• শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
  • ||

আইএস টুপি কোথায় পেয়েছেন আদালতকে জানালেন রিগ্যান 

প্রকাশ:  ০৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৫:৪০ | আপডেট : ০৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৫:৫৭
নিজস্ব প্রতিবেদক

আইএসের লোগো সম্বলিত টুপি ভিড়ের মধ্যে অপরিচিত একজন ব্যক্তি দিয়েছে বলে জানিয়েছেন রাজধানীর হলি আর্টিজান হামলা মামলার রায়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত আসামি রাকিবুল হাসান রিগ্যান।

মঙ্গলবার (০৩ ডিসেম্বর) আদালতে এ তথ্য জানান রিগ্যান। এরআগে রাজধানীর কল্যাণপুরের জঙ্গি আস্তানায় অভিযানের মামলায় রিগ্যানকে আদালতে হাজির করা হয়।

আদালতে বিচারক রিগ্যানের কাছে জানতে চান, আইএসের মনোগ্রাম-সম্বলিত টুপি কোথায় পেলেন? জবাবে রিগ্যান বলেন, ভিড়ের মধ্যে একজন টুপিটি দিয়েছেন। বিচারক জানতে চান, কে দিয়েছে? রিগ্যান বলেন, চিনি না। তখন বিচারক বলেন, টুপিটি নিলেন কেন? রিগ্যান বলেন, কালেমা শাহাদাত লেখা ছিল, ভালো লাগায় টুপিটি নিয়েছি।

বিচারক বলেন, আর কাউকে কি টুপি দিয়েছিল? তখন রিগ্যান বলেন, না আর কাউকে দেয়নি। প্রিজন ভ্যানে ওঠার পর রাজীব গান্ধী আমার টুপিটি নিয়ে পরেছে।

কল্যাণপুরের জঙ্গি আস্তানায় অভিযানের মামলায় আজ সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমানের আদালতে শুনানির দিন ধার্য ছিল। এ মামলার আসামি ১০ জন। আসামির মধ্যে রিগ্যানসহ ৯ জন কারাগারে আছেন। অপর আসামি পলাতক।

কল্যাণপুরের জাহাজ বাড়িতে জঙ্গি আস্তানা মামলায় অভিযুক্ত আসামিরা হলো−রাকিবুল হাসান রিগ্যান (২১), সালাহ উদ্দিন কামরান (৩০), আব্দুর রউফ প্রধান (৬৩), আসলাম হোসেন ওরফে রাশেদ ওরফে আবু জাররা ওরফে র‌্যাশ (২০), শরীফুল ইসলাম ওরফে খালেদ ওরফে সোলায়মান (২৫), মামুনুর রশিদ রিপন ওরফে মামুন (৩০), আজাদুল কবিরাজ ওরফে হার্টবিট (২৮), মুফতি মাওলানা আবুল কাশেম ওরফে বড় হুজুর (৬০), আব্দুস সবুর খান হাসান ওরফে সোহেল মাহফুজ ওরফে নাসরুল্লা হক ওরফে মুসাফির ওরফে জয় ওরফে কুল মেন (৩৩) ও হাদিসুর রহমান সাগর (৪০)।

এ মামলায় জামিন পাওয়া দুই আসামি হলো−আব্দুর রউফ প্রধান ও মুফতি মাওলানা আবুল কাশেম ওরফে বড় হুজুর। এছাড়া আজাদুল কবিরাজ ওরফে হার্টবিট পলাতক রয়েছে।

এর আগে, গত বছরের ৫ ডিসেম্বর আদালতে এ অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের পরিদর্শক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম।


পূর্বপশ্চিমবিডি/ওআর

আদালত,রিগ্যান,মামলা,হলি আর্টিজান
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত