• রোববার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬
  • ||

কাউন্সিলর হয়েই বিপুল সম্পদের মালিক হন রাজীব

প্রকাশ:  ০৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৩:৩৮
নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর রাতারাতি বিপুল সম্পদের মালিক হন বহিষ্কৃত যুবলীগ নেতা ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৩৩নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তারেকুজ্জামান রাজীব।

তার বিরুদ্ধে দাখিল করা অস্ত্র আইনের মামলার চার্জশিটে এ কথা উল্লেখ করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‍্যাব-২ এর এসআই (নিরস্ত্র) প্রণয় কুমার প্রামাণিক।

এসআই প্রণয় কুমার গত ২২ নভেম্বর রাজীবের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। গত ২৫ নভেম্বর ঢাকা মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিমের আদালতে চার্জশিট উপস্থাপন করা হয়। আদালত চার্জশিট দেখেছেন।

মঙ্গলবার (৩ ডিসেম্বর) এ মামলা তারিখ ধার্য করা হয়েছে। এ দিন আদালত মামলার বিচারের জন্য ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে বদলির আদেশ দিবেন বলে আদালত সূত্রে জানা গেছে।

চার্জশিটে তদন্ত কর্মকর্তা উল্লেখ করেন, তারেকুজ্জামান রাজীব দীর্ঘদিন যাবত অবৈধ অস্ত্র নিজের কাছে রেখে তার সহযোগীদের সহযোগিতায় অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র প্রদর্শন করে ভূমিদস্যুতা, চাঁদাবাজি, অবৈধ দখলদারিত্ব এবং মোহাম্মদপুর ও আদাবর থানা এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছিল।

আসামি ধূর্ত ও চালাক প্রকৃতির। তার বিরুদ্ধে কেউ ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস করে না। রাজীবের নামে মোহাম্মদপুর, চাঁদ উদ্যান, রায়েরবাজার বেড়ীবাঁধ এলাকায় নামে-বেনামে বিপুল সম্পত্তি (জায়গা, ফ্ল্যাট) রয়েছে। তিনি একাধিক নতুন নতুন ব্র্যান্ডের যানবাহন ব্যবহার করেন। যা মূলত ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর তিনি রাতারাতি এসব সম্পদ অর্জন করেন। স্থানীয় তদন্তে আসামির স্বভাব-চরিত্র সন্দেহজনক বলে জানা যায়।

১৯ অক্টোবর রাতে রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার একটি বাড়ি থেকে তারেকুজ্জামান রাজীবকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তার বিরুদ্ধে ভাটারা থানায় অস্ত্র ও মাদক আইনে দুটি মামলা দায়ের করেন ‌র‍্যাব-১ এর ডিএডি মিজানুর রহমান।

অস্ত্র মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, গত ১৯ অক্টোবর র‍্যাব-১ গোপন সংবাদে জানতে পারে, রাজধানীর ভাটারা থানাধীন বসুন্ধরা আবাসিক এলাকাস্থ সি ব্লকের আফতাব উদ্দিন আহমেদ রোডের ৪০৪ নং বাড়ীর বি-৭ ফ্ল্যাটে তারেকুজ্জামান রাজীব বিপুল পরিমাণ মাদকদ্রব্যসহ অবস্থান করছে। পরে র‍্যাব সদর দপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলমের উপস্থিতিতে অভিযান পরিচালনা করা হয়। রাজীবের দখলে ও নিয়ন্ত্রণে থাকা অস্ত্র ও গুলি এবং অবৈধ মাদক উদ্ধার করা হয়।

গত ২১ অক্টোবর দুই মামলায় রাজীবের সাত দিন করে ১৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

গত ৪ নভেম্বর রিমান্ড শেষে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। এরপর অস্ত্র আইনের মামলায় গত ১১ নভেম্বর চার দিন এবং ১৫ নভেম্বর মাদক মামলায় তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। ১৯ নভেম্বর রিমান্ড শেষে তাকে আবার কারাগারে পাঠানো হয়। এরপর থেকে তিনি কারাগারেই আছেন।


পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএম

কাউন্সিলর রাজীব,আদালত,চার্জশিট
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত