• সোমবার, ১০ আগস্ট ২০২০, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭
  • ||

বাংলাদেশের সঙ্গে বিমান চলাচল বন্ধের ব্যাখ্যায় ইতালির প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ:  ১১ জুলাই ২০২০, ১২:১৪ | আপডেট : ১২ জুলাই ২০২০, ০২:২৯
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

বাংলাদেশের সঙ্গে ইতালির ফ্লাইট বন্ধের যৌক্তিকতা নিয়ে মুখ খুলেছেন ইতালির প্রধানমন্ত্রী জুসেপ্পে কন্তে। চলতি সপ্তাহে স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে রাষ্ট্রীয় সফরকালে স্থানীয় একটি টেলিভিশনের সাংবাদিকদের কাছে ফ্লাইট বন্ধ নিয়ে খোলামেলা আলোচনা করেন কন্তে।

এসময় কন্তে বলেন, ‘সম্প্রতি বাংলাদেশ থেকে আসা যাত্রীদের মধ্যে একটি বড় অংশের দেহে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ ছাড়াও এদেরমধ্যে বেশিরভাগ মানুষ ইতালি ফিরে হোম কোয়ারেন্টাইন মানছেন না। এতে তাদের দ্বারা আরো মানুষ সংক্রমিত হচ্ছে। আমরা এক জরিপে দেখেছি বাংলাদেশ থেকে আসা প্রায় ৭০ শতাংশ মানুষ করোনা ভাইরাস বহন করে নিয়ে আসছে। এরা কিভাবে বাংলাদেশের ইমিগ্রেশন পাড় হলো সেটা অবশ্যই ভাববার বিষয়। আমরা সুস্পষ্ট করে বলতে পাড়ি বাংলাদেশের ইমগ্রেশনে সঠিকভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয় না’।

এ সময় স্প্যানিশ টেলিভিশন চ্যানেল লা সাক্সতা'র 'আল রোজো ভিভো' অনুষ্ঠানের উপস্থাপক দেশটিতে বাংলাদেশিদের প্রবেশ করার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাংলাদেশিরা কোনো ধরনের পর্যবেক্ষণ ছাড়াই ইমিগ্রেশন পাড় হয়ে ইতালি এসে এখানে ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটাচ্ছে। তাই বাংলাদেশিদের কারণে বাধ্য হয়ে ফ্লাইট বন্ধ করেছি।

এ ছাড়াও বৃহস্পতিবার দেশটির স্বনামধন্য পত্রিকা ‘কোররিয়েরা দেল্লা সেরা’ এক প্রতিবেদনে বলেছে, ইতালির সরকার আপাতত বাংলাদেশসহ ১৩টি দেশের সঙ্গে চলতি মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত সকল ফ্লাইট বাতিল করেছে। দেশগুলো হলো- আরমানিয়া, বাহরাইন, বাংলাদেশ, ব্রাজিল, বসনিয়া, চিলি, কুয়েত, উত্তর মাচেদোনিয়া, মলদোভা, ওমান, পানামা, পেরু ও রিপাবলিক ডমেনিকান।

দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এসব দেশে যদি কেউ বিগত ১৪ দিনের মধ্যে ট্রানজিট বা অবস্থান করে তারা আপাতত ইতালিতে প্রবেশ করতে পারবেনা। এমনকি কোন ইতালিয়ান নাগরিকও যদি এসব দেশে গত ১৪ দিনের মধ্যে ভ্রমণ করে থাকে তাহলে তারাও আপাতত ইতালিতে প্রবেশ করতে পারবেনা।


পূর্বের নিউজটি বুম বিডি দ্বারা মিথ্যা প্রমাণিত হওয়া আমরা আন্তরিক ভাবে দঃখিত, এমন ভুল আর হবেনা বলে আশা।

পূর্বে প্রকাশিত নিউসটি নিচে

পূর্বের নিউজ হেডলাইন : বাংলাদেশিরা একেকটা ভাইরাস বোমা: ইতালির প্রধানমন্ত্রী

পূর্বের নিউজ বডি : বাংলাদেশের সঙ্গে ফ্লাইট বন্ধ করেছে ইতালি। এই সিদ্ধান্তের যৌক্তিকতা নিয়ে মুখ খুলেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী জুসেপ্পে কন্তে। চলতি সপ্তাহে স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে রাষ্ট্রীয় সফরকালে স্থানীয় একটি টেলিভিশনের সাংবাদিকদের কাছে ফ্লাইট বন্ধ নিয়ে খোলামেলাভাবে কথা বলেন তিনি।

কন্তে বলেন, সম্প্রতি বাংলাদেশ থেকে আসা বেশিরভাগ যাত্রীদের মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্ত হচ্ছে। এছাড়াও এদেরমধ্যে বেশিরভাগ মানুষ ইতালি ফিরে হোম কোয়ারেন্টাইন মানছেন না। এতে তাদের দ্বারা আরো মানুষ সংক্রমিত হচ্ছে। আমরা এক জরিপে দেখেছি বাংলাদেশ থেকে আসা প্রায় ৭০ শতাংশ মানুষ করোনাভাইরাস বহন করে নিয়ে আসছে। এরা কিভাবে বাংলাদেশের ইমিগ্রেশন পার হলো সেটা অবশ্যই ভাবার বিষয়।

তিনি বাংলাদেশের ইমগ্রেশনে সঠিকভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা হয় কিনা তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন।

ইতালির প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশিরা কোনো ধরনের পর্যবেক্ষণ ছাড়াই ইমিগ্রেশন পার হয়ে ইতালি এসে এখানে এ ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটাচ্ছে। তাই আমরা বাধ্য হয়ে ফ্লাইট বন্ধ করেছি। একেকজন বাংলাদেশি একেকটা ভাইরাস বোমা। আমরা আমাদের দেশকে বোমা থেকে দূরে রাখতে আপাতত ফ্লাইট স্থগিত করেছি।

এছাড়াও বৃহস্পতিবার দেশটির স্বনামধন্য পত্রিকা ‘কোররীয়েরা দেল্লা সেরা’ এক প্রতিবেদনে বলেছে, ইতালির সরকার আপাতত বাংলাদেশসহ ১৩টি দেশের সঙ্গে চলতি মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত সকল ফ্লাইট বাতিল করেছে। দেশগুলো হলো- আরমানিয়া, বাহরাইন, বাংলাদেশ, ব্রাজিল, বসনিয়া, চিলি, কুয়েত, উত্তর মাচেদোনিয়া, মলদোভা, ওমান, পানামা, পেরু ও রিপাবলিক ডমেনিকান।

দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এসব দেশে যদি কেউ বিগত ১৪ দিনের মধ্যে ট্রানজিট বা অবস্থান করে তারা আপাতত ইতালিতে প্রবেশ করতে পারবেনা। এমনকি কোন ইতালিয়ান নাগরিকও যদি এসব দেশে গত ১৪ দিনের মধ্যে ভ্রমণ করে থাকে তাহলে তারাও আপাতত ইতালিতে প্রবেশ করতে পারবেনা।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএম

ইতালি,করোনাভাইরাস,জুসেপ্পে কন্তে
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close