না বললেই নয়, আমি তার জন্মদিনে তার সঙ্গে তার জন্মদিনের কেক কাটতে চাই। একদিন তার সঙ্গে বসে কথা বলবো। তার প্রিয় খাবারগুলো নিজ হাতে বানিয়ে খাওয়াবো।

কলকাতার বাসিন্দা তিথী চৌধুরী। পড়াশুনা করছেন অ্যানিমেশন ও গ্রাফিক্স নিয়ে। পাশাপাশি ছবি আঁকতে ভালোবাসেন তিনি।


পূর্বপশ্চিমবিডি/এমএইচ

জয়া আহসান
apps
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত