• শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
  • ||

শাবি ভিসিকে দানব বললেন জাফর ইকবাল

প্রকাশ:  ২৬ জানুয়ারি ২০২২, ১৬:৪৪
নিজস্ব প্রতিবেদক

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদকে দানব বলে মন্তব্য করেছেন ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল।

বুধবার (২৬ জানুয়ারি) সকালে শাবিপ্রবি ভিসির পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙানোর পর তিনি এ কথা বলেন।

ড. জাফর ইকবাল বলেন, শাবি ভিসি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ একটা দানব। শিক্ষার্থীদের এমন অবস্থা দেখেও যার মন গলে না, নিজের জায়গায় অনড় থাকেন; আমি তাকে অন্তত মানুষ বলতে পারি না, তিনি দানব।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, তোমরা কেন তোমাদের জীবন অপচয় করবে? তোমাদের বাঁচতে হবে। তোমরা ইতোমধ্যেই বিজয়ী হয়ে গেছ। সারা দেশের মানুষ তোমাদের পক্ষে দাঁড়িয়েছে। দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিদের ঘুম হারাম করে দিয়েছ। জীবন অনেক মূল্যবান। তুচ্ছ বিষয়ে জীবন অপচয় করা যাবে না।

তিনি আরও বলেন, সরকারের ঊর্ধ্বতন মহল থেকে আমাদের নিশ্চিত করা হয়েছে, তোমাদের দাবি মানা হবে। দুটি মামলাই ওঠানো হবে। আর সে কারণেই আমরা এসেছি। নিশ্চিত না হলেও আমরা আসতাম, কিন্তু তোমাদেরকে অনশন ভাঙতে বলতে পারতাম না।

এর আগে সকাল ১০টা ২২ মিনিটে অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের অনুরোধে উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা অনশন ভাঙেন। টানা ৭ দিন অনশন পালনের পর জাফর ইকবালের হাতে পানি পান করে তারা অনশন ভাঙেন।

তবে অনশন ভাঙলেও আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের মুখপাত্র ইয়াসির সরকার বলেন, আমরা অনশন কর্মসূচি থেকে সরে এলেও উপাচার্য পদত্যাগের আন্দোলন চালিয়ে যাব। এই উপাচার্য পদত্যাগ না করা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

প্রসঙ্গত, গত ১৬ জানুয়ারি বিকেলে তিন দফা দাবি আদায়ে উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইআইসিটি ভবনে অবরুদ্ধ করেন শিক্ষার্থীরা। পরে পুলিশ উপাচার্যকে উদ্ধার করতে গেলে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই সময় পুলিশ সাউন্ড গ্রেনেড, টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট ছোড়ে শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এতে কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হন। এ ঘটনায় দুইশ থেকে তিনশ অজ্ঞাত শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মামলা করে পুলিশ। এরপর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ক্যাম্পাস বন্ধ করে শিক্ষার্থীদের হলত্যাগের নির্দেশ দেয়। তবে নির্দেশনা অমান্য করে আন্দোলন চালিয়ে যান শিক্ষার্থীরা। প্রভোস্টের পদত্যাগের দাবিতে শুরু হওয়া আন্দোলন শেষ পর্যন্ত উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে পরিণত হয়। উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে ১৯ জানুয়ারি বিকেল ৩টা থেকে তার বাসভবনের সামনে আমরণ অনশনে বসেন ২৪ শিক্ষার্থী।

পূর্বপশ্চিম/এসকে

জাফর ইকবাল,শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়,ফরিদ উদ্দিন আহমেদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close