• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
  • ||

এমপিও’র দাবিতে ৩৩ ঘণ্টা রাজপথে শিক্ষক-কর্মচারীরা

প্রকাশ:  ১২ অক্টোবর ২০২১, ২০:৩৭ | আপডেট : ১২ অক্টোবর ২০২১, ২০:৪৪
নিজস্ব প্রতিবেদক

এমপিওভুক্তির দাবিতে টানা ৩৩ ঘণ্টার মতো রাজধানীর শাহবাগে অবস্থানে রয়েছে দেশের প্রতিবন্ধী স্কুলের শিক্ষক-কর্মচারীরা। প্রতিষ্ঠানগুলো এমপিওভুক্ত না হওয়া পর্যন্ত অবস্থান করবেন বলে জানান তারা।

বাংলাদেশ প্রতিবন্ধী বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির ব্যানারে সোমবার দুপুরে রাজধানীর শহীদ মিনার থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের উদ্দেশ্যে শান্তিপূর্ণ যাত্রা শুরু করেন দেশের প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। পদযাত্রাটি শাহবাগে গেলে পুলিশ আটকে দেয়। তখন থেকেই শিক্ষক-কর্মচারীরা শাহবাগের জাতীয় জাদুঘরের সামনে অবস্থান নেন। রাতেও তারা সেখানেই অবস্থান করেন।

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষক কর্মচারীদের বেতন-ভাতা বাবদ যে অর্থ সরকার দেয়, তাকে মান্থলি পেমেন্ট অর্ডার বা এমপিও বলা হয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জনবল অনুযায়ী এই সহায়তা দেয় সরকার।

অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নেয়া প্রতিবন্ধী স্কুলের শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এসব প্রতিবন্ধী স্কুলগুলো মূলত সমাজকল্যাণ অধিদপ্তরের অধীনে। এসব স্কুলে প্রাথমিকের পাঁচটি শ্রেণির আগে ‘প্রাক প্রাথমিক ও প্রস্তুতিমূলক’ নামের একটি শ্রেণি রয়েছে। আর প্রাথমিকের পর শিক্ষার্থীদের বৃত্তিমূলক শিক্ষা দেয়া হয়।

বৃত্তিমূলক শিক্ষা কী জানতে চাইলে প্রতিবন্ধী বিদ্যালয় শিক্ষক শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের হাতে-কলমে শেখানো, অর্থাৎ কোনো কাজ শিখিয়ে তাকে স্বাবলম্বী হতে সহযোগিতা করা। এসব প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীরা যেন সমাজের সঙ্গে খাপ খাইয়ে চলতে পারে, ভালো-মন্দ বুঝতে পারে এটাই আমাদের স্কুলগুলোর মূল লক্ষ্য।’

সারাদেশ থেকেই অবস্থান কর্মসূচিতে যোগ দিয়েছেন শিক্ষক-কর্মচারীরা। পাবনার পিএসএস অটিজম ও প্রতিবন্ধী বিদ্যালয় থেকে এসেছেন হেলালুর রহমান নামের এক শিক্ষক। তিনি বলেন, ‘২০১৫ সালে আমাদের বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। এরপর থেকে আমরা শিক্ষকরা নিজেদের টাকা দিয়ে স্কুল পরিচালনা করছি। আমাদের কোনো বেতন-ভাতা নেই। এখন আমাদের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। আমাদের স্কুলে প্রতিদিন শিক্ষার্থীদের খাওয়ানো হয়। এখন তাদের কী খাওয়াবো সেটি জানি না।’

একই স্কুল থেকে আসা আরেক শিক্ষক মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের স্কুলে প্রায় ২৫০ শিক্ষার্থী আছে। তাদের জন্য আমাদের তিনটি মাইক্রোবাস আছে। অথচ টাকার অভাবে আমরা শিক্ষকরা নিজেরা হেঁটে স্কুলে আসি। আমাদের এখন চলার মতো অবস্থা নেই। তাই বাধ্য হয়ে এখানে এসেছি। এমপিওভুক্ত না করে আমরা এখান থেকে যাব না।’

