• সোমবার, ২৪ জানুয়ারি ২০২২, ১০ মাঘ ১৪২৮
  • ||

ইউএনও’র বাসায় হামলা: ১২ আ.লীগ নেতাকর্মীর জামিন

প্রকাশ:  ০২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:২৫
বরিশাল প্রতিনিধি

বরিশাল সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুনিবুর রহমানের সরকারি বাসভবন ও পুলিশের ওপর হামলায় গ্রেপ্তার ১২ জনের জামিন মঞ্জুর করেছেন আদালত। এর আগে এই মামলায় আরও ৯ আসামির জামিন হয়। এনিয়ে এ মামলার ২১ আসামির জামিন আবেদনই মঞ্জুর হলো।

বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে শুনানি শেষে অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাসুম বিল্লাহ তাদের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন।

অতিরিক্ত মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের কোতোয়ালি থানার জেনারেল রেজিস্ট্রার কর্মকর্তা (জিআরও) এসআই খোকন চন্দ্র দাস বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, দুই মামলায় গ্রেপ্তার ১২ আসামির জামিন চেয়ে গত ২৯ আগস্ট আবেদন করা হয়। তখন অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাসুম বিল্লাহ ছুটিতে থাকায় ভারপ্রাপ্ত বিচারক হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন মো. আনিছুর রহমান। তিনি জামিন আবেদন গ্রহণ করে, ২ সেপ্টেম্বর পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেছিলেন। আজ শুনানি শেষে আবেদন করা ১২ আসামির জামিন মঞ্জুর করা হয়।

জামিনপ্রাপ্তরা হলেন, বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক হাসান মাহমুদ বাবু, সাংগঠনিক সম্পাদক ও বরিশাল সিটি করপোরেশনের (বিসিসি) ২১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর শেখ সাঈদ আহমেদ মান্না, ত্রাণ বিষয়ক সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন ফিরোজ, রূপাতলী বাস টার্মিনালের পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ও রায়পাশা-কড়াপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আহমেদ শাহরিয়ার বাবু, লিটন ঘোষ, মো. রাকিব, শুভ হাওলাদার, শাহিনুল ইসলাম শাহিন, শুভ ঘোষ, মো.অলিউল্লাহ, মিরাজ গাজী ও হারুন অর রশিদ।

আসামিদের পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট তালুকদার মো. ইউনুস জানান, এর আগে ২৫ আগস্ট দুই মামলায় গ্রেপ্তার ৯ জনের জামিন মঞ্জুর করেন আদালত। এতে ইউএনও ও পুলিশের করা হামলা ও মামলায় গ্রেপ্তার ২১ আসামির মধ্যে দুই জন ছাড়া অন্য সবাই জামিন পেয়েছে। বাকী দুইজন ঢাকায় চিকিৎসাধীন থাকায় তারা জামিন পাননি।

প্রসঙ্গত, গত ১৮ আগস্ট রাতে বরিশাল সদর ‍উপজেলা পরিষদ চত্বরে অবৈধ বিলবোর্ড, ব্যানার, ফেস্টুন ‍উচ্ছেদ করতে অভিযান চালায় বরিশাল সিটি করপোরেশনের কর্মীরা। কিন্তু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তাদের অভিযান বন্ধ করে সকালে অভিযান চালাতে বলেন। তা না মেনে ইউএনওর সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন সিটি করপোরেশনের কর্মী এবং আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

একপর্যায়ে তারা ইউএনওর বাসভবনে হামলা চালান। এ সময় ইউএনওর নিরাপত্তায় আনসার সদস্যরা গুলি চালালে বেশ কয়েকজন আহত হন। খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে গেলে পুলিশের সঙ্গেও হামলাকারীদের সংঘর্ষ হয়। এতে বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্যও আহত হন।

ঘটনায় পরদিন ইউএনও এবং পুলিশ বাদী হয়ে সিটি মেয়র সাদিক আবদুল্লাহসহ আওয়ামী লীগের ৬০২ জন নেতাকমীর বিরুদ্ধে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেন কোতোয়ালি মডেল থানায়। দুই মামলায় পুলিশ এ পর্যন্ত ২৩ জন নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করে। তাদের মধ্যে চোখে গুলিবিদ্ধ তানভীর হাসান এবং মনিরুজ্জামান মনির নামে দুই আসামি গ্রেপ্তার অবস্থায় ঢাকার জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ওই ২ জন বাদে বরিশাল কারাগারে থাকা ২১ আসামির মধ্যে গত ২৫ আগস্ট ৯ জন নেতাকর্মীর জামিন মঞ্জুর করেন অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন আদালত।

২৯ আগস্ট ফের কারাগারে থাকা ১২ আসামির জামিন আবেদন করেন তাদের আইনজীবীরা। আদালত ২ সেপ্টেম্বর তাদের জামিন শুনানির দিন ধার্য করেন। আজ ধার্য দিনে শুনানি শেষে তাদের সবার জামিন মঞ্জুর করেন আদালত।

সরকারের উচ্চ মহলের নির্দেশে ওই দিনই রাতে বরিশাল বিভাগীয় কমিশনার মো. সাইফুল হাসান বাদলের বাসভবনে বিভাগীয় ও জেলা এবং পুলিশ প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে সিটি মেয়রসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের এক সমঝোতা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে উভয়পক্ষের মামলা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত হয়।

ওই বৈঠকের সুফল হিসেবে গত ২৫ আগস্ট প্রথম দফায় ৯ নেতাকর্মীর জামিনের পর আজ দ্বিতীয় দফায় আরও ১২ জন নেতাকর্মীর জামিন হয়েছে বলে মনে করেন তাদের আইনজীবীরা।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

বরিশাল,ইউএনও,আওয়ামী লীগ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close