• শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ৯ কার্তিক ১৪২৭
  • ||

ক্যাসিনো সেলিমের আরেক কুকীর্তির খোঁজ মিললো

প্রকাশ:  ১৯ অক্টোবর ২০২০, ০০:৩৮
নিজস্ব প্রতিবেদক

দুর্নীতি দমন কমিশনের অনুসন্ধানে সম্প্রতি বেরিয়ে আসে নতুন কিছু তথ্য। বিদেশে অর্থ পাচার, বিদেশি ব্যাংকগুলোতে লেনদেন, সেলিমের নামে থাকা ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের তথ্য উদ্‌ঘাটন করে দুদক।

দুদক সূত্র জানায়, থাইল্যান্ডের দুই ব্যাংকে ২০ কোটি টাকারও বেশি পরিমাণ লেনদেন করেছেন সেলিম প্রধান। ব্যাংকগুলো হলো ব্যাংকক ব্যাংক ও দ্য সায়েম কমার্শিয়াল ব্যাংক। অনলাইন ক্যাসিনো থেকে আয়ের অবৈধ অর্থ এসব ব্যাংকের মাধ্যমে লেনদেন করতেন সেলিম প্রধান।

সূত্র আরো জানায়, অনলাইন ক্যাসিনোর এই হোতা ১৩ কোটি টাকা পাচার করেছেন থাইল্যান্ডে। দেশে বসে ক্যাসিনো খেলে এই পরিমাণ অর্থ থাইল্যান্ডে পাচার করেন সেলিম প্রধান। দুদকের অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে পাচারের প্রমাণ। তবে সংস্থাটি বলছে, এখনই থামছে না অনুসন্ধান। সেলিম প্রধান আরো কোন কোন দেশে অর্থ পাচার করেছেন তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এদিকে দুদকের অনুসন্ধান সূত্র আরো বলছে, বাংলাদেশেই সেলিম প্রধানের রয়েছে অন্তত অর্ধশত ব্যাংক হিসাব এবং আয়কর নথি। যা এরই মধ্যে দুদকের অনুসন্ধান কর্মকর্তা জব্দ করেছেন বলে জানা গেছে। এ ছাড়া সংস্থাটি সেলিম প্রধানের দেশে থাকা বেশ কয়েকটি স্থাবর সম্পদও জব্দ করেছে বলে জানিয়েছে।

অপরদিকে অনলাইন ক্যাসিনোর এই ডন বিদেশে বিপুল পরিমাণ সম্পদের মালিক হয়েছেন বলে দুদক সূত্র জানিয়েছেন। এসবের মধ্যে প্রধান গ্লোবাল ট্রেডিং, এশিয়া ইউনাইটেড, তমা হোম পাতায়াসহ সাতটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান তার মালিকানায় রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠান থেকে কী পরিমাণ অর্থ আয় হয়েছে তাও খতিয়ে দেখছে দুদক। সংস্থাটির এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, সব যাচাই বাছাই শেষে শিগগিরই সেলিম প্রধানের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেয়া হবে।

২০১৯ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর দুপুরে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সেলিম প্রধানকে আটক করে র‌্যাব-১। এরপর তার গুলশান, বনানীর বাসা ও অফিসে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে ২৯ লাখ টাকা, বিপুল পরিমাণ বিদেশি মদ এবং বিভিন্ন দেশের মুদ্রা ও হরিণের চামড়া জব্দ করা হয়। হরিণের চামড়া উদ্ধারের ঘটনায় ওই দিনই সেলিম প্রধানকে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইনে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত।

পূর্বপশ্চিমবিডি/জেআর

সেলিম
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close