• বুধবার, ০১ এপ্রিল ২০২০, ১৮ চৈত্র ১৪২৬
  • ||

ব্যাংকিং খাতে অনিয়ম-দুর্নীতি দেখে চোখ বন্ধ রাখতে পারি না: সুপ্রিম কোর্ট

প্রকাশ:  ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:২২
নিজস্ব প্রতিবেদক

ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্স সার্ভিসেস লিমিটেডের সর্বশেষ অব্স্থা সম্পর্কে কোম্পানিটির স্বাধীন চেয়ারম্যান হাইকোর্টের নির্দেশে নিয়োগপ্রাপ্ত বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদের বক্তব্য জানতে চেয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।সেইসঙ্গে দেশের ব্যাংকিং খাত নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে আদালত জানায়, ব্যাংকগুলোর অবস্থা খারাপের দিকে যাচ্ছে। টাকা দিয়ে এদের টিকিয়ে রাখছে সরকার। এ অবস্থায় চোখ বন্ধ করে রাখা যায় না। এক এক করে সবাইকে ধরা হবে।

হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত চেয়ে করা আবেদনের শুনানির পর রোববার (১৬ ফেব্রুয়ারি) প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

হাইকোর্টের নির্দেশে আইএলএফএসএল’র স্বাধীন চেয়ারম্যান হিসেবে নিযুক্ত এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গর্ভনর খন্দকার ইব্রাহীম খালেদ এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একজন কর্মকর্তা যিনি নির্বাহী পরিচালকের নিচের পদমর্যাদার নয়- তাদের আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারি আদালতে তলব করা হয়েছে। লিখিত আকারে আইএলএফএসএলের হিসাব দিতে হবে তাদের।

আদালত জানান, দিন দিন ব্যাংকিং খাতের অবস্থা খারাপ হচ্ছে। আর্থিক সহায়তার মাধ্যমে সরকার ব্যাংকগুলোকে টিকিয়ে রেখেছে।

এই অবস্থায় আমরা আমাদের চোখ বন্ধ করে রাখতে পারি না, বলেন আদালত।

জানুয়ারিতে হাইকোর্ট এক আদেশে আইএলএফএসএলের বেশ কয়েকজন কর্মকর্তার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এবং পাসপোর্ট জব্দে সরকারকে নির্দেশ দেন। যাদের মধ্যে এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং রিলায়েন্স ফাইন্যান্স লিমিডেটের প্রশান্ত কুমার হালদারও রয়েছেন।

আদেশ চ্যালেঞ্জ করে আপিল করে আইএলএফএসএল।এর আগে গত ২১ জানুয়ারি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আর্থিক খাতের কোম্পানি ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেডের স্বাধীন পরিচালক ও চেয়ারম্যান হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ইব্রাহিম খালেদকে নিয়োগ দেন হাইকোর্ট।

জানা গেছে, ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেসের ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও কোম্পানিটির প্রধান অর্থ কর্মকর্তা (সিএফও) সৈয়দ আবেদন হাসান।

সাতজন বিনিয়োগকারীর টাকা ফেরত-সংক্রান্ত এক আবেদনের শুনানি নিয়ে ২১ জানুয়ারি হাইকোর্টের বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের বেঞ্চ স্বপ্রণোদিত হয়ে এ আদেশ দেন।

একই আদালত এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংক ও রিলায়েন্স ফাইন্যান্স লিমিটেডের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রশান্ত কুমার হালদারসহ (পিকে হালদার) ২০ জনের সম্পদ ও ব্যাংক হিসাব জব্দ এবং পাসপোর্ট আটকানোর নির্দেশ দিয়েছেন। হাইকোর্ট বলেছেন, তারা যেন দেশত্যাগ না করতে পারেন, সেদিকেও নজর রাখতে।

পূর্বপশ্চিমবিডি/জিএম

হাইকোর্ট,গ্লোবাল ব্যাংক,ব্যাংকিং খাত,ডেপুটি গভর্নর,খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close