• মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৭ আশ্বিন ১৪২৭
  • ||

লাল সালুর লেখক ওয়ালি উল্লাহর সন্তানদের ঢাকার বাড়ি পেতে মামলা

প্রকাশ:  ২০ জানুয়ারি ২০২০, ০৩:৩২
নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রয়াত কথাসাহিত্যিক সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর ঢাকার গুলশানের জমি-বাড়ি আত্মসাৎ করা হয়েছে অভিযোগ করে তা ফেরত পেতে ঢাকার আদালতে মামলা করেছেন তার সন্তানরা।

ওয়ালীউল্লাহর ছেলে ইরাজ ওয়ালীউল্লাহ ও মেয়ে সিমিন ওয়ালীউল্লাহ রোববার (১৯ জানুয়ারি) ঢাকার প্রথম যুগ্ম জেলা জজ উৎপল ভট্টাচার্যের আদালতে হাজির হয়ে এ মামলা দায়ের করেন।

মামলায় তারা অভিযোগ করেছেন, ওয়ালীউল্লাহর মৃত্যুর পর ‘ভালোবেসে ও বিশ্বাস করে’ তারই মামাতো ভাই ও পরিবারের ঘনিষ্ঠ কামাল জিয়াউল ইসলামকে (কে জেড ইসলাম) নিজেদের সম্পত্তি রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব দিয়েছিল তাদের পরিবার। কিন্তু তিনি সেই ‘ভালোবাসার দাম’ দেন সম্পত্তি নিজের ছেলের নামে হস্তান্তর করে।

দেড়শ কোটি টাকা মূল্যের গুলশানের ওই সম্পত্তির মালিকানা ও দখল চেয়ে দেওয়ানি আদালতে এই মামলা করেছেন ফ্রান্স প্রবাসী ইরাজ ও সিমিন ওয়ালীউল্লাহ।

একইসঙ্গে অন্তর্বর্তীকালীন ব্যবস্থা হিসেবে জমির উপর যে কোনো ধরনের স্থাপনা নির্মাণ এবং সম্পত্তির আকারের পরিবর্তন বা ক্ষতিসাধনের উপর নিষেধাজ্ঞা চেয়েছেন তারা।

মামলায় তাদের আত্মীয় ও গৃহনির্মাণ ব্যবসায়ী কামাল জিয়াউল ইসলাম, তার স্ত্রী খাদিজা ইসলাম, ছেলে রাইয়ান কামাল ও রাহাত কামাল এবং তাদের ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান নির্মাণ বিল্ডার্স অ্যান্ড ডেভেলপার্স ‍লিমিটেডকে মূল বিবাদী করা হয়েছে।

এছাড়া রাজউক, গৃহায়নও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব, ঢাকার জেলা প্রশাসক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকসহ (রাজস্ব) ছয়জনকে মোকাবেলা বিবাদী করা হয়েছে।

বিচারক বাদীর বক্তব্য শুনে ওই সম্পত্তির ওপর কোনো প্রকার স্থাপনা নির্মাণসহ যে কোনো ধরনের পরিবর্তন সাধন বা হস্তান্তরের উপর কেন নিষেধাজ্ঞা জারি করা হবে না, তা জানতে চেয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছেন। আগামী দুই দিনের মধ্যে বিবাদীদের এই নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আদালতে বাদীপক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী রানা দাশগুপ্ত, চিত্তরঞ্জন বল ও দীপঙ্কর ঘোষ। পরে আদালতের আদেশের বিষয়টি আইনজীবী দীপঙ্কর ঘোষ সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

মামলার আরজিতে বলা হয়, ওয়ালীউল্লাহ ১৯৭০ সালের ১২ মার্চ গুলশান মডেল টাউনের ১০ নম্বর প্লটের সিইএন (বি), ৯৬ নম্বর সড়কে ১ বিঘা ২ কাঠা জমি এবং তার ওপর দুই তলা ভবন জনৈক মোহাম্মদ আশরাফীর কাছ থেকে হস্তান্তর সূত্রে মালিকানা পান। রাজউকের এই সম্পত্তি ৯৯ বছরের জন্য লিজ সূত্রে মালিক ছিলেন আশরাফী।

