• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ২১ আষাঢ় ১৪২৯
  • ||

পুতিনের এই ছবি নিয়ে হঠাৎ কেনো আলোচনা?

প্রকাশ:  ১৩ মে ২০২২, ২৩:৪১
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ‘অভ্যন্তরীণ বৃত্তের’ ১২ সদস্যের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ব্রিটেন। রাষ্ট্রীয় প্রভাবশালী পদ ব্যবহার করে দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত সম্পদ লুকানোর অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।

রুশ প্রেসিডেন্টের ‘সিক্রেট বান্ধবী’ ও অলিম্পিক স্বর্ণপদকজয়ী সাবেক জিমন্যাস্ট অ্যালিনা কাবায়েভা ও সাবেক স্ত্রী লুদমিলা ওচেরেৎনায়াও ব্রিটেনের এই নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়েছেন। শুক্রবার নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণায় অ্যালিনা কাবায়েভার ব্যাপারে ব্রিটেনের সরকার বলেছে, পুতিনের সাথে তার ব্যক্তিগত ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে বলে অভিযোগ আছে।

ব্রিটেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিজ ট্রুস এক বিবৃতিতে বলেছেন, আমরা পুতিনের বিলাসবহুল জীবনযাত্রাকে প্ররোচিত করে এবং তার অভ্যন্তরীণ দুষ্ট চক্রকে দৃঢ় করে তোলে, এমন ছায়াময় নেটওয়ার্ককে উন্মোচন এবং লক্ষ্যবস্তু করেছি। ইউক্রেন জয়ী না হওয়া পর্যন্ত আমরা পুতিনের আগ্রাসনে সহায়তা এবং সমর্থনকারী সকলের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা অব্যাহত রাখবো।

ক্রেমলিন প্রধানের একটি বিলাসবহুল ইয়ট ও ‘পুতিনের প্রাসাদ’ নামে বিপুল সম্পত্তি রয়েছে। কিন্তু বিভিন্ন প্রতিবেদনে এসবের সাথে সামান্য রাষ্ট্রীয় বেতন এবং সরকারিভাবে ঘোষিত সম্পদের বিবরণীতে মিথ্যাচার পরিলক্ষিত হয়েছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাজ্য।

বিবৃতিতে ব্রিটেন বলেছে, ‘পুতিনের প্রকৃত সম্পদ পরিবার, শৈশবের বন্ধু এবং রাশিয়ান এলিটদের মধ্য থেকে নির্বাচিত সদস্যদের একটি নেটওয়ার্কের কাছে লুকিয়ে রাখা হয়েছে। আর এই নেটওয়ার্ক ‘অবিরাম আনুগত্যের বিনিময়ে’ রাষ্ট্রীয় শক্তিশালী পদে আসীন রয়েছে।’

শুক্রবার যুক্তরাজ্যের আরোপিত নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের চাচাতো ভাই ও ভাইটাল ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশনের নিয়ন্ত্রণকারী ‘ঘনিষ্ঠ বন্ধু’ আলেকজান্ডার প্লেখভ।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি পুতিন ইউক্রেনে যুদ্ধ শুরুর নির্দেশ দেওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত ১৪০ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি মূল্যের অলিগার্চসহ রাশিয়ার ১ হাজারের বেশি প্রভাবশালী ব্যক্তি এবং শতাধিক সংস্থার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাজ্য।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল অজ্ঞাত মার্কিন কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বলেছে, ২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের তদন্তে দেখা যায়, কাবায়েভা পুতিনের প্রভাব এবং ব্যক্তিগত সম্পদের সুবিধা ভোগ করছেন। কাবায়েভা সেই সম্পদের কিছু অংশ বিদেশে লুকিয়ে রেখেছেন বলে মার্কিন কর্মকর্তারা সন্দেহ করছেন।

ইউক্রেনে আগ্রাসন শুরুর পরপরই গত ফেব্রুয়ারিতে পুতিনের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে জো বাইডেন প্রশাসন। আর এপ্রিলের শুরুর দিকে যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং জি-৭ ভুক্ত দেশগুলো পুতিনের প্রাপ্তবয়স্ক দুই সন্তান মারিয়া ভোরোনৎসোভা এবং ক্যাটেরিনা তিখোনোভার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার খড়গ চালিয়েছে।

কিন্তু পুতিনের সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্কের গুঞ্জন থাকলেও অলিম্পিক স্বর্ণপদকজয়ী জিমন্যাস্ট কাবায়েভার বিরুদ্ধে পশ্চিমারা এতদিন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেনি। রাশিয়ান কিছু সংবাদপত্র তাকে দেশের ‌‘সিক্রেট ফার্স্ট লেডি’ বলে অভিহিত করে।

চেইঞ্জ ডট ওআরজিতে খোলা একটি পিটিশন অনুযায়ী, সুইজারল্যান্ডের একটি বিলাসবহুল ভিলায় সন্তানদের নিয়ে দীর্ঘদিন বসবাস করেছেন কাবায়েভা। সেখান থেকে তাকে বহিষ্কার করতে সুইজারল্যান্ডের প্রতি দাবি জানানো হয় ওই পিটিশনে।

৬৯ বছর বয়সী পুতিন কাবায়েভার সঙ্গে সম্পর্কের কথা কখনোই স্বীকার করেননি। কিন্তু আমেরিকান কর্মকর্তাদের বিশ্বাস, পুতিনের অন্তত তিন সন্তানের মা ৩৮ বছর বয়সী কাবায়েভা।

পূর্ব পশ্চিম/জেআর

পুতিন
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close