• শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১ আশ্বিন ১৪২৭
  • ||

প্রাথমিক শিক্ষকরা কর্মকর্তা হতে পারবেন না!

প্রকাশ:  ১২ আগস্ট ২০২০, ০২:১৫
নিজস্ব প্রতিবেদক
ফাইল ছবি

দুইটি শর্ত পূরণ করে বিভাগীয় প্রার্থী হিসেবে উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার পদে পরীক্ষা দিয়ে কর্মকর্তা হয়েছেন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অনেক প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক। তবে ‘সমন্বিত নিয়োগ বিধিমালা-২০২০’ নামের বিধিমালা অনুযায়ী শিক্ষকদের এভাবে কর্মকর্তা হওয়ার পথ বন্ধ হচ্ছে।

নতুন নিয়োগ বিধিমালা অনুযায়ী শুধু প্রধান শিক্ষকদের জন্য এ সুযোগ রাখা হয়েছে।

এ বিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. আকরাম আল হোসেন বলেন, বিধিমালাটির খসড়া চূড়ান্ত করে তারা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠিয়েছেন। প্রশাসনিক উন্নয়ন সংক্রান্ত সচিব কমিটিতে এটি যাবে। সেখানে খুঁটিনাটি বিস্তারিত আলোচনা হবে।

তিনি বলেন, শিক্ষকদের বঞ্চিত করার কোনো প্রশ্ন আসে না। বিভাগীয় প্রার্থী হিসেবে পরীক্ষা দিয়ে নয়, পদোন্নতি পেয়েই প্রধান শিক্ষকরা ভবিষ্যতে সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার (এটিও) হবেন। কেউ কোনো ব্লক পোস্টে আটকে থাকুন, সেটি চাই না। এতে কোনো প্রণোদনা থাকে না। শিক্ষকরাও ধাপে ধাপে ওপরের পদে পদোন্নতি পাবেন। এ জন্য পদোন্নতির সোপান তৈরি করা হচ্ছে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ বলেন, সহকারী শিক্ষক পদকে এন্ট্রি পদ ধরে ওপরের পদে পদোন্নতি দেওয়া হবে। সবাই যোগ্যতা থাকলে সময়মতো পদোন্নতি পাবেন। শিক্ষকদের মধ্য থেকেই ৮০ ভাগ এটিও বানানো হবে। বাকি ২০ ভাগ এটিও আসবেন সরাসরি নিয়োগ পেয়ে। তাই শিক্ষকদের দুশ্চিন্তা করার কিছু নেই।

এদিকে খসড়া নিয়োগবিধিতে আছে, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসারের দুই হাজার ৫৮৯টি পদে নিয়োগে ৮০ শতাংশ পদ বিভাগীয় প্রার্থীদের জন্য সংরক্ষিত থাকবে। বাকি ২০ শতাংশ পদ উন্মুক্ত প্রার্থীদের মধ্যে থেকে পূরণযোগ্য। বিভাগীয় প্রার্থী বলতে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের বোঝাবে। বিভাগীয় প্রার্থীদের প্রধান শিক্ষক হিসেবে নূ্যনতম তিন বছর চাকরির অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। তবে বিভাগীয় প্রার্থীদের জন্য সংরক্ষিত পদে যোগ্য প্রার্থী পাওয়া না গেলে পদগুলো উন্মুক্ত প্রার্থীদের মধ্য থেকে পূরণ করা হবে। সরাসরি নিয়োগে বয়স অনূর্ধ্ব ৩০ বছর। তবে বিভাগীয় প্রার্থীদের ক্ষেত্রে ৪৫ বছর পর্যন্ত শিথিলযোগ্য।

কর্মকর্তাদের অন্য পদ উপজেলা/থানা রিসোর্স সেন্টারের ‘ইনস্ট্রাক্টর’-এর ৫০৫টি পদে নিয়োগে মোট পদের ৩৫ শতাংশ পদোন্নতির মাধ্যমে এবং ৬৫ শতাংশ পদ সরাসরি নিয়োগের মাধ্যমে পূরণ করার কথা। তবে পদোন্নতিযোগ্য প্রার্থী পাওয়া না গেলে সরাসরি নিয়োগের মাধ্যমে পূরণ করার কথা রয়েছে। পদোন্নতির জন্য উপজেলা/থানা রিসোর্স সেন্টারের সহকারী ইনস্ট্রাক্টর/পরীক্ষণ বিদ্যালয়ের শিক্ষক পদে নূ্যনতম সাত বছরের চাকরির অভিজ্ঞতা এবং শিক্ষাগত যোগ্যতা দ্বিতীয় শ্রেণির বিএডসহ দ্বিতীয় শ্রেণির স্নাতক ডিগ্রি চাওয়া হয়। সরাসরি নিয়োগে বয়স ৩০ বছর, তবে বিভাগীয় প্রার্থীদের বয়সের কোনো সীমা উল্লেখ নেই।

ইউআরসি সহকারী ইনস্ট্রাক্টরের ৫০৫টি পদে নিয়োগও একই নিয়মে। তবে এখানেও বিভাগীয় প্রার্থী বলতে শুধু প্রধান শিক্ষকদের বোঝানো হয়েছে। দেশের ৬৭টি পিটিআইতে ইনস্ট্রাক্টর সাধারণ ও বিভিন্ন বিষয়ভিত্তিক ইনস্ট্রাক্টর পদেও প্রাথমিক শিক্ষকদের বিভাগীয় পদোন্নতির সুযোগ রাখা হয়নি। তবে কর্মকর্তাদের অন্যান্য পদ, যেমন- ইউইও, টিইও, এডিপিইও, ডিপিইও পদে শতভাগ পদোন্নতির কথা প্রণীত খসড়ায় বলা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, আগামী কিছুদিনের মধ্যে এই নিয়োগবিধি চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভার বৈঠকে উপস্থাপন করা হতে পারে।

এদিকে প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ শামছুদ্দীন মাসুদ বলেন, প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এখন উচ্চশিক্ষিত ও মেধাবীরা আসছেন। এই মেধাবীদের ধরে রাখতে হলে তাদের যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা অনুযায়ী পদোন্নতির সুযোগ দিতে হবে। আমরা চাই সব পদে যোগ্যতা, দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে শতভাগ পদোন্নতি এবং পদোন্নতিতে প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকের সমান সুযোগ।

পূর্বপশ্চিমবিডি/জেডআই

শিক্ষক
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close