মুক্তিযুদ্ধের সময় প্যারিসে চাকরিতে থাকাকালে ১৯৭১ সালের ১০ অক্টোবর মারা যান সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ। তখন তার স্ত্রী আন-মারি ওয়ালীউল্লাহ (আজিজা নাসরিন) ছিলেন ফরাসি নাগরিক এবং তাদের দুই সন্তান ছিলেন অপ্রাপ্ত বয়স্ক।

এ অবস্থায় গুলশানের ওই সম্পত্তি দেখাশুনার জন্য আন-মারি তার স্বামী সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর মামাত ভাই ও তাদের পরিবারের ঘনিষ্ঠ কে জেড ইসলামকে আম-মোক্তারনামা দেন।

পরবর্তীতে তার ছেলে-মেয়ে প্রাপ্তবয়স্ক হলে কে জেড ইসলামের বরাবরে নতুন আরেকটি আম-মোক্তারনামা দেওয়া হয়। সেই সূত্রে রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব পেয়ে কে জেড ইসলাম ওই বাড়িতেই পরিবারসহ থাকতেন। আন-মারি ও তার দুই সন্তান ঢাকায় এলে কে জেড ইসলামের সঙ্গেই ওই বাড়িতে উঠতেন।

১৯৯৭ সালের ১২ জুলাই আন-মারি মারা যান। তার মৃত্যুর আগেই মায়ের সঙ্গে তার দুই সন্তানও ওই সম্পত্তিতে নাম জারি করে মালিকনাপ্রাপ্ত হন। তখনও আম-মোক্তারনামা সূত্রে রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব তাদের চাচা কে জেড ইসলামের কাছেই ছিল।

মামলায় বলা হয়, ২০১৭ সালের ১৬ এপ্রিল ফ্রান্স থেকে ঢাকায় আসেন ইরাজ ওয়ালীউল্লাহ ও সিমিন ওয়ালীউল্লাহ। মৃত মা আন-মারিকে বাদ দিয়ে সম্পত্তিটি নিজেদের নামে নামজারি করার উদ্দেশ্যে এসেছিলেন তারা।

তবে ঢাকায় এসে তারা ওই বাড়িতে গেলে জনতে পারেন যে, জায়গা ও বাড়িটি কে জেড ইসলাম তার বড় ছেলে রাইয়ান কামালের কাছে আম-মোক্তারনামার শর্ত লংঘন করে হস্তান্তর করেছেন। তবে সম্পত্তিটি নিজের নামে নামজারি করতে রাজউকে গিয়ে ব্যর্থ হন রাইয়ান কামাল। এরপর রাজউকের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে রিট করেও নামজারির আদেশ পাননি তিনি।

অন্যদিকে, নির্মাণ ইন্টারন্যাশনালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামাল জিয়াউল ইসলাম এক সময় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি ছিলেন। ওই সময়েই বাংলাদেশে জাতীয় পর্যায়ে স্কুল ক্রিকেট চালু হয়।

কামাল জিয়াউল ইসলামের স্ত্রী খাদিজা ইসলাম নির্মাণ ইন্টারন্যাশনালের চেয়ারম্যান। তাদের ছেলে রায়হান কামাল ও রাহাত কামালও কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদের সদস্য। প্রসঙ্গত, লাল সালু , কাঁদো নদী কাঁদোর মত উপন্যাসের লেখক সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ ১৯৫১ ও ৬০ এর দশকে পাকিস্তান সরকারের কর্মকর্তা হিসেবে বিভিন্ন দেশে কূটনৈতিক দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬০ থেকে ১৯৬৭ সাল পর্যন্ত প্যারিসে পাকিস্তান দূতাবাসের ফার্স্ট সেক্রেটারির দায়িত্ব পালনের পর ১৯৭১ সাল পর্যন্ত তিনি প্যারিসে ইউনেস্কোর প্রোগ্রাম স্পেশালিস্ট হিসেবে কাজ করেন। ওই বছর মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি প্রবাসে থেকেই বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে প্রচার চালান।

পূর্বপশ্চিমবিডি/জিএম

প্রয়াত কথাসাহিত্যিক,সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর,গুলশানের জমি-বাড়ি,আত্মসাৎ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close