• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ২১ আষাঢ় ১৪২৯
  • ||

শিক্ষার ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে নতুন প্রকল্প নিচ্ছে সরকার

প্রকাশ:  ১৯ জুন ২০২২, ২০:৫৬
নিজস্ব প্রতিবেদক

করোনায় শিক্ষার ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে নতুন প্রকল্প হাতে নিচ্ছে সরকার। এ প্রকল্পের মাধ্যমে শিক্ষার ক্ষতি পুনরুদ্ধারের কাজ করা হবে।

রোববার দরিদ্র মেধাবী শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি ও টিউশন ফি এবং ভর্তি সহায়তা বিতরণ অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব আবু বকর ছিদ্দীক এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘করোনাভাইরাসের কারণে আমাদের শিক্ষার যে ক্ষতি হয়েছে, তার জন্য নতুন প্রকল্প হাতে নেয়া হচ্ছে। প্রকল্পটি ৬ হাজার ৩০০ কোটি টাকার। এর মাধ্যমে করোনায় শিক্ষার যে ক্ষতি হয়েছে তা পুনরুদ্ধারের কাজ করা হবে।’

করোনার তৃতীয় ঢেউয়ে দ্বিতীয় দফায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সশরীরে ক্লাস বন্ধ করা হয় চলতি বছরের ২১ জানুয়ারি। এ দফায় শিক্ষাঙ্গনে সশরীরে ক্লাস বন্ধ থাকে এক মাস।

২২ ফেব্রুয়ারি ষষ্ঠ থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত শিক্ষাঙ্গনগুলো আবার প্রাণচঞ্চল হয়ে ওঠে।

গত ২ মার্চ শুরু হয় প্রাথমিকে সশরীরে ক্লাস। টানা দুই বছর বন্ধের পর গত ১৫ মার্চ প্রাক-প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের সশরীরে ক্লাস শুরু হয়।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব শুরুর পর দুই দফায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করা হয়। প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকার পর প্রথম দফায় গত বছরের ১২ সেপ্টেম্বর থেকে ধীরে ধীরে খুলতে শুরু করে শিক্ষাঙ্গনের দুয়ার।

অনুষ্ঠানে বছরে ৫০ লাখ শিক্ষার্থীকে বৃত্তি দেয়া হবে বলেও জানান শিক্ষা সচিব।

তিনি বলেন, ‘এক বছরে প্রায় ৫০ লাখ শিক্ষার্থীকে ১ হাজার ২০০ কোটি টাকা বৃত্তি দেয়া হবে। এর মধ্যে ২০ লাখ ছাত্র ও ৩০ লাখ ছাত্রী এই বৃত্তির অর্থ পাবে। এটাকে আমরা বিনিয়োগ হিসেবে দেখছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আজকের দিনটি বিশেষ দিন ছিল। কারণ আজ এসএসসি পরীক্ষা শুরুর কথা ছিল। কিন্তু প্রাকৃতিক কারণে এসএসসি পরীক্ষা পিছিয়ে দিতে হলো। সামনে আবার ঈদ-উল- আজহা, দেখা যাক কি হয়।’

৯৫ জন অধ্যক্ষকে তৃতীয় গ্রেড দেয়ার উল্লেখ করে আবু বকর ছিদ্দীক বলেন, ‘আমরা মানসম্মত শিক্ষার কথা বলি। এর প্রধান অনুসঙ্গ হলো শিক্ষক। কিন্তু শিক্ষকদের মানমর্যাদা না দিলে ভালো শিক্ষা আশা করা যায় না। আজ আমরা ৯৫ জন অধ্যক্ষকে চতুর্থ গ্রেড থেকে তৃতীয় গ্রেডে উন্নীত করেছি। দ্বিতীয় ও প্রথম গ্রেডের বিষয় নিয়েও কাজ চলছে।’

শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি ভার্চুয়ালি এ অনুষ্ঠান উদ্বোধন করার কথা থাকলেও অসুস্থতার কারণে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান নওফেল অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন।

অনুষ্ঠানে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, ‘করোনাকালে আমরা জানি না কত শিক্ষার্থী ঝরে পড়েছে। যখন আমরা কোভিড ঝুঁকি থেকে বের হচ্ছিলাম ঠিক তখনই দেশে বন্যা এলো। প্রাকৃতিক দুর্যোগ আসছে, আমরা দুর্যোগকে অবশ্যই মোকাবিলা করব। যেসব শিক্ষার্থী পানিবন্দি তাদের জন্য আমরা প্রার্থনা ও মনোবেদনা প্রকাশ করছি। আমরা ইতোমধ্যেই বন্যা কবলিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে ঘোষণা করেছি।’

নিজস্ব চিন্তা থেকে প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট গঠন করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এটা সত্যিই শিক্ষার্থীদের জন্য আশীর্বাদ। শেখ হাসিনা যেভাবে মানুষের পাশে এসেছেন ঠিক এমনভাবে শিক্ষার্থীদের মানবিক কাজে এভাবেই পাশে দাঁড়াতে হবে।’

অনুষ্ঠানে ২০২১-২২ অর্থবছরে মাধ্যমিক পর্যায়ের ৪০ লাখের বেশি শিক্ষার্থীর মধ্যে ৬৭৪ কোটি সাত লাখ ২০ হাজার টাকা, উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের ৮ লাখ ৮২ হাজারের বেশি শিক্ষার্থীর মধ্যে ৪৫০ কোটি ৩০ লাখ টাকার বেশি ও স্নাতক পর্যায়ে ১ লাখ ৩৯ হাজার ৫৫৩ জন দরিদ্র শিক্ষার্থীর মধ্যে ৭৪ কোটি ৮২ লাখ টাকার বেশি ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি নিশ্চিতে ৫০৫ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৩১ লাখ ১০ হাজার টাকা বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়। এই টাকা মোবাইল ও অনলাইন ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের হাতে পৌছে দেয়া হবে।

পূর্ব পশ্চিম/ম

শিক্ষা
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close