• শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯
  • ||

অর্থপাচার মামলায় আবু আহাম্মদকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ

প্রকাশ:  ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ১৬:৪০
নিজস্ব প্রতিবেদক

২৪০ কোটি টাকা পাচারের মামলায় চট্টগ্রামের স্বর্ণ চোরাকারবারি আবু আহাম্মদকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। সেইসাথে তার বিদেশ যাত্রায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক। দুর্নীতি দমন কমিশন- দুদকের পক্ষে ছিলেন খুরশীদ আলম খান।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন জানান, বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করলেও ৯ মাস ধরে নানা অজুহাতে সময়ক্ষেপণের কারণে আবু আহাম্মদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়। সেই তথ্য গোপন করে আবারও উচ্চ আদালতে আগাম জামিনের আবেদন করলে তাকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

ব্যবসায়ী আবু আহাম্মদ চট্টগ্রামের ফটিকছড়ির বাসিন্দা। ২০২০ সালের ১৮ মার্চ আবু আহাম্মদসহ ২০ জনের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় মামলা করে পুলিশের অপরাধ তদন্ত সংস্থা সিআইডি।

মামলায় বলা হয়, আসামিরা একে অপরের সহায়তায় প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কয়েকটি ব্যাংক হিসাব নম্বরে ১২ বছর ধরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে স্বর্ণ চোরাচালান, চোরাই ও অন্যান্য দ্রব্যের অবৈধ ব্যবসা ও হুন্ডির মাধ্যমে ২৪০ কোটি টাকার পাচারের অর্থ দিয়ে গাড়ি, বাড়ি, মার্কেটসহ বিভিন্ন সম্পত্তি অর্জন করেছেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক গোয়েন্দা সংস্থা বিএফআইইউ থেকে পাওয়া হিসাব বিবরণী, কাগজপত্র পর্যালোচনা, লেনদেনের ধরন এবং আসামির স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ পর্যালোচনায় এ সিদ্ধান্তে পৌঁছায় সিআইডি।

গত ৭ ফেব্রুয়ারি বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদারের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চ হাজির হয়ে আগাম জামিন চান আবু আহাম্মদ। তার আবেদন গ্রহণ করে তিন সপ্তাহের মধ্যে চট্টগ্রামের সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেয় উচ্চ আদালত।

তবে আবু আহাম্মদ ২২ ফেব্রুয়ারি আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করলেও বারবার শুনানি পেছানোর কৌশল নিতে থাকেন।

তার জামিন আবেদন পেয়ে চট্টগ্রামের সিনিয়র স্পেশাল জজ ইসমাইল হোসেন নথি তলব করে ৫ মে শুনানির জন্য দিন ঠিক করেন। কিন্তু চট্টগ্রামের চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত থেকে নথি না আসায় জামিন শুনানি হয়নি।

এরপর ১৩ জুলাই আবার শুনানির দিন ঠিক হলেও নথি না আসায় সেদিনও শুনানি হয়নি। সেদিন আদালত ৩১ আগস্টের মধ্যে নথি জমা দিয়ে ৫ সেপ্টেম্বর শুনানির দিন ঠিক করে। কিন্তু এভাবে আরও কয়েকবার শুনানির জন্য সময় প্রার্থনা করেন আসামি। এসব আবেদন গ্রহণও করে আদালত।

তবে গত ১৩ নভেম্বর আসামির সময় আবেদন নাকচ করে তার বিরুদ্ধে জারি হয় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা। সেই তথ্য লুকিয়ে আবারও হাইকোর্টে আবেদন করা হলে হাইকোর্ট সেটা ধরে ফেলে।

অর্থপাচার
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close