নেত্রকোণার কলমাকান্দা অটিস্টিক ও বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের শিক্ষক সেলিম মিয়া বলেন, ‘আমাদের বেতন ভাতা নেই। কষ্ট করে নিজেদের টাকায় স্কুল পরিচালনা করছি। আমাদের পক্ষে এভাবে স্কুল পরিচালনা করা আর সম্ভব হচ্ছে না। সরকার যদি আমাদের স্কুলগুলোকে এমপিওভুক্ত করে তাহলে আমরা স্বস্তিতে থাকতে পারব।’

গাইবান্ধার ফয়জার রহমান মন্ডল বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী ও অটিজম বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক এনামুল হক বলেন, ‘দীর্ঘদিন নিজেদের টাকায় স্কুল পরিচালনা করতে করতে নিজেদের আর্থিক অবস্থাও খারাপ হয়ে গেছে। আমাদের স্কুলে ৩০১ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। আমাদের শিক্ষার্থীদের কেউ কেউ হাঁটতে পারে না, আবার কেউ কথা বলতে পারে না। তাদের জন্য আমাদেরই পরিবহনের ব্যবস্থা করতে হয়। তাদের খাওয়ার ব্যবস্থাও আমরা করি। কিন্তু নিজেদের টাকায় এতো শিক্ষার্থীকে এভাবে আর সম্ভব হচ্ছে না।’

বাংলাদেশ প্রতিবন্ধী বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সমন্বয়ক আরিফুর রহমান অপু বলেন, ‘২০০৯ সালে প্রতিবন্ধী বিদ্যালয় নীতিমালা প্রণয়ন করা হলেও এখনও তা বাস্তবায়ন করা হয়নি। দেশের বিভিন্ন বিদ্যালয়গুলো এমপিওভুক্ত হলেও প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়গুলো বঞ্চিত হয়ে আসছে। আর বঞ্চিত হতে চাই না, আমরা এমপিওভুক্তি চাই। সরকারি বেতন ভাতা চাই। আমাদের স্কুলগুলো এমপিওভুক্ত না হওয়া পর্যন্ত আমরা এখানে অবস্থান করব। এমপিওভুক্তির স্বীকৃতি নিয়েই এখান থেকে আমরা যাব।’

তাদের দাবিগুলো হলো:

১. প্রতিবন্ধিতা সম্পর্কিত সমন্বিত বিশেষ শিক্ষা নীতিমালা অনুযায়ী বিদ্যালয়সমূহের একসঙ্গে স্বীকৃতি ও এমপিওভুক্ত করতে হবে।

২. বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নিয়োগের তারিখ হতে বেতন ভাতা দিতে হবে।

৩. সব বিদ্যালয়ের বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন ছাত্র/ছাত্রীদের শতভাগ উপবৃত্তির ব্যবস্থা করা।

৪. সব বিদ্যালয়ে প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের শিক্ষা কারিকুলাম অনুযায়ী বিনামূল্যে পাঠ্য বই বিতরণ নিশ্চিত করা।

৫. বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন ছাত্র/ছাত্রী উপযোগী স্বাস্থ্যসম্মত খাবার পরিবেশন করা।

৬. সব বিদ্যালয়ে চাহিদা অনুযায়ী শিক্ষা উপকরণ শতভাগ নিশ্চিত করা।

৭. প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়সমূহ নিয়মিত মনিটরিং নিশ্চিত করা।

৮. শিক্ষক/কর্মচারীদের মান উন্নয়নমূলক ট্রেনিংসহ সংশ্লিষ্ট সব সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা।

৯. শতভাগ বিদ্যালয়ে আধুনিক মানসম্পন্ন প্রতিবন্ধীবান্ধব ভবন নির্মাণ নিশ্চিত করা।

১০. প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়সমূহে আধুনিক থেরাপি সরঞ্জাম সরবরাহসহ থেরাপি সেন্টার চালু করা।

১১. ছাত্র/ছাত্রীদের শিক্ষাজীবন শেষে যোগ্যতা অনুযায়ী কর্মসংস্থানসহ আত্মনির্ভরশীল জীবন যাপনের নিশ্চয়তা প্রদান।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

শিক্ষক
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

ঘটনা পরিক্রমা : শিক্ষক

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close