• মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০, ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
  • ||

মসজিদেই চলছে মাস্ক তৈরির কাজ

প্রকাশ:  ০৭ এপ্রিল ২০২০, ২৩:০৪
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

করোনা মোকাবিলায় মসজিদেই যুদ্ধকালীন তৎপরতায় চলছে মাস্ক তৈরির কাজ। ইরানের তেহরানের একটি মসজিদে দিনরাত এক করে মাস্ক তৈরির কাজে হাত লাগিয়েছেন স্থানীয় মহিলারাই। সেলাই মেশিন জোগাড় করে চলছে মারণ করোনার বিরুদ্ধে বাঁচার লড়াই।

করোনা মোকাবিলায় গোটা মসজিদই পরিণত হয়েছে মাস্ক তৈরির কারখানায়। করোনা যুদ্ধে ব্যতিক্রমী এক ছবি ইরানের তেহরানের একটি মসজিদে। করোনায় তছনছ গোটা ইরানে। মারণ এই ভাইরাসের সংক্রমণ ব্যাপক আকার নিয়েছে ইরানে। ইতিমধ্যেই ইরানের ৭০ হাজারের বেশি মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৩ হাজার।

চূড়ান্ত উদ্বেগ গোটা ইরানে। এই পরিস্থিতিতে ইরান জুড়ে মাস্কের আকাল। মাস্কের প্রবল চাহিদা ইরানজুড়ে। কিন্তু পাহাড়-প্রমাণ চাহিদা থাকলেও জোগান কম থাকায় অনেকেই মাস্ক পাচ্ছেন না। বাধ্য হয়ে কাপড়ে মুখে ঢেকে সংক্রমণ থেকে বাঁচার চেষ্টা ইরানবাসীর।

এই পরিস্থিতিতে তেহরানের ওই মসজিদ কর্তৃপক্ষ। করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আতঙ্কে ইতিমধ্যেই মসজিদে সবরকম ধর্মীয় উপাচার বন্ধ রয়েছে। তবে মাস্ক তৈরির জন্য মসজিদের দরজা খুলে দেওয়া হয়েছে। করোনার সঙ্গে প্রবল লড়াইয়ে মাস্কের ব্যবহার একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক।

মসজিদের মধ্যেই যুদ্ধকালীন তৎপরতায় চলছে মাস্ক তৈরির কাজ। ধর্মীয় উপাসনালয়ে এ এক বাঁচার লড়াই। এগিয়ে এসেছেন এলাকার বহু মহিলা। মানবসভ্যতাকে বাঁচানোর এই লড়াইয়ে মহিলাদের সবরকম সহযোগিতা করছেন এলাকার পুরুষরাও।

আপাতত ১৫ জন মহিলা সেখানে সেলাইয়ের মেশিন নিয়ে নিরন্তর মাস্ক সেলাই করে যাচ্ছেন। পরে সেই মাস্ক এলাকায় বিলি করা হচ্ছে। পাঠানো হচ্ছে শহরের অন্যত্রও। নজিরবিহীন এই উদ্যোগের ফলে ওই এলাকায় আপাতত মাস্কের চাহিদা মতো জোগান দেওয়া যাচ্ছে।

ব্যতিক্রমী এই কর্মসূচির আয়োজকদের আশা, তাঁদের এই উদ্যোগ দেখে অনুপ্রাণিত হয়ে এগিয়ে আসবেন অন্যরাও। অচিরেই দেশের অন্য মসজিদগুলিতেও এমন উদ্যোগ চোখে পড়বে। মানবসভ্যতা বাঁচানোর এই লড়াইয়ে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াইয়ের সংকল্প আরও মজবুত হবে।

পূর্বপশ্চিমবিডি/জেআর

করোনা
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close