• মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
  • ||

সৌদি আরবে দফায় দফায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলা

প্রকাশ:  ২৯ মার্চ ২০২০, ১০:২১ | আপডেট : ২৯ মার্চ ২০২০, ১০:৫৮
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

সৌদি আরবে দফায় দফায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়েছে। সৌদির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম আল এখবারিয়া ও এএফপির প্রতিবেদনে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

‘এখবারিয়া টেলিভিশন’ সূত্রে জানা গেছে, রিয়াদের উপর দুটি এবং জিজানে একটি মিসাইল হামলা চালায় ইয়েমেনের ইরান সমর্থিত হুথি বিদ্রোহীরা। তবে সবকটি মিসাইল মাঝ আকাশেই নষ্ট করে দেওয়ার দাবি করেছে সৌদি আরব। এ হামলায় এখন পর্যন্ত কোনও হতাহতের খবর নেই।

খবরে বলা হয়েছে, শনিবার রাতে রাজধানী রিয়াদে একটি ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিহত করেছে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট। রিয়াদে একটি ব্যালেস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিহত করা হয়েছে এবং ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। তবে কারা ওই হামলা চালিয়েছে সে বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি।

অপরদিকে এএফপির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাজধানী রিয়াদে তিন দফা বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে। তবে এখনও পর্যন্ত কোনো গোষ্ঠী এসব হামলার দায় স্বীকার করেনি।

এর আগেও রাজধানী রিয়াদসহ সৌদির বিভিন্ন স্থানে এমন হামলা চালানো হয়েছে। এর মধ্যে অধিকাংশই প্রতিহত করতে সক্ষম হয়েছে সৌদি।

দীর্ঘদিন ধরেই ইয়েমেনে সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই চালাচ্ছে শিয়া সম্প্রদায়ের হুথি বিদ্রোহীরা। তাদের সমর্থন দিচ্ছে শিয়া প্রধান দেশ ইরান। অপরদিকে ইয়েমেনের সমর্থনে লড়াই চালাচ্ছে সুন্নি প্রধান সৌদি আরব। হুথি বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে যৌথবাহিনীর নেতৃত্ব দিচ্ছে সৌদি আরবের সেনাবাহিনী। ফলে বেশ কয়েকবার রিয়াদকে লক্ষ্য করে মিসাইল হামলা চালিয়েছে হুথিরা। এর আগেও ইয়েমেন-আরব সীমান্তের পার্শ্ববর্তী শহর নাজরানে মিসাইল হামলা চালায় হুথি যোদ্ধারা।

২০১৫ সালে ইয়েমেনের রাজধানী সানাসহ বিস্তীর্ণ অঞ্চল দখল করে হুথি বিদ্রোহীরা। তারপরই ইয়েমেনি সরকারের সমর্থনে ওই দেশে সামরিক অভিযান শুরু করে সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের যৌথবাহিনী। ২০১৫ সাল থেকে চলা ইয়েমেনের এই গৃহযুদ্ধের জেরে ইসলামি দুনিয়া আড়াআড়ি বিভক্ত। একপক্ষ সুন্নি গোষ্ঠী অর্থাৎ সৌদি আরব জোট। অন্যপক্ষ শিয়া গোষ্ঠী অর্থাৎ হুথিদের মদদদানকারী ইরান। এর জেরে মধ্যপ্রাচ্যের রাজনীতি গরম। আর গৃহযুদ্ধের জেরে ইয়েমেনের অভ্যন্তর মৃত্যুপুরী।


পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএম

ইয়েমেন,মিসাইল,সৌদি আরব
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close