• বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
  • ||

কোন দিকে যাচ্ছে নিয়োগ প্রক্রিয়া?

প্রকাশ:  ৩০ মে ২০১৯, ১১:৩৫
জাককানইবি প্রতিনিধি

সম্প্রতি জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শিক্ষক নিয়োগের জন্যে মোট ৬৭টি পদের বিপরীতে বিজ্ঞাপন দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বিজ্ঞাপনে পদের যোগ্যতার বিবরণ উল্লেখ না করে বলা আছে ওয়েবসাইট অনুসরণ করার জন্যে। সংবাদ পত্রে প্রকাশের ২৪ ঘন্টা পেরিয়ে গেলেও বিজ্ঞপ্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে দেখা যায়নি।

কর্মকর্তা কর্মচারী নিয়োগ নিয়ে ইতোমধ্যে কথা উঠছে রেজিস্ট্রার(ভারপ্রাপ্ত) কৃষিবিদ ড. হুমায়ুন কবীর তার আস্থা ভাজন একাধিক ব্যক্তিকে নিয়োগ পাইয়ে দেয়ার চেষ্টায় তৎপর। এর আগেও রেজিস্ট্রার(ভারপ্রাপ্ত) কৃষিবিদ ড. হুমায়ুন কবীর কর্মকর্তাদের পদন্নোতি নিয়ম নিয়ে বিতর্কে পড়েছিলেন। বিতর্ক উঠেছে কর্মকর্তা নিয়োগে ৩টি পদে আসতে পারে তার(ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার ) আস্থাভাজন ৩জন। যেখানে অর্থনৈতিক লেনদেন এর সম্ভাবনাও রয়েছে।

সময়মতো পূর্ণ নোটিশ ওয়েবসাইটে প্রকাশ না করার পেছনে রয়েছে ২৯ মে বুধবার ইউজিসি চেয়ারম্যান এর সাথে উপাচার্য, ট্রেজারার ও রেজিস্ট্রার স্বাক্ষাত। আরও গুঞ্জন উঠেছে নিয়োগ নিয়ে আলোচনা, পূর্বে নিয়োগ নিয়ে দুদক এর অবস্থান সেই সাথে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অবস্থান, বর্তমান নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির যোগ্যতা নিয়ম নিয়েও কথা উঠেছে। এই নিয়োগে পছন্দের ব্যক্তিদের নিয়োগ দিতে এমন নিয়ম করে প্রকাশ পেতে পারে সার্কুলার যা সংবাদ পত্রে প্রকাশ না করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ পাবে এমনটাও অভিযোগ উঠেছে।

অন্যদিকে একাধিক বিভাগের মধ্যে কথা উঠেছে শিক্ষক নিয়োগ এর ক্ষেত্রে প্ল্যানিং কমিটির প্রস্থাবনার বাইরে এসে প্রশাসন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। যেখানে বিভাগ থেকে ১-২জন প্রভাষক এর চাহিদা দিয়েছে সেখানে প্রশাসন সহযোগী অধ্যাপক ও সহকারী অধ্যাপক এর বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে যা সংশ্লিষ্ট বিভাগ চায়নি। এমন তথ্য একাধিক বিভাগ থেকে পাওয়া গেছে।

এই নিয়ে উপাচার্য প্রফেসর ড. এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান বলেন- প্রথমত আজ ইউজিসি চেয়ারম্যান এর সাথে সাক্ষাৎ এর কারণে ঢাকা ছিলাম। কিছু কাজ অবশিষ্ট ছিলো ৩০ মে সকাল ১১ টার মধ্যে ওয়েবসাইটে সম্পূর্ন তথ্য প্রকাশ করা হবে। আর শিক্ষক নিয়োগ ইউজিসির নিয়ম মেনেই করা হচ্ছে। বিজ্ঞপ্তিতে আসা পদে ছাড় পেয়েছি আমরা তাই বিজ্ঞপ্তি দিয়েছি। আমি বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকদের সাথে কথা বলেছি বিষয়টা পরিষ্কার করেছি। আর নিয়োগ পরীক্ষায় বাংলাদেশের যে কেউ অংশ নিতে পারে। সে আমার, আপনার, রেজিস্ট্রারের স্বজন হতেই পারে। আসল প্রশ্নটা হলো নিয়োগ বোর্ড স্বচ্ছ কিনা। আমাদের নিয়োগ বোর্ডে এমন কেউ থাকবে না যার আত্মীয় নিয়োগে অংশ নিবে।

ওয়েবসাইটে পূর্ন তথ্য সমৃদ্ধ নোটিশ না থাকার বিষয়ে রেজিস্ট্রার(ভারপ্রাপ্ত) কৃষিবিদ ড. হুমায়ুন কবীর বলেন, পাওয়া যাবে, পাওয়া যাবে। অপেক্ষা করুন, দেখতে থাকুন পাওয়া যাবেই। আর আমরা বলিনি বিজ্ঞপ্তিতে যে আজ থেকেই ওয়েবসাইটে দেখা যাবে।

শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ রফিকুল আমিন বলেন, ইউজিসির নিয়ম অনুযায়ীই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। যারা এটা নিয়ে নোংরামি করছে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশকে অস্থিতিশীল করতে চায়।

জাককানইবি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত