• শুক্রবার, ১০ এপ্রিল ২০২০, ২৭ চৈত্র ১৪২৬
  • ||

লকডাউনে বাইরে বেরোনোয় পুলিশের বেদম পিটুনি, ভাইরাল ভিডিও

প্রকাশ:  ২৫ মার্চ ২০২০, ১৩:১৬
পূর্বপশ্চিম ডেস্ক

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাসের আগ্রাসী সংক্রমণ বেড়ে চলেছে। এরই মধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কিছু কিছু এলাকা আংশিক লকডাউন হয়েছে। আবার কোথাও কোথাও পুরোপুরি লকডাউন করা হয়। তিন সপ্তাহের পূর্ণ লকডাউনে ভারত। মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) দিন শেষে মধ্যরাতে শুরু হওয়া এ লকডাউন কার্যকর থাকবে পরবর্তী ২১ দিন। এ তিন সপ্তাহের মধ্যে ঘরবন্দি থাকবে দেশটির ১৩০ কোটি মানুষ। কিন্তু তারপরও দেশটির কিছু অতি উৎসাহী জনগণ বাড়িতে বসে থাকতে রাজি নন।

কিন্তু এরই মধ্যে সরকারের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ঘর থেকে বের হয়ে পড়ছেন মানুষ। অবশ্য পরিস্থিতি নিয়ে কঠোর অবস্থানে রয়েছে ভারত পুলিশ। কলকাতা, দিল্লি, রাজস্থান কিংবা গোয়া- যেখানে মানুষ ঘর থেকে বের হচ্ছেন, সরকারি আদেশ অমান্য করছেন; পড়ছেন শাস্তির মুখে। কাউকে দেওয়া হচ্ছে বেদম মার, কেউবা আবার কান ধরে ওঠাবসা করছেন। বয়স যতই হোক আদেশ বিধি অমান্যে শাস্তি ভোগ করতে হচ্ছে তাদের।

লকডাউনের পাশাপাশি কয়েকটি শহরে ১৪৪ ধারা কারফিউ জারি করা হয়েছে। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে কঠোর প্রশাসন। এরই মধ্যে যত্রতত্র আদেশ অমান্য করছেন ভারতীয়রা। দেশটির বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যমের খবরে দেখানো হচ্ছে নাগরিকদের বিবেকহীনতার কাজ। সঙ্গে দেখানো হচ্ছে পুলিশের কড়া সতর্কতা।

অবশ্য দেশটির সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বেশ কয়েকটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে, যাতে দেখা যাচ্ছে ঘর থেকে বের হওয়া মাত্র বেদম পেটানো হচ্ছে লোকদের। আবার কাউকে কান ধরিয়ে শাস্তি দেওয়া হচ্ছে।

দিল্লি পুলিশের দাবি, বারবার প্রচারণা, অভিযান চালিয়েও এক শ্রেণির মানুষকে বোঝানো যাচ্ছে না করোনার ভয়াবহতা। তাই বাধ্য হয়েই চড়াও হয়েছেন তারা। অনেক জায়গায় আবার, কান ধরে উঠবস করিয়ে নিয়ম মানতে বাধ্য করছে আইনশৃঙ্খলা বাহনী।

অবশ্য, সবক্ষেত্রেই এমনটা হচ্ছে তা না। আছে বিপরীত কৌশলও। শাস্তির বদলে ফুলের তোড়া দিয়ে সচেতনতা বাড়ানোর চেষ্টা করছেন অনেকে।

মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ৮টার দিকে টেলিভিশনে জাতির উদ্দেশ্যে এক ভাষণে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, মঙ্গলবার মধ্যরাত থেকে সারা ভারত লকডাউন করা হবে। এটা কারফিউর চেয়েও কঠোর। আগামী ২১ দিন ঘর থেকে বের হওয়ার কথা ভুলে যান। আপনি যদি সীমা অতিক্রম করেন তাহলে নিজের ঘরেই করোনা ভাইরাস ডেকে আনবেন।

ভারত এক জটিল কালপর্বের সামনে, যখন একটি ভুল পদক্ষেপও দাবানলের মতো করোনা ভাইরাসকে ছড়িয়ে দিতে পারে উল্লেখ করে ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, কেউ কেউ মনে করেন করোনায় আক্রান্তদের ক্ষেত্রেই কেবল সামাজিক বিচ্ছিন্নতা দরকার, সেটা সঠিক নয়। এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়তে সামাজিক বিচ্ছিন্নতাই একমাত্র অস্ত্র। এটি সবার জন্য প্রযোজ্যম সব পরিবারের জন্য।

পূর্বপশ্চিমবিডি/জিএম

করোনাভাইরাস,ভারত,পুলিশ,ভাইরাল ভিডিও
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close