Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬
  • ||

‘স্বপ্ন দেখি বাংলাদেশ ফাইনাল খেলবে’

প্রকাশ:  ২৭ জুন ২০১৯, ১৭:২০ | আপডেট : ২৭ জুন ২০১৯, ১৮:১৫
মহিব আল হাসান
প্রিন্ট icon
মারিয়া নূর

ক্রিকেট খেলেন না তিনি। কিন্তু ক্রিকেট ম্যাচ থাকলে মাঠে কিংবা টিভি পর্দায় মারিয়া নূর। দীর্ঘদিন ধরেই ক্রীড়া উপস্থাপনা করছেন। ক্রিকেট হোক আর ফুটবল, টিভি পর্দায় নানা আবহে খুঁজে পাওয়া যায় মারিয়া নূরকে। ইংল্যান্ড ও ওয়েলসে চলমান বিশ্বকাপ ক্রিকেট নিয়ে বিশেষজ্ঞ ক্রিকেটারদের সঙ্গে মারিয়ার আলাপচারিতায় নিয়মিতই দেখা যাচ্ছে মাছরাঙা টেলিভিশনের লাইভ শোতে। সে অভিজ্ঞতা থেকেই মারিয়ার সঙ্গে ক্রিকেটিয় কথোপকথনের আলাপচারিতা। তারই চম্বক অংশ পূর্বপশ্চিমবিডির পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

পূর্বপশ্চিম: বাংলাদেশ কি সেমিফাইনালে যেতে পারবে?

মারিয়া নূর: স্বপ্নটা দেখি বাংলাদেশ ফাইনাল খেলবে। তবে দলের উপর এমন কোনো প্রেসার ফেলতে চাই না, তারপরো বলতে হয়। কারণ আমরা বাঙালি। আমরা বাঙালি হিসেবে আমাদের স্বপ্নটা অনেক বেশি। বাংলাদেশ ক্রিকেট টিম ফাইনাল খেলবে।

মারিয়া নূর

পূর্বপশ্চিম: বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত ৩৫টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে, এ ম্যাচগুলোর বিশ্লেষণ করে আপনার কাছে কোন দলগুলোর পারফর্মানেন্স এবারের বিশ্বকাপে অতুলনীয়?

মারিয়া নূর: নিজের দেশের খেলা সবচেয়ে বেশি ভালো লাগে। সেটা হারুক আর জিতুক। আর এবারের বিশ্বকাপ একবারেই আলাদা হচ্ছে। খেলা বৃষ্ঠির কারণে পরিত্যাক্ত, আবার কাকতালীয়ভাবে ১৯৯২ এর সাথে পাকিস্তানের এবারের ফলাফল মিলে যাওয়া। শুরুর দিকের ম্যাচগুলো একপেশে হলেও শেষে এসে ম্যাচগুলো যে রকম প্রতিযোগিতামূলক হচ্ছে তা উপভোগ করছি।

পূর্বপশ্চিম: দেশ ও দেশের বাহিরে আপনার কোন ক্রিকেটার প্রিয়?

মারিয়া নূর: দেশে তো মাশরাফি বিন মুর্তূজা ক্যাপ্টেন হিসেবে, একজন মানুষ হিসেবে খুবই প্রিয়। খেলোয়াড় হিসেবে সাকিব আল হাসান দেশের একজন ব্র্যান্ড। আন্তার্জিতকভাবে তাকে যেভাবে সমাদর করা হচ্ছে। আমারা বাঙালি হিসেবে তাকে আরো বেশি করা দরকার। আর দেশের বাহিরের ক্রিকেটার শচীন টেন্ডুলকার ভীষণ পছন্দের খেলোয়াড়।

মারিয়া নূর ও ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান

পূর্বপশ্চিম: উপস্থাপনায় অপূর্ণতা আছে কি?

মারিয়া নূর: অপূর্ণতা বলতে তো কিছু না কিছু থেকেই যায়। যেমন আমাদের প্রোগ্রামগুলো এখনো একই ছকে হচ্ছে। অনুষ্ঠানের একই ছক থেকে বের হয়ে নতুন কিছু করতে পারার ইচ্ছা তো বরারই থেকে যায়। কারণ দর্শকেরা আমাদের মাধ্যমেই নতুন কিছু পায়। সেই অপূর্ণতা আছে। এমন কিছু করতে চাই যেন আন্তর্জাতিকমানের একজন উপস্থাপক হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিতে পারি।

পূর্বপশ্চিম: উপস্থাপনা ও ক্রীড়া উপস্থাপনা এই দুয়ের পার্থক্য...

মারিয়া নূর: উপস্থাপনা শুধুই উপস্থাপনা আমার কাছে। ক্রীড়া উপস্থাপনায় ক্ষেত্রে আমার কাছে যেটা করতে হয় গেস্টদের সুন্দরকরে প্রশ্নোত্তরকরা সাথে গঠনমূলক আলোচনা করা। সেই জায়গা থেকে অনেক কিছুর প্রিপারেশন নিতে হয়। কৌশলী এবং চ্যালেঞ্জিং হতে হয়। ক্রীড়া উপস্থাপনা একটা মিশন। এই জায়গাগুলোতে পার্থক্য বিরাজমান।

মারিয়া নূর

পূর্বপশ্চিম: ক্রীড়া উপস্থাপনা কিংবা ধারাভাষ্যে নারীদের উপস্থিতি বাড়ছে। বিষয়টিকে কিভাবে দেখছেন?

মারিয়া নূর: এটা ভীষণ ভালো লাগছে আমার কাছে। এটা আমাদের বাংলাদেশে আরো আগে হওয়া উাচিৎ ছিল। মেয়েদের কথা বললে, অনেক আগে থেকে মেয়েরা তাদেরকে প্রমাণ করে আসছে। যেমন, অলিম্পিক জিতে আসছে, ক্রিকেট ও ফুটবলও জয় করছে। ধীরে ধীরে অনেকদূর এগিয়ে যাচ্ছে। এবার ক্রিকেট বিশ্বকাপে যারা ধারাভাষ্য করছেন তাদেরকে অনেক ইনজয় করছি। আমি চাই নারীরাও সমানতালে এগিয়ে যাক।

মারিয়া নূর

পূর্বপশ্চিম: যদি ঘুম থেকে উঠে দেখেন খেলোয়াড় হয়ে গেছেন, কি করবেন?

মারিয়া নূর: খেলবো..হা হা হা (হাসি)। খেলোয়াড় হলে তো খেলবোই। এটা অন্যরকম একটা পাওয়া হবে। যেমন আমি ছোটবেলা থেকে আবৃত্তি, উপস্থাপনা স্বপ্ন ছিলো। তেমনি যারা খেলোয়াড় তাদেরও স্বপ্ন থাকে ছোটবেলা থেকেই খেলোয়াড় হওয়ার। আর আমি যদি ঘুম থেকে ওঠে দেখি খেলোয়াড় হয়েছি, তাহলে তো অব্যশই বলতে হয় অনেক বড় প্রাপ্তি।


পূর্বপশ্চিমবিডি/এইচএম

মারিয়া নূর
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত